বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের ৯টি বেইলি সেতু ঝুঁকিপূর্ণ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৯ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর সড়কে সেতু আছে ১৬টি। এর মধ্যে বেইলি সেতু নয়টি। বেইলি সেতুর সবগুলোই ঝুঁকিপূর্ণ। ঝুঁকিপূর্ণ এসব সেতু দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। এতে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) সূত্রে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের পাগলা এলাকা থেকে জগন্নাথপুর পৌর শহর পর্যন্ত সড়কের দূরত্ব ২১ কিলোমিটার। এই ২১ কিলোমিটারে সেতু আছে ১৬টি। এর মধ্যে পাকা সেতু সাতটি এবং বেইলি সেতু নয়টি। নয়টি বেইলি সেতুর সবকটিই ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে সাতটি আবার মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ।
জগন্নাথপুর পৌর শহরে কয়েকজন বাসিন্দা জানান, জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ এলাকায় কুশিয়ারা নদীতে ফেরি চালু হওয়ায় এই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বেড়েছে। এই স্থানে একটি সেতু নির্মাণের উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে। চলতি মাসেই সেতুর কাজ শুরু হবে। সুনামগঞ্জ থেকে এই সড়ক দিয়ে ঢাকা যেতে সময় প্রায় একঘণ্টা কম লাগে। এ কারণে অনেকেই এই সড়ক দিয়ে ঢাকায় যাতায়াত করেন।
সরেজমিনে দেখা গেছে, পাগলা এলাকা থেকে জগন্নাথপুর যেতে আক্তাপাড়া, দরগাপাশা, বমবমি বাজার, ভাতগাঁও, কুন্দানালা, গয়াসপুর, কলকলি, খাসিলা, মজিদপুর এলাকায় নয়টি ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু রয়েছে। এসব সেতুর পাশে ‘ঝুঁকিপূর্ণ সেতু’ সাইনবোর্ড দিয়ে রেখেছে সওজ কর্তৃপক্ষ।
কুন্দানালা এলাকার সেতুটি একদিকে হেলে আছে। সেতুর মাঝখানে কয়েকটি স্টিলের পাটাতন ভেঙে যাওয়ায় সেগুলো জোড়াতালি দেওয়া হয়েছে। যানবাহনের ভারে এসব পাটাতন যাতে ভেঙে না পড়ে সে জন্য নিচে বাঁশ দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে। একই অবস্থা গয়াসপুর গ্রামের পাশের বেইলি সেতুর। এই সেতুরও কয়েকটি স্থানে স্টিলের পাটাতন উচুঁ-নিচু হয়ে যাওয়ায় সেগুলোর ওপরে আবার স্টিলের পাটাতন দিয়ে জোড়াতালি দেওয়া হয়েছে। এই সেতুর এক পাশের সংযোগ সড়কের মাটি সরে গেছে। এতে সেতুতে যানবাহন উঠতেই ঝুঁকিতে পড়তে হচ্ছে। মজিদপুর এলাকার সেতুর মাঝখানে দুই জায়গায় জোড়াতালি দেওয়া আছে। কুন্দানালা গ্রামের বাসিন্দা আবু বক্কর (৪৫) বলেন, এখন এই পুলের (সেতু) যা অবস্থা যে কোনো সময় গাড়ি নিয়া ভাইঙ্গা পড়তে পারে। মাঝখানে স্টিলের কিছু অংশ দেবে যাওয়ার নিচে বাঁশ দিয়ে আটকাইয়া রাখছে।’ এই সড়কের বাস চালক সাব্বির আহমদ বলেন,‘ব্রিজের উপরে গাড়ি উঠলে মনে অয় ভুমিকম্প শুরু অইছে। আমরা ত ভয়ে থাকি কোন সময় ব্রিজ ভাঙ্গে।’
এ সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী জগন্নাথপুর পৌর শহরের ইকড়ছই এলাকার বাসিন্দা মুজিবুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,‘সেতুগুলো ঝুঁকিপূর্ণ থাকায় সুনামগঞ্জে যাতায়াতের ক্ষেত্রে সময় বেশি লাগে। কোনো কোনো বেইলি সেতু খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এসব সেতুর স্থলে নতুন সেতু না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র বলেন,‘আমরা কয়েক বছর ধরে শুনছি, এই সেতুগুলো তুলে নতুন করে পাকা সেতু নির্মাণ করা হবে। একই সঙ্গে সড়কের সংস্কারে কাজ হবে। কিন্তু শুধুই আলোচনা হচ্ছে, কাজ আর হচ্ছে না।’
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এই সড়কে বেশ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু আছে। এর মধ্যে আমরা সাতটিকে বেশি ঝুঁকিপর্ণূ চিহ্নিত করে ওইসব স্থানে পাকা সেতু নির্মাণের জন্য পরিকল্পনা কমিশনে একটি প্রকল্প প্রস্তাব পাঠিয়েছি। প্রকল্পটি বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন আছে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24