মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

মদনপুরে হোক মেডিকেল কলেজ অহেতুক বিতর্কে না জড়ানোর আহ্বান

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৬ জুন, ২০১৭
  • ৬৭ Time View

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের প্রচেষ্টায় সুনামগঞ্জবাসীর জন্য একটি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের সুযোগ মেঘ না চাইতেই বৃষ্টির মতো অবস্থা। সুনামগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের এমন এক সুসংবাদে আমাদের যেখানে আনন্দে উদ্বেলিত হওয়ার কথা, যার উদ্যোগে এটি বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে তাঁকে অভিনন্দন জানানোর কথা; তখন কিছু ব্যক্তি এক অর্থহীন বিতর্কে নেমেছেন। তাদের বিতর্কের ধরন-ধারণ অনেকক্ষেত্রেই শালীনতার সীমা ছাড়িয়েছে। তাঁরা বিরোধিতা করতে েেযয়ে পরোক্ষভাবে ব্যক্তিবিশেষ বিশেষ করে মূল উদ্যোক্তাকে লক্ষ করে কটাক্ষ করতেও ছাড়ছেন না। এই ধরনের ব্যক্তি আক্রমণাত্মক বিতর্ক থেকে অবিলম্বে সংশ্লিষ্টদের সরে এসে সুনামগঞ্জের উন্নয়নে এক কাতারে দাঁড়ানো উচিৎ। এর আগে জানা দরকার মেডিক্যাল কলেজের কোন বিষয়টি নিয়ে বিতর্কে নেমেছেন তারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে জানা যায়, শহরের কিছু ব্যক্তি মদনপুরে মেডিকেল কলেজ স্থাপনের বিষয়টিকে অযৌক্তিক উল্লেখ করে এটি ব্যক্তি বিশেষের ইচ্ছার বাস্তবায়ন বলে মন্তব্য করছেন। তাঁদের মতে শহরের জাওয়ার হাওর বা শহরের সন্নিকটে অন্য কোন জায়গায় মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। এই পক্ষটি বিতর্ককে উপজীব্য করে যারা মদনপুরের পক্ষে কথা বলছেন তাদেরকে এবং এই মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের অনুঘটককে কটাক্ষ করে নানা মন্তব্য করেছেন। অন্যদিকে আরেকটি শক্তিশালী গোষ্ঠী মদনপুরে মেডিকেল স্থাপন হওয়াতে দোষের কিছু দেখছেন না উল্লেখ করে তারা অবিলম্বে কলেজ স্থাপনের প্রক্রিয়া শুরু করার আহ্বান জানিযেছেন। গত কয়েকদিন যাবৎ এই বিতর্কে সুনামগঞ্জবাসী ফেসবুক ব্যবহারকারীদের একটি অংশ বেশ উৎসাহিত বলে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যেকোন বিষয়ের পক্ষে-বিপক্ষে কারও কারও অবস্থান থাকবে এটি গণতান্ত্রিক রীতি। কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হবে যে এই পক্ষ বা বিপক্ষালম্বন যাতে কোন অবস্থাতেই শালীনতার সীমা না ডিঙায়। তদুপরি এই বিতর্ক যাতে মূল বিষয়টিকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত না করে সেটিও লক্ষ্য রাখার প্রধান বিষয় বটে। আমরা জেনেছি এরকম অর্থহীন বিতর্কের কারণেই নাকি সুনামগঞ্জে নাসির্ং ইনস্টিটিউট স্থাপন করা সম্ভব হয় নি।
মদনপুরে বা জাওয়ার হাওরে অথবা আব্দুজ জহুর সেতুর পশ্চিম অংশেÑ যেকোন স্থানে মেডিক্যাল কলেজ হলে কারও কোন আপত্তি থাকার কথা নয়। আসল কথা হলো সুনামগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন। স্থান নির্ধারণ কমিটি নানা দিক বিশ্লেষণ করে মদনপুরকে নির্ধারণ করেছেন এবং ভৌগোলিক অবস্থা বিবেচনায় নিলে এটিকে অযৌক্তিক বলার কোনই অবকাশ নেই। যারা এখন স্থান নিয়ে বিরোধিতায় নেমেছেন তাদের উচিৎ কাজ ছিল স্থান নির্ধারণ কমিটিতে যথেষ্ট সময় থাকতে নিজেদের পছন্দ ও যুক্তিগুলো তুলে ধরা। এখন যখন সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে তখন এর বিরোধিতা করার অর্থ হলো মূলত মেডিকেল কলেজ স্থাপন বিষয়টিকে সংশয়ের মধ্যে ঠেলে দেয়া। এই কাজটি যারা করছেন তারা যে অনিচ্ছায় সুনামগঞ্জের উন্নয়নবিরোধী ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন সেটি কি বুঝতে পারছেন? উন্নয়নের বিকেন্দ্রিকরণ বিষয়ে আমরা অনেকেই সোচ্চার। মদনপুরে মেডিক্যাল কলেজ হলে এই কারণে সংশ্লিষ্ট এলাকায় নানা ধারনের উন্নয়ন ঘটবে। যেটি এলাকাবাসীর আর্থসামাজিক অবস্থার ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটানোয় ভূমিকা রাখবে। আমরা নিশ্চয়ই মদনপুর এলাকার উন্নয়ন হওয়া নিয়ে কেউ দ্বিমত করব না।
শহর থেকে মদনপুরের দূরত্ব বড়জোর ১০ থেকে ১২ কিলোমিটার। এই জায়গা সব দিক থেকে ভাল যোগাযোগ নেটওয়ার্কের মধ্যে অবস্থিত। এমন দূরত্ব এখন ১৫/২০ মিনিটের মধ্যে অতিক্রম করা সম্ভব। ১৫/২০ মিনিটের দূরত্বকে কেউ যদি অনেক দূর মনে করেন তাহলে তাদের চিন্তার দীনতার জন্য সকলেই দুঃখিত হবেন সত্য কিন্তু সবার আগে সকলেই চাইবেন এমন অহেতুক বিতর্কে যাতে মেডিকেল কলেজটিই সুনামগঞ্জ থেকে অন্যত্র চলে না যায়। সুনামগঞ্জের বিশিষ্ট অাইনজীবি গবেষক বজলুল মজিদ খসরু তাঁর ফেসবুক মন্তব্যে যুক্তিযুক্ত মন্তব্য তুলে ধরে মদনপুরে মেডিকেল কলেজ হওয়ার পক্ষে মতামত দিযেছেন। প্রবীণ এই আইনজীবির মতামতের পক্ষে শহরের অধিকাংশ সুশীল সমাজ থাকলেও শুধুমাত্র বিরোধীতার কারণে শহরে মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবি তুলেছেন। জগন্নাখপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জ থেকে নির্বাচিত সংষদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট দাবি জানিয়ে সুনামগঞ্জে মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবি বাস্তবায়ন করলেও তিনি কখনও তাঁর নির্বাচনী এলাকা জগন্নাথপুর কিংবা দক্ষিন সুনামগঞ্জে হোক এমন দাবি করেননি। তিনি জেলার অধিকাংশ উপজেলাবাসীর কথা চিন্তা করে মদনপুরে চমৎকার জায়গায় মেডিকেল কলেজ স্থাপনের স্থান নির্ধারনের পক্ষে মতদিয়েছেন। এথন যারা আন্দোলনের হুমকি দেন তারা হয়তো জানেন না মদনপুরে মেডিকেল কলেজ বাস্তবায়নে জগন্নাথপুর,দক্ষিন সুনামগঞ্জ, ছাতক, দোয়ারা, দিরাই,শাল্লা, জামালগঞ্জ, তাহিরপুর,বিশ্বম্ভরপুর ও ধর্মপাশার মানুষ আন্দোলনের জন্য তৈরী আছে। শুধু শুধু নোংরা রাজনীতির খেলায় মেতে উঠে মেডিকেল কলেজের স্থান নিয়ে অহেতুক বির্তকে জড়াবেন না। জেলার অধিকাংশ নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি সংষদ সদস্যবৃন্দ জেলাবাসীর সুবিধার কথা বিবেচনা করে মদনপুরের পক্ষে রয়েছেন। শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারণে বিরোধীতাকারীরা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইছেন। উন্নয়নের প্রয়োজনে এসব বির্তকে না জড়ানোর আহ্বান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24