সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১০:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

সুনামগঞ্জে নি:শর্ত ক্ষমা চেয়ে আটককৃত পুলিশ সদস্যদেরকে উদ্ধার করে নিলেন ওসি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬
  • ৪৩ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : েসুনামগঞ্জ পৌর এলাকায় ৩ পুলিশ সদস্যকে আটক রেখে এক সন্ত্রাসীকে বেদম মারপিঠক্রমে আহত করার ঘটনায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টায় পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের আফতাবনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানান,পূর্ব বিরোধের জের ধরে হাছননগর ময়নার পয়েন্ট এলাকার আলী হোসেন এর পুত্র সালমান হোসাইন সুমন নামের এক যুবক একটি সিএন্ডজি সহকারে ৩ জন পুলিশ সদস্যকে নিয়ে মাতাল অবস্থায় আফতাবনগরের মৃত দিল মামদ এর পুত্র তফিক নূর (২৪) এর দোকানে গিয়ে তাকে বেদম মারপিঠক্রমে আহত করাসহ তার দোকানের ক্যাশবাক্স লুঠতরাজ করে এবং ভাংচুর চালায়। এ ঘটনার সংবাদ শুনে পাড়া মহল্লার লোকজন তফিক নূরের সাহায্যার্থে ছুটে এসে মাতাল সন্ত্রাসীর সহযোগী সুনামগঞ্জ শহর পুলিশ ফাড়ির এপিএসআই নুরুল হকসহ ৩ পুলিশ সদস্যকে দোকান ঘরে আটক রেখে মেয়র আয়্যুব বখত জগলুলকে খবর দেন। এসময় উত্তেজিত জনতা সন্ত্রাসী সালমান হোসেন সুমনকে গণপিটুনী দেয়। খবর পেয়ে রাত ১২টায় সদর থানার ওসি মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ চৌধুরী বিপি নং ৭৬০১০৪২৯৭২ ঘটনাস্থলে ছুটে এসে আটককৃত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধারের চেষ্টা করেন। কিন্তু উত্তেজিত জনতা পুলিশ সদস্যদেরকে দোকান ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। পরে মেয়র আয়্যুব বখত জগলুল ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে সন্ত্রাসী সুমনকে থানা পুলিশে সোপর্দ করলে এবং ওসি হারুনূর রশীদ আটককৃত পুলিশ সদস্যদের পক্ষে মেয়র ও উত্তেজিত জনতার কাছে করজোড়ে নি:শর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করলে এলাকাবাসী পুলিশ সদস্যদেরকে ছেড়ে দেয়। এদিকে জখমী তফিক নূরের ভাই শফিকুল ইসলাম কর্তৃক সুনামগঞ্জ সদর থানায় দায়েরকৃত ৪ নং চুরির মামলায় রোববার বিকেলে জনতাধৃত সুমনকে গ্রেফতার দেখিয়ে জেলহাজতে পাটায় পুলিশ।

সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি হারুন-অর রশীদ চৌধুরী এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,ঘটনাটি একটি মিসবিহ্যাব। পুলিশকে খবর দিয়ে নিয়ে সুমন তার ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করতে চেয়েছিল বলেই এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এখানে পুলিশের কোন দোষ ছিলনা। পুলিশ সরল মনেই ঘটনাস্থলে গিয়েছিলো। অন্যদিকে সাবেক কমিশনার সমরাজ মিয়া, শ্রমিক লীগ সদর উপজেলা শাখার সভাপতি রফিকুল ইসলাম কালা মিয়া, ব্যাবসায়ী আব্দুল ওয়াহিদ,মুক্তিযোদ্ধার সন্তান খোকন মিয়াসহ এলাকার লোকজন চ্যালেঞ্জ করে বলেন,এপিএসআই নুরুল হকসহ ৩ পুলিশ সদস্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে দোকান ডাকাতির জন্য গভীর রাতে ঘটনাস্থলে যায়। থানায় এফআইআরকৃত চুরির মামলার ঘটনাই প্রমান করে পুলিশের সহযোগী সুমন একজন চোর। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে থানা ও আদালতে একাধিক চুরি ডাকাতির মামলা বিচারাধীন রয়েছে। ব্যবসায়ীরা সুমনের সহযোগী অপরাপর সন্ত্রাসী ও পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে এলাকায় দুদফা প্রতিবাদ সভা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24