বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৩৬ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগে নতুন মেরুকরণ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৯১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
জেলা আওয়ামী লীগে নয়া মেরুকরণ হয়েছে। বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনের পূর্ব থেকে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি মতিউর রহমানের নেতৃত্বে সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট ও পৌরসভার মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল ছিলেন একাট্টা। তাঁদের নেতৃত্বেই ছিল একাংশ। আরেকাংশে ছিলেন জেলার ৫ সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। শনিবার থেকে সেই বলয় ভেঙে গেছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড রেজিস্টার-এ অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভ করা উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন আয়োজিত সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শনিবারের সমাবেশে মতিউর-মুকুট ও ব্যারিস্টার ইমন এক সুরে বলেছেন, আয়ুব বখ্ত জগলুল বলেছেন ভিন্ন সুরে।
সমাবেশে উপস্থিত সকলেই বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগে নতুন মেরুকরণ হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট এখন এক বলয়ে। পৃথক অবস্থান নিয়েছেন আয়ুব বখ্ত জগলুল।’ জগলুল শনিবার বিকালে একক উদ্যোগে জেলা শহরে শো-ডাউন করেছেন। পরে পৌর চত্বরে সমাবেশ করেছেন।
প্রসঙ্গত. সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ প্রায় ২০ বছর কেটেছে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সম্পাদক দিয়ে। এই দীর্ঘ সময়ে জেলার বেশিরভাগ উপজেলায়-ই সংগঠন ছিল দ্বিধাবিভক্ত। ২০ বছর পর ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঘটা করে সম্মেলন করে সভাপতি ও সম্পাদকের দুই পদ ঘোষণা হয়। সম্মেলনের প্রায় ১০ মাস দুই পদের (সভাপতি ও সম্পাদক) সমন্বয় থাকলেও গত প্রায় ১০ মাস হয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উত্তর মেরু এবং দক্ষিণ মেরু’র মতো ছিলেন।
অর্থাৎ সভাপতি ও সম্পাদক দুজনেই উল্টোপথে হেঁটেছেন।
গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দুরত্ব তৈরি হয়। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে দলীয় সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে ঐ সময় কেন্দ্রে নালিশও করেন।
এরপর থেকে সুনামগঞ্জের ৫ সংসদ সদস্য (সংরক্ষিত নারী আসনসহ) ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন একপক্ষে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য পৌর মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল আরেক পক্ষের হয়ে কাজ করেছেন।
গত প্রায় ১৫ দিন হয় পৌর মেয়র, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ুব বখ্ত জগলুল সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর-বিশ্বম্ভরপুর) আসনে আগামী জাতীয় নির্বাচনে নিজের প্রার্থীতা ঘোষণা করে গণসংযোগ ও প্রচারণা চালাচ্ছেন। গণসংযোগ ও প্রচারণায় তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এই আসনের অপর সম্ভাব্য প্রার্থী মতিউর রহমানের কড়া সমালোচনাও করছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানও বিভিন্ন গণমাধ্যমে জগলুলের সমালোচনা করেছেন। তাতে এই দুইজনের দূরত্ব বেড়েছে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের দূরত্ব কমেছে।
শনিবার সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠের সমাবেশে নাম না বললেও মতিউর রহমান আয়ুব বখ্ত জগলুলকে উদ্দেশ্যে করে ‘অর্বাচিন’ জামায়াত ঘনিষ্টতা, ফ্রিডম পার্টিকে সুনামগঞ্জে রিসিভ করাসহ নানা শব্দবানে আখ্যায়িত করে দোষারোপ করেছেন। একইভাবে আয়ুব বখত জগলুলও বক্তৃতায় ইঙ্গিতে মতিউর রহমানকে নানা কথা বলেছেন। জগলুল বলেন,‘আগামী জাতীয় নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-৪ আসনে রাজাকার-আলবদরের কোন প্রতিনিধিকে যেন মনোনয়ন দেওয়া না হয়। দলে যারা যুদ্ধাপরাধীরা আছে তাঁদেরও বিচার করতে হবে।’
অবশ্য. জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট তিন জনেই বক্তব্যে বলেছেন,‘আওয়ামী লীগ সময়ের প্রয়োজনে ঐক্যবদ্ধ হতে পারে, এবারও তাই হয়েছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে সুনামগঞ্জের ৫ টি আসনে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্যই এই ঐক্য।’
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন এই প্রসঙ্গে বললেন,‘জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানসহ আমরা শুক্রবার রাতে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, দলের বয়োজ্যেষ্ঠ নেতা অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি দেশে আসার পর সকল সংসদ সদস্যসহ দলীয় জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ বসে দলের ঐক্য প্রক্রিয়ার উদ্যোগ নেওয়া হবে। কাউকে বাদ দিয়ে ঐক্যপ্রক্রিয়া চলবে না।’ একই মন্তব্য করলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানও। তিনি বলেন, ‘অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী দেশের বাইরে, তিনি আসার পর সকলকে নিয়ে বসা হবে এবং আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে দলকে ঐক্যবদ্ধ করা হবে।’
আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য, পৌরসভার মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল বলেন,‘আমি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সৎ নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার অঙ্গিকার নিয়ে কাজ শুরু করেছি। আমরা দলকে তৃণমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করতে চাই। আমার দাবি জনবিচ্ছিন্ন নেতারা যেন দলীয় মনোনয়ন না পায়।’
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24