বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

বিশ্বম্ভরপুরে ৪০ হাজার মানুষ পানিবন্দী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১২ আগস্ট, ২০১৭
  • ২০ Time View

বিশ্বম্ভরপুর প্রতিনিধি
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণের ফলে ও পাহাড়ী ঢলের পানিতে বন্যায় বিভিন্ন ইউনিয়নের ৪০ হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় দিন যাপন করছেন বলে জানা গেছে। শুক্রবার দুপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার কমিটির সভায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানরা। বন্যায় উপজেলা সদর, উপজেলা পরিষধ এলাকা, থানা প্রাঙ্গণ, মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বিশ্বম্ভরপুর বাজারের গলি, হাসপাতাল আবাসিক পাড়াসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে।
শুক্রবার সকাল থেকে পানি বাড়তে শুরু করে। বাদাঘাট (দ.) ইউনিয়নের যাদু কাটা পাহাড়ী নদী দিয়ে ও ধোপাজান চলতি পাহাড়ী নদী দিয়ে পাহাড়ী ঢলের পানি প্রবল বেগে প্রবাহিত হচ্ছে। বৃহত্তর খরচার হাওরে বাতাসে প্রবল ঢেউ উঠে অনেক বাড়ীঘর ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।
উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত হওয়ায় ও রাস্তা ঘাট ডুবে যাওয়ায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এ অবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীরা যাওয়া আসা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। উপজেলার পলাশ, ধনপুর, বাদাঘাট (দ.) ও সলুকাবাদ ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে রোপা আমন বীজতলা, আউশ ধান ও শাকসবজি তলিয়ে গেছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানার আহবানে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে জানা যায় ৪০ হাজার মানুষ পানি বন্দী অবস্থায় রয়েছে। বন্যায় বিভিন্ন গ্রামে কাঁচা ঘরবাড়ীর ক্ষতি হচ্ছে বলে ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগণ জানান। বন্যা কবলিত জনসাধারণের সহায়তা প্রদানের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট ত্রাণ সহায়তার জন্য আহবান করা হয়। তবে এপর্যন্ত সরকারি কোন ত্রাণ বিতরণ করা হয়নি। শুক্রবার সকালে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24