সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৩৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

সুনামগঞ্জ-১ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের কর্মএলাকা ভাগাভাগি- মিশ্র প্রতিক্রিয়া দলের ভিতরেই

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৩২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা-তাহিরপুর-মধ্যনগর) আসনে আগামী জাতীয় নির্বাচনে আগ্রহী প্রার্থীদের কাজের ক্ষেত্র ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ গ্রুপিং এড়াতে কর্ম এলাকা ভাগাভাগি করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে সুনামগঞ্জ শহরের পুরাতন বাসস্টেশনের দলীয় কার্যালয়ে জেলা নেতৃবৃন্দ বৈঠক করে এই সিদ্ধান্ত নেন। এই প্রক্রিয়াকে প্রার্থীদের কেউ কেউ ইতিবাচকভাবে দেখছেন, আবার কেউ বলেছেন, এটি কোন সমাধান নয়।
সুনামগঞ্জ-১ আসনেই বিএনপির সবচেয়ে বেশি মনোনয়ন প্রত্যাশী। নির্বাচনী এলাকার তাহিরপুর উপজেলায় ৩ জন, জামালগঞ্জে ২ জন এবং ধর্মপাশায় ১ জন প্রার্থী হতে সক্রিয়। দলের প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ অভিযানে এরা সবাই একসঙ্গে নামলে সাংগঠনিক বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে। এজন্য মঙ্গলবার জেলা বিএনপির কার্যালয়ে সভা করে কাজের ক্ষেত্র ভাগ করে দেওয়া হয়েছে।
আগ্রহী প্রার্থীদের মধ্যে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেনকে উত্তর বড়দল, বেহেলী ও সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের সদস্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে এই আসনের প্রার্থী ডা. রফিক চৌধুরীকে ধর্মপাশা সদর, দক্ষিণ শ্রীপুর ও জামালগঞ্জের ভীমখালী ইউনিয়নে সদস্য সংগ্রহ অভিযানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাহিরপুর উপজেলার সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনিসুল হককে তাহিরপুর সদর, জামালগঞ্জ উত্তর ও বংশীকু-া উত্তর ইউনিয়নে সদস্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুলকে জামালগঞ্জ সদর, বংশিকু-া দক্ষিণ ও বালিজুরি ইউনিয়নের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
যুক্তরাজ্য আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক হামিদুল হক আফিন্দি লিটনকে সাচনাবাজার ও দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
এসব আগ্রহী সম্ভাব্য প্রার্থীরা ছাড়াও নির্বাচন করার আকাঙ্খা রয়েছে এমন দায়িত্বশীল নেতাদের মধ্যে ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালেব খান, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মামুন উর রশিদ শান্তকেও আলাদা আলাদাভাবে ৬ টি ইউনিয়নের সদস্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই প্রক্রিয়ার সমন্বয়কারী করা হয়েছে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুলকে।
এই ভাগাভাগি করাকে জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ বলেছেন,‘দলীয় বিশৃঙ্খলা এড়াতে এবং সকলকে কাজে লাগাতে এমন
উদ্যোগ। নির্বাচন করতে আগ্রহী যারা সকলেই এর ফল পাবেন। দলীয় প্রার্থী যিনি হবেন তাঁর পক্ষেই থাকবে সবাই। এছাড়া সংগঠনের উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটির নেতৃবৃন্দই সদস্য সংগ্রহ করবেন, নেতারা বা সম্ভাব্য প্রার্থীরা তাঁদের সহযোগিতা করবেন।’
সংগঠনের এই প্রক্রিয়াকে সমাধানের কোন পথ নয় বলে মনে করেন ডা. রফিক চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘কর্ম এলাকা ভাগাভাগি কোন সমাধান নয়। বিগত সময়ে যেনোতেনোভাবে উপজেলা কমিটি হয়েছে। এসব কমিটিগুলোকে সমন্বয় করতে হবে। তৃণমূলের নেতাদের কাজে লাগাতে হবে।’
জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নজির হোসেন বলেন, ‘কমিটি যা আছে, সেগুলো ভাঙতে গেলে বা সমন্বয় করতে গেলে গ্রুপিং আরো বাড়বে। নির্বাচনের আগে এটি আরো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে।’ তিনি মনে করেন, ভাগাভাগি করে কাজ করলে কাজ বেশি হবে।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,‘বিভিন্ন উপজেলায় গ্রুপ-উপগ্রুপ আছে। কিন্তু আমরা দলীয় টার্গেট পূরণ করতে চাই। এজন্য সকলকে কাজে লাগানোর জন্য কর্ম এলাকা ভাগ করা হয়েছে। মনোনয়ন যেই পায়, ফল সেই ভোগ করবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24