শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

রানীগঞ্জ সেতু নির্মাণে জোরেশোরে চলছে কর্মযজ্ঞ-এলাকাবাসী আনন্দিত

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ১৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর রিপোর্ট:; জগন্নাথপুরতথা সুনামগঞ্জ জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা কুশিয়ারার বুকে রানীগঞ্জ সেতু নির্মান। সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের ঐক্যান্তি প্রচেষ্ঠায় ১২৬ কোটি টাকা ব্যায়ে বাস্তবায়িত হচ্ছে বহুল প্রত্যাশিত এই রানীগঞ্জ সেতু। শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করবেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়ুদল কাদের ও অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। কিন্তু এর আগেই জোরে শোরে শুরু হয়েছে সেতু নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিকতা। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সুপ্রাচীন নৌবন্দর হিসেবে পরিচিত ঐতিহাসিক রানীগঞ্জ বাজারের তীরে কুশিয়ারা নদীতে চলছে রানীগঞ্জ সেতু নির্মান কাজের কার্যক্রম। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজনের উপস্থিতিতে শ্রমিকরা পুরো উদ্যোমে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন জানান, বর্তমানে ১৪০ জন শ্রমিক সেতু নির্মাণ কাজের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছে। তন্মেধ্যে স্থানীয় শ্রমিক রয়েছে ৪০ জনের মতো। ইতিমধ্যে রড,পাথর,বালুসহ বিভিন্ন যন্ত্রাংশ এনে কাজ চলছে পুরোদমে। স্বপ্নের এই সেতুর কাজ দেখতে প্রতিদিন স্থানীয় বাসিন্দারা সেতু এলাকায় ভীড় করছেন। অনেকেই উৎসাহ উদ্দীপনায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন।


জগন্নাথপুরবাসী জানান, ১৯৯৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকারের শাসনামলে তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ পাগলা-জগন্নাথপুর-আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ শুরু করেন। ২০০১ সালে বিএনপি সহ চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় এলে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান ওই সড়কের অপ্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে সড়কের বরাদ্দ বন্ধ করে দিলে মহাসড়কের স্বপ্নের অকাল মৃত্যু হয়। ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ পূনরায় ক্ষমতায় এলে সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এম এ মান্নান ওই মহাসড়কের কাজ পুনরায় চালুর প্রচেষ্ঠা চালান। এক পর্যায়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার তালিকা সবুজ পাতায় সড়কটি অর্ন্তুভূক্ত করে একনেকে ৫২ কোটি টাকা অনুমোদন করান। সেই থেকে মহাসড়কের অসমাপ্ত কাজ জোরে শোরে শুরু হয়। গত বছর স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী কুশিয়ারা নদীর ওপর রানীগঞ্জে ফেরি সার্ভিস চালু উদ্বোধন করে সরাসরি যান চলাচলের সুযোগ করে রানীগঞ্জ সেতু নির্মাণের কার্যক্রম শুরু করেন। ফেরী পারাপার শুরু হওয়ার পর থেকে সুনামগঞ্জবাসীকে স্বল্প সময়ে রাজধানীতে যাতায়াতের চলাচল শুরু হয়।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সূত্র মতে, ২০১৪ সালের ২৫ জুন একনেকের সভায় প্রধানমন্ত্রী এই সেতুর ১২৫ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন করেন। গত বছর জুন মাসে সেতুর দরপত্র আহ্বান করা হয়। দরপত্রে অংশ নেয় দেশী বিদেশী তিনটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। অবশেষে যৌথভাবে কাজ চায়নিজ কোম্পানী সিআর ২৪বি এবং বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান এমবিইএল। বর্তমানে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মালামাল এনে সেতুর পাড়ে
পুরোদমে কাজ শুরু করে দেয়ার এলাকাবাসীর মধ্যে আনন্দ দেখা দিয়েছে।

রানীগঞ্জের বাসিন্দা যুবলীগ নেতা সালেহ আহমদ জানান, রানীগঞ্জ সেতু আমাদের কাছে স্বপ্নের সেতু। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সুন্দর আলী বলেন, রানীগঞ্জ সেতু নির্মাণে যে কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে তাতে করে এলাকাবাসী আশাবাদী হয়ে উঠেছেন নির্ধারিত সময়েই সেতুটির কাজ শেষ হবে। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোরডটকমকে বলেন,রানীগঞ্জ সেতু সুনামগঞ্জ জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশার ফসল।বর্তমানে সেতুটির কাজ বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় জেলাবাসী আনন্দিত। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের মাইলফলক হিসেবে এ সেতুটি পুরোজেলাবাসীর যাতায়াত সুবিধায় ব্যবহৃত হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু জগন্নাথপুর টুয়েনিফোর ডটকমকে বলেন,আমরা আশাবাদী বর্তমান সরকারের শাসনামলেই সেতুটির কাজ শেষ হবে।
স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বর্তমান সরকার উন্নয়নের সরকার,তাই দেশে এখন বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। যার ধারাবাহিকতায় রানীগঞ্জ সেতুর কাজ শুরু হয়েছে। নির্ধারিত সময়েই সেতুটির কাজ শেষ হবে বলে জোর দিয়ে মন্ত্রী বলেন, এই সেতুটির কাজ বন্ধ হওয়ার আর কোন সুযোগ নেই। একেনেকে সেতুটির অর্থবরাদ্দ রয়েছে। উল্লেখ্য সেতুটি বাস্তবায়িত হলে পাগলা-জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ-আউশকান্দি আব্দুস সামাদ আজাদ মহাসড়ক দিয়ে সুনামগঞ্জ জেলাবাসীকে স্বল্প সময়ে রাজধানীতে যাতায়াত করতে পারবে। প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুরবাসী যাতায়াত সুবিধার পাশাপাশি ব্যবসা বাণ্যিজের দিক দিয়ে এগিয়ে যাবেন বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24