শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর

সিটি নির্বাচনে অংশ নিবে বিএনপি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২১ মার্চ, ২০১৫
  • ৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক-একসঙ্গে আন্দোলন ও নির্বাচন করার কথা ভাবছে বিএনপির নীতিনির্ধারকরা। ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে তারা আন্দোলনের অংশ হিসেবে দেখছেন। তাদের মতে, সমর্থন দিয়ে মেয়র ও কাউন্সিলরদের বিজয়ী করার চ্যালেঞ্জকে আন্দোলনের সাফল্য হিসেবে দেখানো যাবে। আর জয়লাভে ব্যর্থ হলে সরকারের বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগে আন্দোলন জোরদার করা সহজ হবে। ইতিমধ্যেই সিটি নির্বাচনে যাওয়ার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে দলের তৃণমূল ও কেন্দ্রের বেশির ভাগ নেতা। এ অবস্থায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দলের নেতাকর্মীসহ পেশাজীবীদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করছেন। সব পর্যায়ে মত ও নেতাকর্মীদের মানসিকতার মূল্যায়ন করতে গিয়েই দলটি নির্বাচন নিয়ে ইতিবাচক চিন্তা করছে বলে জানা গেছে।
দলটির নীতিনির্ধারকদের মতে, দুই মাসের বেশি সময়ে চলমান আন্দোলন রাজধানীতে তেমন প্রভাব ফেলেনি। চলমান আন্দোলনের চেয়ে নির্বাচনে অংশ নিলে দল বেশি উপকৃত হবে। কারণ বর্তমানে বেশির ভাগ নেতাকর্মী আত্মগোপনে। আন্দোলন চাঙ্গা করতে হলে তাদের রাজপথে আনা দরকার। আর নির্বাচন হচ্ছে নেতাদের রাজপথে নামানোর বড় সুযোগ। নির্বাচনী প্রচারের নামে তারা প্রকাশ্যে আসার সুযোগ পাবেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে এ সুযোগ কাজে লাগাতে নির্বাচনে যাওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। নির্বাচন নিয়ে সরকারের অন্য কোনো মতলব আছে কিনা তাও স্পষ্ট হবে। নির্বাচনে হারজিত দুটো দিকই কাজে লাগানোর কথাও বিবেচনায় রাখা হচ্ছে।
এদিকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরাও হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত জানার অপেক্ষায় রয়েছেন। অনেকে দলের সমর্থন পেতে নানা মাধ্যমে লবিংও শুরু করেছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন আগে থেকেই প্রার্থী চূড়ান্ত থাকলেও দক্ষিণে রয়েছে প্রার্থী সংকট। সেখানে আগের সম্ভাব্য প্রার্থীর সঙ্গে নতুন কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বর্তমান মেয়র মনজুর আলমের প্রতি হাইকমান্ডের আস্থা আগের মতো নেই। শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করছেন। বিএনপির নীতিনির্ধারণী সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে এখনও বিএনপি কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। নির্বাচন নিয়ে কী করা উচিত- সে ব্যাপারে আলোচনা হচ্ছে। এ ব্যাপারে মতামত নেয়া হচ্ছে। নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা কিংবা না করার বিষয়ে দলগতভাবে যেটা শক্তিশালী হবে দল তাই করবে। শিগগিরই এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে দল। মাহবুব বলেন, শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হলে সেটা আন্দোলনের অংশ হবে। আন্দোলন বন্ধ করার কোনো সুযোগ নেই। নির্বাচনে অংশ নিলে আন্দোলন আরও গতিশীল হবে। নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হওয়ার সুযোগ পাবে। আবার নির্বাচনে জয়ী হলে আন্দোলনেও প্রভাব পড়বে।
সূত্র জানায়, সুষ্ঠু নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জয়লাভ করলে ক্ষমতাসীনরা যে অভিযোগ করছে বিএনপির সঙ্গে জনগণ নেই তা মিথ্যা প্রমাণিত হবে। কারণ জনগণ কার সঙ্গে আছে তা প্রমাণের মাপকাঠি হচ্ছে নির্বাচন। অপরদিকে নির্বাচনে কারচুপি করলেও বিএনপির পক্ষে যাবে। ওই কারচুপির প্রতিবাদ জানিয়ে তাৎক্ষণিক সরকারবিরোধী আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা সম্ভব হবে।

সূত্র জানায়, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলে চলমান আন্দোলন স্থগিত বা শিথিল করার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত আসবে। সেক্ষেত্রেও নেতাদের মতামত নিচ্ছেন খালেদা জিয়া। এ ব্যাপারে নেতাদের ভিন্নমত রয়েছে। অনেকে চাচ্ছেন, নির্বাচনে অংশ নিয়ে শুধু ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটিতে কর্মসূচি শিথিল করা হোক। আবার কারও মতে, সারা দেশেই কর্মসূচি স্থগিত করা হোক।
লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান কে বলেন, এটা স্থানীয় সরকার নির্বাচন। সরাসরি অংশ নেয়ার সুযোগ নেই। শেষ পর্যন্ত বিএনপি নির্বাচনে গেলে কাউকে সমর্থন জানাবে। নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী হবেন বলে আশা করি। কারণ জনমত বিএনপির পক্ষে রয়েছে। বিগত কয়েকটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও তার প্রমাণ মিলেছে।ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে সম্ভাব্য প্রার্থী যারা : এর আগে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেয়ার পর বিএনপি দুই সিটিতে সম্ভাব্য প্রার্থী চূড়ান্ত করে। ওই সময় উত্তরে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আবদুল আউয়াল মিন্টুকে দলের পক্ষ থেকে নির্বাচন করার সবুজ সংকেত দেয়া হয়। এবারও নির্বাচনে অংশ নিলে উত্তর থেকে মিন্টুকে সমর্থন দেয়ার সম্ভাবনাই বেশি। কারণ ইতিমধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একজন ব্যবসায়ীকে উত্তরের প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দিয়েছে। মিন্টুও এফবিসিসিআইএ’র সাবেক সভাপতি ছিলেন।
সূত্র জানায়, মেয়র ছাড়াও ঢাকার দুই সিটিতে কাউন্সিলর পদে অনেকেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে দল চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না নেয়ায় তারা এখনও প্রকাশ্যে আসছেন না। অনেকে কারাগারে বসেও নির্বাচন করার কথা ভাবছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24