মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন

ভালোবাসাকে জয় করলেও মৃত্যুর কাছে পরাস্ত জগন্নাথপুরের স্কুল শিক্ষিকা বিউটি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৬
  • ২৫৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: ভালোবাসাকে জয় করে বাবা মা পরিবার পরিজনকে ফেলে স্বামীকে নিয়ে সুখের সংসার বাঁধছিলেন স্কুল শিক্ষিকা বিউটি রানী বৈদ্য। সুখের সেই সংসারে এক বছর যেতে না যেতেই অকালে চলে যেতে হল তাকে না ফেরার দেশে। হৃদয়বিদারক এই ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের কালিটেকী গ্রামে। জানা গেছে, ওই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা রসরাজ বৈদ্যর ছেলে সুনামগঞ্জ কৃষি গবেষনা ইনষ্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক সহকারী রাজিব রাজ বৈদ্যর সাথে একই গ্রামের রনজিৎ বৈদ্যের মেয়ে সাদিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা বিউটি রানী বৈদ্যর প্রেমের সর্ম্পক চলছিল। এক পর্যায়ে তারা

গোপনে কোট ম্যারিজের মাধ্যমে বিয়ে করেন। কিন্তু এ বিয়ে না মেনে শিক্ষিকার্ পরিবারের লোকজন মৌলবীবাজার মতারকাপন গ্রামের কানু বৈদ্যের ছেলে উজ্বল বৈদ্যের নিকট মেয়েটিকে জোর করে বিয়ে দেন। সামাজিক ও ধমীয় রীতিতে এবিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ের প্রায় এক মাস পর ফেরা যাত্রায় এলে মেয়েটি পালিয়ে তার আগের ভালোবাসার মানুষ স্বামী রাজিব বৈদ্যর কাছে চলে যায়। এ নিয়ে দু্ই পরিবারের মধ্যে তীব্র বিরোধ দেখা দেয়। গত বছরের ১২ জুন মেয়েটিকে অপহরন করা হয়েছে বলে মেয়েটির পরিবারের লোকজন থানায় অভিযোগ করে। যা নিয়ে সামাজিকভাবে জগন্নাথপুরে হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতাদের উপস্থিতিতে এক সালিস বৈঠক বসলে মেয়েটির মতামতের প্রেক্ষিতে তাঁর ভালোবাসার মানুষ রাজিব রাজ বৈদ্যের হাতে তাকে তুলে দেয়া হয়। সেই থেকে মেয়েটির বাবা মা ও স্বজনরা মেয়েটির সাথে আর কোন যোগাযোগ ও সর্ম্পক রাখেননি।স্বামী সংসার নিয়ে সুখেই কাটছিল স্কুল শিক্ষিকা বিউটির দাম্পত্য জীবন। হঠাৎ করে শরীরে দেখা দেয় দুরাগ্যেব্যাধি। ডাক্তারের শরনাপন্ন হলে ডাক্তাররা জানান,জরায়ুতে ক্যান্সার ধরা পড়েছে। সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দীর্ঘ দুই মাস চিকিৎসা শেষে সম্প্রতি তাকে বাড়ি নিয়ে আসা হয়। বুধবার রাতে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরবর্তীতে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হলে বৃহস্পতিবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। রাজিব রাজ বৈদ্য কান্নাজড়িত কন্ঠে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ভালোবাসার জন্য নিজের পরিবার পরিজনকে ফেলে আমার কাছে চলে এসেছিল বিউটি। আমি তাকে ধরে রাখতে পারলাম না। এখন আমি ভালোবাসাবিহনীন কিভাবে বাঁচব। মুক্তিযোদ্ধা রসরাজ বৈদ্য জগন্নাথপুর ‍টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মেয়েটির ভালোবাসার বিরুদ্ধে গিয়ে তার পরিবার তাকে অনেক কষ্ট দিয়েছে। আমরা তাকে ভালোরাখার শেষ চেষ্ঠা করেছি। আমাদেরকে কাঁদিয়ে অকালে চলে গেছে।
এদিকে স্কুল শিক্ষিকা বিউটিরমৃতদেহ নিয়ে গ্রামের বাড়ি কালিটেকীতে গেলে গ্রামবাসী ও এলাকার শিক্ষকমহলে শোকের ছায়া নেমে আসলে বিউটির পরিবারের লোকজন তাকে শেষ দেখতে যায়নি।এমনকি গ্রামে পঞ্চায়েতী শশ্মানঘাটে শেষকৃত্যানুষ্ঠান করতে বাধা দেন। কলকলিয়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল হাসিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, স্কুল শিক্ষিকার অকাল মৃতুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসলেও মেয়েটির বাবা কাকারা বিষয়টি ভিন্নভাবে দেখছে। আমরা উভয় পরিবারকে বুঝানোর চেষ্ঠা করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24