সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

যেসব উপজেলায় সরকারি স্কুল, কলেজ নেই, সেসব উপজেলার স্কুল, কলেজকে জাতিয়করণ করা হবে-প্রধানমন্ত্রী

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০১৫
  • ৩৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::বছরের শুরুতে বিএনপি-জামায়াতের টানা ৯৩ দিনের হরতাল-অবরোধের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত জোট যদি আত্মঘাতীমূলক কর্মকাণ্ড না চালাত, জ্বালাও-পোড়াও না করত তাহলে আমাদের পাসের হার আরও ভালো হতে পারত। সেই প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও প্রায় ৬৯ দশমিক ৬০ ভাগ পাস। এটা আমি মনে করি অনেক ভালো। বিশেষ করে এইচএসসির ব্যাপারে। ইনশাআল্লাহ আগামীতে ছাত্রছাত্রীরা আরও ভালো করবে। আমি জানি আমাদের ছেলেমেয়েরা অনেক মেধাবী।
রোববার গণভবনে শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল গ্রহণকালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী পিরোজপুর ও পাবনা জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রধানমন্ত্রীর হাতে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল তুলে দেন। পরে বিভিন্ন বোর্ডের প্রধানরা নিজ নিজ বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।
শেখ হাসিনা বলেন, যখন পরীক্ষাটা হয় তখন বাংলাদেশে একটা অস্বাভাবিক অবস্থা বিরাজমান ছিল। এই সমস্যাটা ছিল মনুষ্য (মানুষের) সৃষ্ট। এটা সত্যিই খুব দুর্ভাগ্যজনক। যেদিন থেকে পরীক্ষা শুরু হল সেদিন থেকে অবরোধের সঙ্গে হরতাল দিল তারা (বিএনপি)। এ রকম আন্দোলন আমরা আগে কখনও দেখিনি যে, হরতাল-অবরোধ সব একসঙ্গে দিয়ে মানুষ খুন করা। সবচেয়ে দুর্ভাগ্য হল সরাসরি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ মারা। চলন্ত বাস, ট্রেন, সিএনজি, প্রাইভেট কারে আগুন দেয়া। মানুষকে পুড়িয়ে মেরে একটা আতংক সৃষ্টি করা। ওই পরিস্থিতিতে এসএসসি পরীক্ষা নেয়া হল, সেই পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। বিএনপি-জামায়াতের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে যে প্রতিকূল অবস্থা আমাদের মোকাবেলা করতে হচ্ছে, সেটা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার যারা ঠেকাতে চায়, যারা ক্ষমতায় থেকে লুটপাট করেছে, মানি লন্ডারিং করেছে, দুর্নীতি করেছে, মানুষের ওপর নির্যাতন করেছে এবং যারা চক্রান্ত করছে।
শেখ হাসিনা বলেন, তারাই এদেশের মানুষের শিক্ষার পথ বন্ধ করতে চায়, উন্নয়ন বন্ধ করতে চায়, মানুষের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে চায়। সেই প্রতিকূল অবস্থার মধ্য দিয়ে আমাদের ছেলেমেয়েরা পরীক্ষা দিয়েছে। বিশেষ করে ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ৯৩ দিন। জ্বালাও-পোড়াও, মানুষ খুন অবস্থার মধ্যেও পরীক্ষা নেয়া হয়। এ সময় পরীক্ষা দেয়া অত্যন্ত কষ্টকর ও ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। সেজন্য পরীক্ষার তারিখগুলো বিভিন্ন সময় পরিবর্তন করতে হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী আগামীতে জাতির যোগ্য কর্ণধার হিসেবে নিজেদের তৈরি করতে ছেলেমেয়েদের আরও ভালোভাবে পড়াশোনা করার পরামর্শ দিয়ে বলেন, আজকের ছাত্রছাত্রীরাই তো আগামী দিনে এদেশের কর্ণধার হবে। প্রধানমন্ত্রী হবে, কেউ মন্ত্রী হবে, কেউ সরকারি কাজে যাবে, তারাই সব করবে। এজন্য ছাত্রছাত্রীদের আরও ভালো করে লেখাপড়া করতে হবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। সেজন্য ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া, প্রযুক্তিতে সেভাবে গড়ে তুলতে হবে। সব শিক্ষার্থী ভালোভাবে মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনা করবে, ভালোভাবে পড়াশোনা করে নিজেদের গড়ে তুলবে, উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে। আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে চাই। সোনার বাংলা গড়তে হলে আমাদের সোনার ছেলেমেয়ে দরকার।
দারিদ্র্য বিমোচনে শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দারিদ্র্য বিমোচনই তো আমাদের মূল লক্ষ্য। শিক্ষিত জাতি গড়ে তোলা ছাড়া কোনো দেশ দারিদ্র্যমুক্ত হতে পারে না। একমাত্র শিক্ষাই আমাদের দিতে পারে সে শক্তি।
আগামীতে প্রতি উপজেলায় সরকারি স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেসব উপজেলায় সরকারি স্কুল ও কলেজ নেই, আমরা সেগুলোর তালিকা করে সেখানে নতুন করে সরকারি স্কুল-কলেজ নির্মাণ অথবা সেখানকার কোনো স্কুল-কলেজকে জাতীয়করণ করে দেব।
সরকারি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে যাবে : আগামীতে সরকারি কলেজগুলোকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় নিয়ে আসা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারি কলেজগুলোকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় নিয়ে আসা হবে। তিনি বলেন, ঢাকা শহর ও আশপাশের কলেজগুলোকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করে দেয়া। এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সরাসরি নজরদারিতে রাখতে পারবে। এর ফলে শিক্ষার মান উন্নত হবে। অন্য জেলার সরকারি কলেজগুলোকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অধিভুক্ত করে দেয়া হবে। বেসরকারি কলেজগুলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত থাকবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24