সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

মতিউর-মুকুট-ইমনে বন্দি জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের পূনাঙ্গ কমিটি-নেতাকমীরা হতাশ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০১৫
  • ২২০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের দুই সদস্য বিশিষ্ট অপূনাঙ্গ কমিটি দিয়ে সাত মাস ধরে চলছে দলীয় সাংগঠনিক কার্যক্রম। কবে পূনাঙ্গ কমিটি আসবে তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছে না। এদিকে পূনাঙ্গ কমিটি অনুমোদন না হওয়ায় দুই সদস্য কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ মানতে নারাজ দলের একটি অংশ। ওই অংশ দুই সদস্য কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এঅবস্থায় আওয়ামীলীগের প্রধান অঙ্গসংগঠন উপজেলা যুবলীগের কমিটি এসেছে দুই সদস্য বিশিষ্ট। গত ২০ জুন সন্মেলনের ৩৪ দিন পর জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমন ৭১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা যুবলীগের কমিটির মধ্যে সংবাদপত্রে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষনা করেন। আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের অপূনাঙ্গ কমিটি নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। বিশেষ করে উপজেলা যুবলীগের অপূনাঙ্গ কমিটি নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম হতাশার সৃষ্টি করছে। আওয়ামীলীগ যুবলীগের পাশাপাশি ছাত্রলীগে করুণদশা বিরাজ করছে। গত ২৫ এপ্রিল ছয় বছর পর উপজেলা ছাত্রলীগের সন্মেলনের দিনক্ষন ঠিক হলেও একদিন আগে আওয়ামীলীগের বিরোধের কারণে সন্মেলন স্থগিত হলেও এখন পর্যন্ত নতুন কমিটি কিংবা সন্মেলনের নেই কোন খবর। পৌর যুবলীগ ও পৌর ছাত্রলীগের অবস্থা আরো করুণ। ২০০০সালে জগন্নাথপুর সদর ইউনিয়নকে পৌরসভায় রূপান্তরিত করা হলেও আজ অবধি গঠিত হয়নি পৌর যুবলীগের কমিটি। জগন্নাথপুরের সন্তান ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমন সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের দায়িত্ব পাওয়ার পর এ উপজেলায় যুবলীগের রাজনীতি চাঙ্গা হলে দাবী উঠে পৌর যুবলীগের কমিটি গঠনের। উপজেলা যুবলীগের সন্মেলনের দিন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক একইদিনে উপজেলা ও পৌর যুবলীগের কমিটি ঘোষনা করা হবে বলে নেতাকর্মীদের আশ্বস্থ করলেও উপজেলা যুবলীগের দুই সদস্য কমিটি হলেও পৌর যুবলীগের কোন খবর নেই। একইদশা পৌর ছাত্রলীগের। তিন মাস আগে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক রাতের আঁধারে সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে পৌর ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার নাম দিয়ে অপূনাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেন। উপজেলা আওয়ামীলীগ এ কমিটি না মানায় এ কমিটির কোন সাংগঠনিক তৎপরাতা নেই। উপজেলা ছাত্রলীগের সন্মেলন কিংবা নতুন কমিটির কোন খবর না থাকায় অসীত্ব সংকটে পড়েছে ছাত্রলীগ। যদিও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি প্রবীণ রাজনীতিবীদ এ উপজেলার আওয়ামীলীগ রাজনীতির অভিভাবক সিদ্দিক আহমদকে সামনে রেখে এ উপজেলায় আওয়ামীলীগ ওঅঙ্গসহযোগী সংগঠন সমূহ পূনাঙ্গ সাংগঠনিক রূপরেখা ছাড়াই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। প্রবীণ এ রাজনীতিবীদ প্রতিদিন দলীয় অফিসে সময় দিয়ে নেতাকমীদের চা্ঙ্গা রাখছেন। চালিয়ে যাচ্ছেন রাজনৈতিক তৎপরতা যা অনেক উপজেলায় কমিটি থাকার পর সম্ভব হচ্ছে না্ বলে মনে করেন অধিকাংশ নেতাকমীরা।
আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, গত বছরের ২১ ডিসেম্বর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সন্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিলরা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগর সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদের পরামর্শক্রমে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুটকে কমিটি গঠনের দায়িত্ব দেয়া হলে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট এক সপ্তাহের মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন করে দেয়ার ঘোষনা দেন। গত ৭ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলনকে সামনে রেখে জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ৬৭ সদস্য উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটির মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে আকমল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক পদে রেজাউল করিম রিজুর নাম ঘোষনা দেন। ৫ ফেব্রুয়ারি জেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন স্থগিত হয়ে যাওয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের পূনাঙ্গ কমিটিও অনিশ্চয়তায় পড়ে। গত সাত মাস ধরে দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটিই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে পূনাঙ্গ কমিটি অনুমোদন না হওয়ায় আওয়ামীলীগের একটি অংশ জগন্নাথপুরে কমিটি হয়নি অপপ্রচার চালাচ্ছে। ওইপক্ষ সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদবী ব্যবহার না করার আহ্বান জানায়। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক রাজনীতির এমন অবস্থায় গত ১৬ মে বনাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় উপজেলা যুবলীগের সন্মেলন। সন্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে তৃণমুলের নেতাকর্মীরা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনকে কমিটি গঠন করে দেয়ার দায়িত্ব দিলে তিনি এক সপ্তাহের মধ্যে পূনাঙ্গ কমিটি গঠন করে দিবেন বলে ঘোষনা দেন। ২০ জুন তিনি সংবাদপত্রে দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষনা করেন। যুবলীগের নেতাকর্মীরা জানান, ২০১৩ সালে উপজেলা যুবলীগের একজন আহ্বায়ক ও ৯জন যুগ্ম আহ্বায়ক দিয়ে ৫৭ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি তিন মাসের জন্য অনুমোদন করেন। এরপর থেকে উপজেলাব্যাপী যুবলীগের রাজনীতি চাঙ্গা হয়ে উঠে। গত দুই বছর পর গত ১৬ মে উপজেলা যুবলীগের সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ২০ জুন ৩৪ দিন পর তিনি ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির মধ্যে মাত্র দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা দেন। এতে নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পড়েন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যুবলীগের একাধিক নেতাকর্মী জানান,সন্মেলনের এতদিন পর কমিটি দেয়া হয়েছে। আমাদের আশা ছিল পূনাঙ্গ কমিটি ঘোষনা হবে। আওয়ামীলীগের মতো যুবলীগের এমন কমিটি নেতাকর্মীরা মেনে নিতে পারছেন না। জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক এম এনামুল কবির ইমনে বন্দি হয়ে আছে জগন্নাথপুরের আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের পূনাঙ্গ কমিটি। কবে আসবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ ও তার প্রধান অঙ্গ সংগঠন যুবলীগের পূনাঙ্গ কমিটি এ প্রতীক্ষায় প্রহর গুনছেন নেতাকমীরা। এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ উপজেলায় প্রবীণ রাজনীতিবীদ সিদ্দিক আহমদকে কেন্দ্র করে আওয়ামী রাজনীতি ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী। আমরা এই নেতার নির্দেশে রাজনীতি করে যাচ্ছি। সাংগঠনিক কাজের সুবিধার জন্য পূনাঙ্গ কমিটির জন্য আমরা যোগাযোগ করছি। আশা করছি অচিরেই জেলা সভাপতি/সম্পাদক পূনাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দিবেন। তিনি আওয়ামীলীগের পাশাপাশি অঙ্গসহযোগী সংগঠনের পূনাঙ্গ কমিটি আওয়ামীলীগের অভিভাবক সিদ্দিক আহমদের নির্দশনায় ্রঅচিরেই হবে বলে জানান।
(ঘোষনা- আগামীদিন পড়–ন জগন্নাথপুর বিএনপির হালচাল নিয়ে প্রতিবেদন)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24