শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৪১ অপরাহ্ন

লন্ডনে বাংলাদেশী যুবককে পুলিশি নির্যাতন, ক্ষুব্ধ বাঙ্গালীরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৩১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: লন্ডনে বাংলাদেশি জাকারিয়া হোসেন নামে এক যুবকের গাড়ি তল্লাশির সময় তার উপর পুলিশি নির্যাতনের ভিডিওক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এতে বাঙ্গালীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত, অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তাকে অব্যাহতিসহ শাস্তি দাবী করেছেন।

নির্যাতনের শিকার জাকারিয়ার হোসেনের সহমর্মিতা জানিয়ে শুক্রবার পূর্ব লন্ডনের আরবার কমিউনিটি হলে অনুষ্ঠিত হয় সর্বদলীয় সমাবেশ। এতে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়র জন বিগস, ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্টির লিডার কাউন্সিলার অলিউর রহমান, সাবেক মেয়র প্রার্থী কাউন্সিলার রাবিনা খানসহ সর্বস্তরের কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন জাকারিয়া ও তার আইনজীবী।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, জাকারিয়া হোসেন হচ্ছে তরুন সমাজের আইডল। সে তরুন যুবকদের ভাল কাজে উৎসাহিত করার পাশাপাশি একটি ইয়ুথ সেন্টার দীর্ঘদিন যাবত পরিচালনা করে আসছে।

ইতিমধ্যে বারার মেয়র জনবিগস এর তীব্র নিন্দা জানিয়ে বারা কমান্ডারের বিবৃতি দাবী করেছেন। এদিকে ক্যাম্পেইন এগেইনস্ট রেইসিজম এন্ড হেইট ক্রাম সংগঠনে র উদ্যোগে এক প্রতিবাদ ও পরবর্তী করনীয় শীর্ষক এক সভা অনুষ্টিত হয়েছে শনিবার।
পূর্ব লন্ডনের মাইক্রো বিজনেস সেন্টারে আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটি নেতা আবু তাহের চৌধুরী, সিরাজ হক, গোলাম মতুর্জা, কাউন্সিলার রাবিনা খান, মো: হক, রফিক উল্লাহ, সাবেক কাউন্সিলার আব্দাল উল্লাহ, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পীকার খালিস উদ্দিন আহমদ, এটিএন বাংলার সিইও হাফিজ আলম বকস, বাংলাদেশ সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক মুহিবুর রহমান, নূর বকস, কাউন্সিরার আমিনুর রহমান, সাবেক কাউন্সিলার হেলাল আব্বাসসহ অনেকে।
সভায় বক্তারা এই ন্যাক্কারজনক গঠনার তীব্র নিন্দা জানান এবং আগামী বড় পরিসরে আলতাব আলী পার্কে সভার করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।

এদিক ওই পুলিশ সদস্যের বহিষ্কার ও শাস্তির দাবিতে কমিউনিটিতে চলছে ব্যাপক আন্দোলনের প্রস্তুতি।

তবে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে কমিউনিটিকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস।

অনুসন্ধানে জানা যায়, গত রোববার (৯ অক্টোবর) পূর্ব লন্ডনের স্টেপনি গ্রিনে ক’জন বাঙালি তরুণকে সিভিল ড্রেসের পুলিশ জিজ্ঞাসবাদ শেষে ছেড়ে দেন। পরে একজন পোশাকধারী পুলিশ এসে তাদের গাড়ির পেট্রোল ট্যাঙ্কের ক্যাপ খুলে ফের অনুসন্ধান শুরু করলে নির্যাতনের শিকার জাকারিয়া এর প্রতিবাদ করেন।

এ নিয়ে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের এক পর্যায়ে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য ওই তরুণকে শারীরিক নির্যাতন করেন। ওই পুলিশ সদস্য তরুণের মাথা নিচের দিকে চেপে ধরে ঘাড়ে আঘাত করতে থাকলেও উপস্থিত অন্য পুলিশ সদস্যদের তাকে নিবৃত করার চেষ্টা করতে দেখা যায়নি।

ঘটনার কিছুক্ষণ পরই এই নির্যাতনের একটি ভিডিওক্লিপ ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে তোলপাড় শুরু হয় পুরো কমিউনিটিতে। ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশিদের পাশাপাশি অন্যরাও ক্ষোভে ফেটে পড়েন। অনেকে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যের বহিষ্কার ও শাস্তি দাবি জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মন্তব্য করতে থাকেন।

কমিউনিটির উত্তেজনা টের পেয়ে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়র জন বিগস সোমবার (১০ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে পুলিশ অফিসারের এ আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারিত বিরক্তিকর ভিডিওটি দেখার পরপরই বারা কমান্ডারের সঙ্গে জরুরি মিটিংয়ের আহ্বান জানিয়ে ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট অফিসারের শাস্তি ও পুলিশের পক্ষ থেকে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা দেখতে চাই।

এদিকে শুক্রবারের প্রতিবাদ সভায় মেয়র জনবিগস বলেন সারাদেশে ক্রাইম বাড়লেও টাওয়ার হ্যামলেটসে সে তুলনায় অপরাদ বাড়েনি। আমি এখানে এসেছি কমিউনিটির মানুষের কথা শুনতে এবং তাদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করতে। আমি জাকারিয়ার বিষয়টি নিয়ে লন্ডন মেয়রের পুলিসিং বিভাগের ডেপুটি মেয়র এবং টাওয়ার হ্যামলেটস এর বারা কর্মান্ডার সঙ্গে কথা বলেছি আবারও কথা বলে একটি সুরাহা করার চেষ্টা করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24