শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৩৯ অপরাহ্ন

লন্ডনে যথা সময়ে হচ্ছে না বৈশাখী মেলা কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হবে জুলাই মাসে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৩৪ Time View

আমিনুল হক ওয়েছঃ- ইউকে ও ইউরোপে বাঙালীদের সর্ববৃহত মিলন মেলা, ইস্ট লন্ডনের বাংলা টাউনের বৈশাখী মেলা আগামী জুলাই মাসে অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার কাউন্সিলের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগে আগামী ২২শে মে বাংলা টাউনের উয়েভার্স ফিল্ডে এবারের বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হবে বলে বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কাউন্সিলের পক্ষ থেকে সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, আগামী জুলাই মাসে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে এবারের বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হবে। একই সঙ্গে বৈশাখী মেলা আয়োজনের জন্যে কাউন্সিলের সঙ্গে বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টের যে চুক্তি ছিল তাও বাতিল করা হয়েছে বলে কাউন্সিলের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

২০১২ সাল থেকে বৈশাখী মেলা আয়োজনের জন্য কাউন্সিলের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ ছিল বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্ট। টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে সরকার কর্তৃক পাঠানো কমিশনাররা বৈখাশী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টের হিসেব পরীক্ষা-নীরিক্ষা করছেন। তাতে যথাযথভাবে হিসেব উপস্থাপনে ব্যর্থ হওয়ায় বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টের সঙ্গে বৈশাখী মেলা আয়োজনের চুক্তি বাতিল করা হয়েছে বলে কাউন্সিলের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

সরকার নিযুক্ত কমিশনার কর্তৃক নির্ধারিত নীতিমালা পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টকে মেলা আয়োজন থেকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল। এ কারনে এবছর বৈশাখী মেলা ট্রাষ্টের অধিনে যথা সময়ে বিলেতের সবচেয়ে জনপ্রিয় বৃহত্তম কমিউনিটি মেলা ‘বৈশাখী মেলা’ অনুষ্টিত হচ্ছে না। গত ২২ ফেব্রুয়ারী বৈশাখী মেলা ট্রাষ্টের চেয়ারম্যান সিরাজ হক এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন আগামী ২২ মে আবারো বাংলা টাউনে অনুষ্টিত হবে বৈশাখী মেলা। তবে গত ১লা ফেব্রুয়ারী টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার পার্টি সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় এ বছরের বৈশাখী মেলা আগামী জুলাই মাসে কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হবে। । টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান।

টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার পার্টির অফিসে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে মেয়র বিগস বলেন আমাকে দু:খের সাথে বলতে হচ্চেছ যে, বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্ট কমিশনারদের বেধে দেয়া নীতিমালা পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় তাদের তত্ত্বাবধানে আগামী মে মাসে মেলা অনুষ্ঠিত হচ্চেছ না।

ট্রাস্ট অডিট রিপোর্ট নির্ধারিত সময়ে জমাদানে ব্যর্থ হওয়ার পাশাপাশি আরো বেশ কিছু নীতিমালা মেনে চলতে ব্যর্থ হয়েছে। এই অবস্থায় তাদের সাথে চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া ছাড়া কাউন্সিলের সামনে আর কোন উপায় ছিলো না। সময়ের অভাবের কারনে কাউন্সিল এখন আগামী জুলাই মাসে অর্থ্ ারমজান মাসের পর নিজস্ব তত্ত্বাবধানে এই মেলার আয়োজন করবে। আর ২০১৭ সাল এবং এর পরবর্তী মেলা আয়োজনের জন্য উন্মুক্ত টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কাউকে দায়িত্ব দেয়া হবে।

যে বা যারা কাউন্সিলের শর্ত পূরণ করতে পারবেন তাকেই মেলা আয়োজনের দায়িত্ব দেয়া হবে। বৈশাখী মেলা কমিউনিটি ট্রাস্টম্ব যদি এসব শর্ত পূরণ করতে পারে তখন তাদেরকে মেলা ফিরিয়ে দিতে কাউন্সিলের কোন আপত্তি থাকবে না। সংবাদ সম্মেলনে মেয়র বিগস বৈশাখী মেলা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান সিরাজ হককে এতোদিন মেলা আয়োজনের জন্য বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি অভিজ্ঞতার কারনে আসন্ন মেলা পরিকল্পনায় তাকে সিনিয়র এডভাইজার হিসাবে থাকার আমন্ত্রণও জানান। সংবাদ সম্মেলনে মেয়র জন বিগস সাবেক মেয়র ল্ফুুর রহমান সম্পর্কে মেট্রোপলিটন পুলিশের রিপোর্ট বিষয়েও মুখ খোলেন। ইন্ডিপেনডেন্ট গ্রুপের সাম্প্রতিক প্রেস কনফারেন্সের সূত্র ধরে তিনি বলেন, আমি অতীতে ফিরে যেতে চাই না। কিন্তু সত্য হচ্চেছ ল্ফুুর রহমান নির্বাচনী আইন ভঙ্গের কারনে অর্থ্ াসিভিল অফেন্সে দোষী সাব্যস্থ হয়ে মেয়র পদ থেকে অপসারিত হয়েছেন। তিনি ভিন্ন আদালতে তার বিরুদ্ধে দেয়া এই রায়কে চ্যালেঞ্জও করেন। কিন্তু সেখানেও তিনি পরাজিত হন। তিনি আপীলেরও সুযোগ পাননি। তার বিরুদ্ধে ৫ বছরের নিষেদাজ্ঞা বহাল রয়েছে।

এখন পুলিশ তার বিরুদ্ধে কোন ক্রিমিনাল চার্জ আনেনি – এর মানে এই নয় যে তিনি নিদোর্ষ হয়ে গেছেন। আইন ভঙ্গের কারনে তিনি এখনো অপরাধী। তিনি এবং তার এজেন্টের বিরুদ্ধে নির্বাচনে দূর্নীতি, বিভিন্ন অবৈধ কার্যকলাপ যেমন দ্বীতিয়বার ভোট প্রদান, ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার, পোস্টাল ভোট জালিয়াতী, প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মিথ্যা বক্তব্য দেয়া, আয় ব্যয়ের হিসাব না থাকা, ঘুষ এবং ভয় দেখানোর মতো অভিযোগ প্রমানিত হয়েছে। মেয়র আরো জানান, নির্বাচনী আইন ভঙ্গের জন্য শাস্তি দিতে হলে সংশ্লিস্ট ব্যক্তি ক্রিমিনাল অফেন্স করেছে কীনা তা দেখার প্রয়োজন হয় না। সেটি পরবর্তী পদক্ষেপ এবং প্রমাণিত হলে আলাদা শাস্তি দেয়া হয়।

অর্থ্ াশাস্তির পরিমান বাড়ে। এই সম্ভাবনা আছে কীনা তা দেখার জন্যই বিচারক পুলিশকে তা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এটাই এদেশের রীতি। আমরা যারা রাজনীতি করি এই প্রচলিত আইন মেনেই রাজনীতি করি। ল্ফুুর রহমানের জন্য এদেশে নতুন কোন আইন বানানো হয়নি। ক্রিমিনাল অফেন্স প্রমানিত হলো তার জেলদন্ড হওয়ার সম্ভাবনা ছিলো। প্রমানিত না হওয়ায় তিনি তা থেকে বেঁচে গেছেন।

এছাড়া এসব কারনে ল সোসাইটি তার সলিসিটর লাইসেন্স বহাল রাখা যায় কীনা এ বিষয়টিও খতিয়ে দেখছে। মর্গেজ প্রতারনার জন্য তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। তার নানা কার্যকলাপের কারনে ইতিমধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটসের করদাতাদের ২.৫ মিলিয়ন পাউন্ডেরও বেশী ব্যয় হয়েছে (প্রাইসওয়াটার কুপার হাউস রিপোর্ট, উপ নির্বাচনের আয়োজন, কোর্ট কেস, কাউন্সিলের লিগ্যাল ফি, জুডিশিয়াল রিভিউ ইত্যাদি)। এর বাইরে বর্তমানে কমিশনারবাবদ প্রতি সপ্তাহে খরচ হচ্চেছ ৫ হাজার পাউন্ড।

মেয়র বলেন, আরো বড় সত্য হচ্চেছ তিনি আমাদের আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার পাশাপাশি বাঙ্গালী কমিউনিটি তথা টাওয়ার হ্যামলেটসের জন্য লজ্জাও বয়ে এনেছেন। এসব সত্যকে মেনে নিয়ে কমিউনিটির স্বার্থে আমাদের সামনে এগুনো উচ্ িবলে মেয়র মন্তব্য করেন। টাওয়ার হ্যামলেটসের সাম্প্রতিক বাজেট জনমুখি উল্লেখ করে মেয়র বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের সীমাহীন বাজেট কাট সত্ত্বেও ফ্রন্ট লাইন সার্ভিস অব্যাহত রাখা হয়েছে। আর কাউন্সিল ট্যাক্স শুধু টাওয়ার হ্যামলেটসেই বাড়েনি, সারাদেশের প্রায় সব কাউন্সিলেই বেড়েছে। ট্যাক্স বাড়ানোর জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশনাও ছিলো। বর্ণবাদী দল ব্রিটেন ফার্স্ট সম্পর্কে মেয়র জানান, আমি এদেরকে টাওয়ার হ্যামলেটসে নিষিদ্ধের দাবী জানিয়েছি। এব্যাপারে পুলিশের সাথে বিশেষ বৈঠকের কথা মেয়র উল্লেখ করে তাদেরকে নিয়ে প্রতিপক্ষকে রাজনীতি না করার জন্য আহধ্বান জানান। তিনি বলেন, তাদের মোকাবেলায় ঐক্য দরকার, বিভক্তি নয়। আমাদের মধ্যে বিভক্তি তাদেরকেই সহযোগিতা করবে।

পপলার হারকার পার্কিং চার্জ বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে মেয়র বলেন, এর বিরুদ্ধে আমরা কাউন্সিলে মোশন পাশ করিয়েছি। ইতিমধ্যে পপলার হারকা তাদের চার্জ কমিয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি আরো কমানোর জন্য। মোশন পাশে সহযোগিতার জন্য তিনি কাউন্সিলার খালেস উদ্দিন, কাউন্সিলার শিরিয়া খাতুন এবং কাউন্সিলার ডেভিড এডগারকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন, ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলার সিরাজুল ইসলাম, ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলার শিরিয়া খাতুন, কাউন্সিলার ডেভিড এডগার, কাউন্সিলার খালেস উদ্দিন আহমদ, কাউন্সিলার আসমা বেগম এবং কাউন্সিলার আয়াস মিয়া। নির্বাচিত হওয়ার পর এটি ছিলো মেয়র জন বিগসের প্রথম রাজনৈতিক সংবাদ সম্মেলন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24