মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন

সরজমিন প্রতিবেদন- শিশু ইমন হত্যাকান্ড নিয়ে পুলিশী গাফিলতী মানতে নারাজ খোদ পুলিশ সুপার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১২২ Time View

হাবিব সরোয়ার আজাদ,সুনামগঞ্জ(ছাতক) থেকে::সুনামগঞ্জের প্রবাসী অধ্যুষিত ও শিল্পনগরী ছাতকের বহুল আলোচিত ও চাঞ্চল্যকর শিশু ইমন হত্যাকান্ডের মুলহোতা সেই মসজিদের ইমামকে অবশেষে পুলিশ নানা নাটকিয়তার পর পালিয়ে যাবার পথে সিলেট বুধবার নগরীর কদমতলী বাস ষ্টেশন থেকে গ্রেফতার করেছেন। গ্রেফতারকৃতর নাম সুয়েবুর রহমান সুজন। সে উপজেলার ছৈলা আফজালাবাদ গ্রামের ব্রাম্মণ জুলিয়া গ্রামের মুত মখলিছ মিয়ার ছেলে। সে জামাাত -শিবিরের রাজনৈতিক দলের কর্মকান্ডোর একজন সক্রিয় সদস্য বলেও মামলার তদন্তারী কর্মকর্তা এআই আহমদ মঞ্জুর মোর্শেদ নিশ্চিত করেছেন। এর আগে ৩০ মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্য্যন্ত এ হত্যকান্ড ও অপহরণের ঘটনায় উপজেলার বাতির কান্দি গ্রামের আবদুল করিমের ছেলে আব্দুল বাহার, , মুত আবদুল লতিফেরে ছেলে নুরুল মিয়া, আবদুল ছালামের ছেলে আবু জাহেদ সহ আরও ৩ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছেন। এদিকে হত্যকান্ডের বিষয়টি নিশ্চিত হলেও পুলিশ গত ১৩ দিন পরও ইমনের লাশ উদ্যারে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। এনিয়ে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি স্থানীয় জনতার মধ্যে বেশ কিছুটা চাপা ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। পুলিশী গাফিলতীর বিষয়টি মানতে নারাজ খোদ পুলিশ সুপার।

সরজমিনে গিয়ে বৃহস্পতিবার পুলিশ ও নিহতের পারিবারীক সদস্য সহ স্থানীয় এলাকাবসীর সাথে আলাপকালে জানা যায়, উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের বাতিরকান্দি গ্রামের জহুর আলী ২ ছেলে ২ মেয়ের মধ্যে সবচেয়ে আদরের ৬ বছর বয়সী শিশু সন্তান লাফার্জ সিমেন্ট কোম্পানীর কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণীর শিক্ষার্থী ইমনকে ২৭ মার্চ অপহরণ করে নিয়ে যায় স্থানীয় মসজিদের ইমাম সুয়েবুর রহমান সুজন ও তার সহযোগীরা। বিষয়টি পুলিশ কে জানানোর পর প্রথমে আমলে না নিলেও পরদিন দু’লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করলে ২৮ মার্চ এ নিয়ে ইমনের বাবা রুয়েবুর গংদের বিরুদ্ধে থানায় মামামলা দায়ের করেন। গ্রেফারকৃত সুয়বুরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ৩০ মার্চ সোমবার রাতেই ইমনকে হত্যা করা হয়েছে। ২৭ মার্চ থেকে ২৯ মার্চ এ তিনটি দিন পুলিশ তৎপর হলেই শুণ্য হতনা এক মায়ের কুল।

৬ বছর বয়সের নিষ্পাপ শিশু ইমনের খন্ডিত লাশ। সেই সাথে উদ্যার করা হয়েছে হত্যাকান্ডে ব্যবহ্নত ধারালো ছুরি সহ হত্যকান্ডের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য,আলামত। এ হত্যকান্ডে নিয়ে গোটা জেলা জুড়ে বইছে শোকের মাতথ আর নিন্দার ঝড়। দু’লাখ টাকা মুক্তিপণের জন্য নাকি অন্য কোন গোপন বিষয় ইমন’জেনে গিয়েছিল যা ফাঁস হয়ে গেলে সেই মানুষ রুপী নরপশু ইমাম নামের কলল্ক সুজন ও তার সহযোগীদের মুখোশ উন্মোচিত হয়ে যেত। মুলত এ দু’টি বিষয়কেই এখন সামনে রেখে পুলিশী তদন্ত ও আলোচনা সমালোচনা চলছে। পুলিশও অনেকটাই জনরোষ ঠেকাকে মুখে কুলুপ এটে রেখেছেন। নিহগ ইমনের মা বৃহস্পতিবার আহাজারী করে বলছিলেন পুলিশ যদি শুরু থেকেই তৎপর হত তবে আমার বুকের মানিক এমন অকালে হত্যকান্ডের শিকার হতনা।

পুলিশী গাফিলতীর কারণে অকালেই প্রাণ গেল ঘাতক চক্রের হাতে নিষ্পাপ শিশু ইমনের , এলাকাবাসীর এমন ক্ষোভ ও হতাশার কথা জানিয়ে এমন প্রশ্নের উওর জানতে চাইলে পুলিশ সুপার মো. হারুন অর রশীদ বললেন, না এতে পুলিশের কোন গাফিলতি-ই ছিল না। গত ১৩ দিনেও ইমনের লাশ উদ্যার না হওয়া প্রসঙ্গে ফের প্রশ্ন করা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে বললেন পুলিশ চেষ্টা করছে, লাশ পেলে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24