সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৩:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে পকেটমারকে সাতদিনের কারাদণ্ড দক্ষিণ সুনামগঞ্জে হাইকোর্ট নিষিদ্ধ ৫২টি পণ্য ধ্বংস সহিংসতায় ইয়েমেনে ২৭ শিশু নিহত নুসরাত হত্যা: সেই ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে টাইলসের কাজে ‘অনিয়মের’অভিযোগে ভিডিও ‘ভাইরাল’ জগন্নাথপুরে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মানস রায়ের স্মরণ সভা জগন্নাথপুরে ইমজা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে সরকারি ভূমি থেকে ৭টি দোকানঘর উচ্ছেদ জগন্নাথপুরে ইকড়ছই মির্জাবাড়ী যুব সংঘের ইফতার মাহফিল সেই ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা মিলেছে: পিবিআই

সুনামগঞ্জে ঝড়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাট, তিন উপজেলার মানুষের ভোগান্তি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৩ মে, ২০১৯
  • ১১৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জের তিনটি উপজেলায় শনিবার রাতে কালবৈশাখী হয়েছে। এতে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুতের লাইনে গাছপালা পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এসব এলাকা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। এ কারণে কোনো কোনো এলাকায় শনিবার রাত থেকে গতকাল রোববার দিনভর বিদ্যুৎ না থাকায় ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে মানুষজনকে।
শনিবার রাত ১০টার দিকে সুনামগঞ্জ সদর, বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলায় ঝড় বয়ে যায়। এতে মানুষের ঘরবাড়ি ও গাছাপালা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কোনো কোনো এলাকায় ঝড়ের প্রচন্ড বেগে গাছপালা ভেঙ্গে বিদ্যুতের লাইনে পড়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এরপর এসব এলাকা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। এ কারণে ভোগান্তিতে পড়েন বিদ্যুতের গ্রাহকেরা।
সুনামগঞ্জ পৌর শহরে ঝড়ের পর থেকে কয়েকটি এলাকা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে শহরের বর্ধিত এলাকায় এই সমস্যা হয় বেশি। রোববার সকালে কোনো কোনো এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হলেও শহরের মুহাম্মদপুর, বনানীপাড়া, আলীপাড়া, নবীনগর, ধোপাখালি এলাকা বিদ্যুৎহীন ছিল বিকেল পর্যন্ত। বিদ্যুৎ না থাকায় এসব এলাকার মানুষজনকে নানাভাবে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। বনানীপাড়া এলাকার বাসিন্দা সাইদুল ইসলাম বলেন,‘রমজান মাসের শুরু থেকেই বিদ্যুতের ভোগান্তিতে আছি। শনিবার রাত থেকে রোববার দিনভর বিদ্যুৎ না থাকায় সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়তে হয়েছে পানি নিয়ে। বিদ্যুৎ নাই তাই পানিও নাই। এমনতিইে গরমে প্রাণ যায়। তার ওপর বিদ্যুৎ নাই।’ একই এলাকার বাসিন্দা মবু মিয়া বলেন, তার ঘরের পিছনের একটি বড় গাছ ভেঙে ঘরের ওপর পড়েছে। পাশেই বিদ্যুৎ সরবাহের লাইন থাকায় সেটিও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এ কারণে এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।
মুহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা জাকের আহমদ গতকাল রোববার বিকেল সাড়ে চারটায় জানান, শনিবার রাত ১০টা থেকে বিদ্যুৎ নাই। প্রায় ২০ ঘণ্টা হয়ে গেছে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন কি করছে বুঝতে পারছি না। অফিসে যোগাযোগ করলে কোনো সদুত্তর পাওয়া যায় না।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জ কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, শনিবার রাতের ঝড়ে শহরের বেশ কয়েকটি স্থানে গাছাপালা ভেঙ্গে বিদ্যুতের লাইনে পড়ায় এই সমস্যা হয়েছে। এসব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে সকাল থেকে লোকজন কাজ করছে।
ঝড়ের পর থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায় জেলার সদর, বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলায়। তাহিরপুর উপজেলার বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম জানান, শনিবার রাত ১০টা থেকে বিদ্যুৎ ছিল না। রোববার বিকাল দুইটায় এই উপজেলায় আবার বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়েছে। বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সদরের বাসিন্দা স্বপন কুমার বর্মন বলেছেন, ঝড়ের পর তাদের উপজেলায় প্রায় ১৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ ছিল না।
সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপক অখিল কুমার সাহা বলেছেন, ঝড়ের পর থেকে যেসব এলাকার সমস্যা হয়েছিল সেখানে আমাদের লোকজন কাজ শুরু করেছে। তাই রোববার সকালেই অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়ে যায়। তবে বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলায় দুপুরের পর থেকে বিদ্যুৎ লাইন আবার চালু হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24