শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা। সাপের ছোবলে সাপুড়ের মৃত‌্যু জগন্নাথপুরের শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ ৫ শিক্ষা সংগ্রামী সহায়তা পাবে আজ সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশি নিহত

সুনামগঞ্জে তিন দিনে তিন খুন, ভাবাচ্ছে সকলকে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২০ মার্চ, ২০১৯
  • ৬৯ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
ব্রাহ্মণগাঁওয়ের আব্দুর রউফ, কৃষকনেতা আজাদ মিয়ার পর এবার হত্যাকা-ের শিকার হলেন সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন (৩০)। তিনি ছুরিকাঘাতে খুন হয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮ টায় পুলিশ ধলাইপাড় গ্রাম থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৪ জনকে আটক করেছে। আটককৃতদের মধ্যে সেলিম মিয়া নামের একজন এলাকাবাসীর সামনেই পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে, সে জয়নালকে ছুরিকাঘাত করেছে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক রক্তমাখা ছুরিও উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত জয়নাল মিয়ার শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা বশির আহমদ অরুণ বলেছেন, ‘পরিকল্পিত ভাবে আমার মেয়ের জামাতা আওয়ামী লীগ নেতা জয়নালকে হত্যা করা হয়েছে।’ নিহত জয়নাল আবেদীন ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের মরহুম মুসলেম উদ্দিনের ছেলে। মুসলেম উদ্দিন বৃহত্তর রঙ্গারচর ইউনিয়ন (এখনকার সুরমা, জাহাঙ্গীরনগর ও রঙ্গারচর ইউপি) আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।
এই নিয়ে গত তিন দিনে সুনামগঞ্জে তিনটি খুনের ঘটনা ঘটলো।
দুর্বৃত্তের হামলায় আহত শহরতলির মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের জনপ্রিয় কৃষক নেতা আজাদ মিয়া (৫০) রোববার রাত সাড়ে ৭ টায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। একই দিনে সদর উপজেলার ব্রাহ্মণগাঁওয়ে বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে আব্দুর রউফ (৫৫) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃদ্ধা আফিয়া খাতুন মঙ্গলবার ফজরের নামাজের জন্য বাড়ির সামনের টিউবওয়েলে ওজু করতে গেলে আমগাছের নীচে জয়নাল আহমেদের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন । লাশ দেখে চিৎকার শুরু করেন তিনি। তাঁর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এসে পুলিশে খবর দেন।
খবর পেয়ে পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ্ খানসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। পুলিশ ইসলামপুর সড়কের মুখে ধলাইপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০০ গজ পশ্চিমের আম গাছের নীচ থেকে জয়নাল আহমেদের লাশ উদ্ধার করেন।
জয়নালের খুনের সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শত শত মানুষ এবং আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা লাশ দেখতে জড়ো হন। অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন।
তাৎক্ষণিক স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ধলাইপাড় গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে সেলিম মিয়া (৩৫), মোতালেব মিয়ার ছেলে শাহেন শাহ্ (৩২), ইসলামপুরের ফেরদৌস মিয়ার ছেলে সাগর মিয়া (২৮) এবং জগন্নাথপুর উপজেলার রবি আহমদ (২৫)কে (জয়নালের কর্মচারী) আটক করে পুলিশ।
সেলিম স্থানীয় লোকজনের সামনেই পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে সে জয়নালকে ছুরিকাঘাত করেছে।
সেলিমের মায়ের কথায়ও ঘটনার সঙ্গে যে সেলিম জড়িত ছিল, এর সত্যতা মিলেছে।
সেলিমের মা ধলাইপাড় গ্রামের মানিক মিয়া’র স্ত্রী মোছাম্মৎ হালিমা খাতুন এ প্রতিবেদককে বললেন,‘রাত ১ টায় ঘুমের মধ্যেই ৩-৪ জনের চিৎকার ও গোঙাানির শব্দ শুনতে পাই। ঘর থেকে বের হবার পর আমার জা ঘর থেকে (দেবরের বউ) বের হয়েছে দেখতে পাই। সে বললো পশ্চিম দিকে আওয়াজ শুনতে পাচ্ছি। আমি পশ্চিম দিকে এগিয়ে আওয়াজ দিতেই আমার ছেলে সেলিম বললো,‘আম্মা আমাকে ছুরা দিয়ে আঘাত করেছে জয়নাল। আমি এগুতেই সে পূর্ব দিকে দৌঁড়ে চলে যায়। সকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য আজিজ মিয়াসহ কয়েকজন এসে আমার ছেলে সেলিমকে হাত পাঁ বেধে পুলিশে দেয়। পরে তাঁর কথা মতো আমাদের বাড়ি’র দুই বাড়ি পশ্চিমে শূন্য ভিটার ছাইয়ের নীচ থেকে ছুরা উদ্ধার করে পুলিশ।’ তিনি দাবি করেন তাঁর ছেলে সেলিম ও জয়নাল ঝগড়া করেছে এবং সেলিম ছুরিকাহত হয়েছে। কিন্তু জয়নাল কীভাবে ছুরিকাহত হলো বুঝতে পারছেন না তিনি।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আজিজ মিয়া বলেন, ‘জয়নালের মৃত্যু সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সকলকে জিজ্ঞেস করি, রাতে তারা কোন শব্দ পেয়েছে কী-না, তখন কেউ কেউ বলেন সেলিমের চিৎকার রাতে শুনা গেছে। এরপর সেলিম’এর বাড়ি গিয়ে তাকে ঘুমে পাওয়া যায়। এসময় তার পরনের লুঙ্গিতে রক্তের দাগ দেখে আমরা তাকে ধরে এনে পুলিশে দেই।’
জয়নাল মিয়ার শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা বশির আহমদ অরুন বলেন,‘আমার জামাতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল মিয়া সোমবার রাত সোয়া ১০ টায় চৌমহনী থেকে মঙ্গলকাটা বাজারে তাঁর ওয়ার্কসপ’এ এসে বসে। রাত ১২ টা পর্যন্ত সে তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই ছিল। বাড়ি ফেরার সময় তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমি মনে করছি, এই ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত।’ ঘটনার নেপথ্যে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খাগেরগাঁওয়ের মো. শাহ্ নূর, ইসলামপুরের অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য আবু তাহের এবং একই গ্রামের আল আমিন জড়িত রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. শাহ্নূর এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে বলেন,‘আমার সঙ্গে জয়নালের কোন বিরোধ নেই। দল করলে কিছু মতপার্থক্য থাকতে পারে, তবে আমরা একসঙ্গেই সব কিছু করতাম। তাঁর শ্বশুর বশির আহমদ অরুনের সঙ্গে সামাজিক কিছু বিষয় নিয়ে মতভেদ রয়েছে আমার। জয়নালের খুনী নিজেই স্বীকার করেছে সে জয়নালকে খুন করেছে।’ তিনি জানান, তারা জেনেছেন জয়নাল, সেলিম এরা রাতে এক সঙ্গেই ছিল।
অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য মো. আবু তাহের বলেন,‘খুনীরা ধরা পড়েছে, সুতরাং অন্যদের দোষারোপ করা হচ্ছে কেন? এবং ঘটনা পরিকল্পিত কী-না গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞেস করলেই বেরুবে।’
আওয়ামী লীগের সমর্থক ইসলামপুর গ্রামের আলআমিন বলেন,‘গ্রামে ইউপি সদস্য নির্বাচন গেছে, জয়নালের চাচী রাশেদা এবং আবু তাহেরের ভাগ্নে বিল্লাল’এর মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। আমি বিল্লাল’এর পক্ষে ছিলাম। এজন্য কিছুটা মন কষাকষি ছিল, কিন্তু খুনের মতো ঘটনার সঙ্গে আমার যুক্ত থাকার প্রশ্নই ওঠে না।’
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ্ খান বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ নেতা জয়নালকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ৪ জন আটক হয়েছে। এটি পূর্ব পরিকল্পিত হত্যাকা- কী না খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হত্যাকা-ে জড়িত কেউই ছাড় পাবে না।’
বিকালে ইসলামপুর গ্রামের ঈদগাহ্ মাঠে জয়নাল আহমেদের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে গ্রামের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
অন্যদিকে,মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের জনপ্রিয় কৃষকনেতা আজাদ মিয়া বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর শহরের বড়পাড়া’র বাড়িতে যাবার সময় দুর্বৃত্তদের হামলার শিকার হন। রোববার রাত সাড়ে সাতটায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। তাঁর গ্রামের বাড়ি সদর উপজেলার মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামে। তিনি মোল্লাপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক ছিলেন। হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের সংগঠক ছিলেন।
এই হত্যা মামলায় মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের উকিল আলী, তার ছেলে পাভেল মিয়া, মোল্লাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্থানীয় আকিলপুর গ্রামের বাসিন্দ নুরুল হক ও রিপন আলীকে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ রোববার রাতে উকিল আলীকে গ্রেপ্তার করেছে।
এই মামলার আলোচিত আসামী ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হককে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
শনিবার সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ব্রাহ্মণগাঁওয়ে বাড়ীর সীমানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত আব্দুর রউফ নামের আরো ১ জন রোববার ভোর রাতে নিহত হন।
এ ঘটনায় আব্দুর রহিম কালা মিয়া বাদী হয়ে ১৪ জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৪-৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ রোববার ভোরেই মামলার আসামী লালফর মিয়ার স্ত্রী জয়তুননেছা ও অদুদ মিয়া নামের আরেক জনকে গ্রেপ্তার করে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইমতিয়াজ বলেছেন, এই মামলার অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

সৌজন্যে সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24