বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জ পৌরসভার নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে জালিয়াতি প্রতারনার অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১৬৬ Time View

আল-হেলাল : সুনামগঞ্জ পৌরসভার ১,২,৩,৫,৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিস্ট্রার পদের দায়িত্বে নিয়োজিত নিকাহ রেজিস্ট্রার মো: আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে নজিরবিহীন অনিয়ম দূর্নীতি জালিয়াতি ও অসদাচারনের অভিযোগ উঠেছে। জেলা প্রশাসক ও রেজিস্ট্রার এর কাছে অভিযোগটি দায়ের করেছেন ৪নং ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ ফাইজুল করিম। তিনি সাবেক নিকাহ রেজিস্ট্রার মৃত কাজী মোঃ আব্দুল করিম এর পুত্র। অভিযোগের অনুলিপি আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত মন্ত্রী, স্থানীয় সংসদ সদস্য,বিচার শাখার সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে প্রদান করা হয়েছে। অভিযোগে প্রকাশ, মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা, ২০০৯ ইং পৃষ্ঠা নং ৬০৩২ এর ১৩ নং অধিক্ষেত্র বিধিমালার উপবিধি খ তে বর্ণিত রয়েছে একটি পৌরসভায় একজন নিকাহ রেজিস্ট্রারের এককভাবে ২ টি ওয়ার্ডের দায়িত্ব পালনের বিধান রয়েছে। কিন্তু কাজী মো: আব্দুল্লাহ ২টি ওয়ার্ডের স্থলে সুনামগঞ্জ পৌরসভার ৭টি ওয়ার্ডে অবৈধভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এর আগে জেলার সদর উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ নূরুল হক নোমান গত ১৩/৮/২০১৩ ইং তারিখে জেলা প্রশাসক বরাবরে উক্ত আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ২০১২ ইং সনের ৪টা মার্চ সাপ্তাহিক সুনামগঞ্জ বার্তা এক কাজীর ৬ জন্ম তারিখ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে জেলা রেজিস্ট্রারের নির্দেশে সদর উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার ২০-৩-২০১২ইং ৯৮নং স্বারকে বিধিমতে ২ টি ওয়ার্ডের অতিরিক্ত ওয়ার্ড গুলির দায়িত্ব হতে কেন মোঃ আব্দুল্লাহকে অব্যাহতি প্রদান করা হইবে না তৎমর্মে কারণ দর্শানোর নির্দেশ প্রদান করা হয়। উক্ত আদেশের জবাবের জন্য কাজী মো: আব্দুল্লাহ গত ২৬/০৩/২০১২ইং সদর সাব রেজিস্ট্রার আব্দুল করিম ধলা মিয়া বরাবরে ৪৫ দিন সময়ের আবেদন করেন। কিন্তু এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কারন দর্শানোর কোন জবাব না দিয়ে সুনামগঞ্জ পৌরসভার মোট ৯ টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১,২,৩,৫,৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডে প্রচলিত বিধি বিধান লঙ্গনক্রমে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ৭ টি ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিষ্ট্রারের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন তিনি। গত ২ বছর যাবত তিনি বার্ধক্য জনিত কারনে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন থাকেন। এ সুবাদে তাহার কার্যালয়ে পুত্র ফখর উদ্দিন, শ্যালক লক্ষণশ্রী ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী ইসহাক মিয়া ও ভাড়াটে জামাল উদ্দিন এর মাধ্যমে অবৈধভাবে রেজিস্ট্রি কার্যক্রম পরিচালনা করেন। মুসলিম বিবাহ ও তালাক (নিবন্ধন) বিধিমালা, ২০০৯ ইং পৃষ্ঠা নং ৬০৩২ এর ১৭ বিধিমালার বিধান অনুযায়ী কোন নিয়োগপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার দায়িত্ব পালনে বিরত থাকলে সরকারের বা কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে পার্শ্ববর্তী ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিষ্ট্রার দায়িত্ব পালন করার কথা। কিন্তু বছরের পর বছর নিয়োগপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল্লাহ তার অবর্তমানে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিরেকে ভূয়া ও ভাড়াটে লোক দ্বারা শহরের কাজির পয়েন্টস্থ কাজী অফিস পরিচালনা করে থাকেন। সুনামগঞ্জ সদর থানার এএসআই আবুল কালাম অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরজমিন তদন্তে গিয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত কাজী মোঃ আব্দুল্লাহকে অফিসে পাননি। পুলিশের তদন্তে ভূয়া কাজী দ্বারা কাজির পয়েন্টস্থ নিকাহ রেজিস্ট্রি অফিস পরিচালনা করার দৃশ্য অবলোকন করেন স্থানীয় লোকজন। অনুসন্ধানে জানা যায়, নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল্লাহ আদৌ সুনামগঞ্জ জেলার স্থায়ী বাসিন্ধা নহেন। তাহার আদিবাস কুমিল্লা জেলায়। তিনি গত ১/৬/১৯৬৭ ইং তারিখে মেরুয়াখলা সিনিয়র মাদ্রাসায় ৪৭ বছর আগে হেড মাওলানা হিসাবে ১৫ বছর এর অভিজ্ঞতা দেখিয়ে ১/১০/১৯৪১ ইং তাহার জন্ম তারিখ উল্লেখক্রমে ৪ শত টাকা বেতনে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। তাহার দাখিল পরিক্ষার মূল সনদপত্র অনুযায়ি তাহার নাম হাফেজ মো: আব্দুল্লাহ মিয়া। জন্ম তারিখ ০১/০৩/১৯৫১ইং। এতে প্রমান হয় ১০ বছর বয়সে ১৯৬১ সনে দাখিল পাস করেন তিনি। সুচতুর কাজী মোঃ আব্দুল্লাহ গত ২২/০২/২০১৫ইং তারিখে জেলা রেজিষ্টার বরাবরে তাহার দাখিলকৃত ব্যক্তিগত তথ্য ছকে তাহার জন্ম তারিখ ০১/০৩/১৯৫১ইং উল্লেখ করেন। তিনি তাহার জন্ম তারিখ একেক সময় একেক রকম উল্লেখ করে মাদ্রাসার শিক্ষক ও নিকাহ রেজিষ্টারের পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। মেরোয়াখলা মাদ্রাসার ১০/০৯/১৯৮০ইং তারিখের পরিদর্শন বিবৃতি অনুযায়ি মোঃ আব্দুল্লাহর জন্ম তারিখ ০১/১০/১৯৪১ইং সঠিক হলে তাহার বর্তমান বয়স দাড়ায় ৭৪ বৎসর। নিকাহ্ রেজিষ্টার এর ১২ বিধির নিয়ম অনুযায়ী বয়সসীমা ৬৭ বৎসর অতিক্রান্ত হওয়ার পর নিকাহ রেজিস্ট্রারের লাইসেন্স এর মেয়াদের অবসান ঘটে। কিন্তু তিনি ভূয়া জন্ম তারিখ দেখিয়ে এখন পর্যন্ত একটি প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার ০২টি ওয়ার্ডের অধিক্ষেত্রের স্থলে ০৭টি ওয়ার্ডের নিকাহ্ রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব বেআইনীভাবে পালন করে যাচ্ছেন। গত ২৯/২/২০১২ ইং ৮৯ নং স্মারকে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবরে উক্ত আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে একটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন সুনামগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা রঞ্জন কুমার তালুকদার ও একেএম সাব্বির। বর্নিত তদন্ত প্রতিবেদনে নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল্লাহর বিভিন্ন জায়গায় প্রদত্ত জন্ম তারিখের ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয় বলে উল্লেখ করা হয়। এতে আরো উল্লেখ করা হয় আব্দুল্লাহর দাখিলকৃত দাখিল পাশের সনদে দেখা যায় তিনি ১০ বছর বয়সে দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে কথিত দাখিল পাশের সনদের সঠিকতা যাছাই করার জন্য তদন্ত প্রতিবেদনে মতামত ব্যক্ত করা হয়। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ আব্দুল্লাহ বলেন,আস্তাগফিরুল্লাহ আমার জন্ম তারিখ ৬টি হবে কেন একটিই। আমার লাইসেন্সের মেয়াদ আরো ২ বছর ৪ মাস অবশিষ্ট রয়েছে। সুনামগঞ্জ পৌরসভা হিন্দু অধ্যুষিত পৌরসভা হওয়ায় এবং অন্য কোন যোগ্য প্রার্থী না থাকায় আমি সমগ্র পৌরসভার ৭টি ওয়ার্ডেই দায়িত্ব পালন করছি। ইতিপূর্বে অসুস্থতার কারনে শ্যালক ও পুত্রকে দিয়ে অফিসের কাজ চালিয়ে গেলেও এখন আমি প্রতি সপ্তাহে বাসায় ফিরে কাবিননামায় স্বাক্ষর দেই। বর্তমানে আমি সুস্থ এখন থেকে নিয়মিতভাবে অফিস চালাবো। অন্যদিকে শিক্ষা পাশের সনদ জালিয়াতি ও অবৈধভাবে নিকাহ রেজিস্ট্রারের কার্যক্রম পরিচালনায় মোঃ আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের সত্যতা প্রমানিত হওয়ার পরও কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করেননি। ফলে নিকাহ রেজিস্ট্রির মতো একটি ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কাজী মোঃ আব্দুল্লাহর জালিয়াতি প্রতারনায় সুনামগঞ্জ পৌরবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছেন। জনস্বার্থে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন ও ৭টি শূন্য ওয়ার্ডে অবিলম্বে নিকাহ রেজিস্ট্রার নিয়োগের দাবী এখন শহরবাসীর প্রানের দাবীতে পরিনত হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24