বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩১ অপরাহ্ন

মোবাইল ফোনের সিম নিবন্ধন-২০১২ সালের আগে সিম নিবন্ধনকারীদের কাছে এসএমএস যাবে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৮ Time View

তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:: মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে যারা ২০১২ সালের আগে সিম নিবন্ধন করেছেন, এসএমএস পাঠিয়ে তাদের কাছে প্রয়োজনীয় তথ্য চাইবে অপারেটরগুলো। এই এসএমএসে গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নম্বর, নাম এবং জন্মতারিখ জানতে চাওয়া হবে। গ্রাহক সেই তথ্য মোবাইল অপারেটরদের দিলে তার সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ভাণ্ডারের তথ্য মিলিয়ে দেখা হবে। ২০১২ সালের আগে নিবন্ধিত অধিকাংশ সিমের সঠিক তথ্য অপারেটরদের হাতে না থাকায় এই ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানিয়েছেন।
মোবাইল অপারেটরগুলোর প্রধান নির্বাহী, ইসির জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগ, এনটিএমসি ও বিটিআরসি কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রতিমন্ত্রীর দীর্ঘ বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়।প্রায় আড়াই ঘণ্টার এ বৈঠকের আগে ও পরে দুই দফা সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তারানা হালিম্
বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে অপারেটররা গ্রাহকদের একটি কোড দেবে। সেই কোডে গ্রাহক তার নিবন্ধনের তথ্য জানতে চাইতে পারবেন।“অপারেটররা যদি না দিতে পারে তাহলে সেই কোডে গ্রাহকরা তাদের এনআইডি নম্বর ও নাম দিয়ে এসএমএস করে নিবন্ধনের তথ্য যাচাই করে নিতে পারবেন এবং তার এনআইডিতে কতটি সিম নিবন্ধন রয়েছে তাও জানতে পারবেন।”
তারানা জানান, আগামী এক নভেম্বর থেকে পরীক্ষামূলকভাবে গ্রাহকরা কাস্টমার কেয়ার থেকে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন করতে পারবেন।
গ্রাহকরা নিজের ইচ্ছায় এ কাজ করবে বলেও প্রতিমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন।
“আগামী ১৬ ডিসেম্বর থেকে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে চূড়ান্তভাবে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হলে সঠিক নিবন্ধন প্রক্রিয়া চালু হবে। এক্ষেত্রে যাদের সঠিকভাবে নিবন্ধন করা নেই বা এক এনআইডিতে একাধিক সিম রয়েছে তারা অগ্রাধিকার পাবেন।” এ বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে প্রচার চালানো হবে বলেও জানান তিনি।
ভুয়া পরিচয়ে অথবা নিবন্ধন না করে সিম কিনে নানা অপরাধে ব্যবহারের অভিযোগ বাড়তে থাকায় সম্প্রতি গ্রাহকদের তথ্য যাচাই ও সিম পুনঃনিবন্ধনের এই উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরপর মোবাইল গ্রাহকদের সিমের তথ্য যাচাইয়ে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ভাণ্ডার ব্যবহারের প্রক্রিয়া শুরু হয়।
বৈঠকে বসার আগে তারানা হালিম বলেন, “গতকাল পর্যন্ত অপারেটররা গ্রাহকদের যে তথ্য দিয়েছে তা খুবই অপর্যাপ্ত। সব অপারেটর মিলিয়ে প্রায় ১৩ কোটি সিম আছে। এর মধ্যে মাত্র ৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ সিমের তথ্য মিলেছে।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24