শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন পৌর চত্বরে মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সন্মেলনে পরিবর্তনের পক্ষে তৃণমূল নেতাদের আওয়াজ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে:শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরে শিশুর মৃত্যু:’শিশুটি যখন মৃত্যুের যন্ত্রনায় চটপট করছিল,যখন ডাক্তার-নার্স ঘুমে’ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান ডা. আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বারডেমের নতুন অতিরিক্ত মহাপরিচালক

স্বামীকে খুন করে থানায় এসে ধরা দিলেন স্ত্রী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: স্বামীকে খুন করে থানা এসে পুলিশের হাতে ধরা দিলেন স্ত্রী। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি বৃস্পতিবার ভোরে রাজধানীতে ঘটেছে।

জানা যায়, রাজধানীর বাড্ডা থানার উপপরিদর্শক আবদুল কাদের বৃহস্পতিবার সকালে নিজের ডিউটি শেষ করে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ওই সময়ে থানায় হাজির এক নারী। তার হাতে রক্তাক্ত একটি পলিথিন। তাকে ক্লান্ত আর বিধ্বস্ত দেখাচ্ছিল।

ডিউটি অফিসার ওই নারীর পরিচয় জানতেই চাইলে তিনি নিজের নাম বলেন চন্দ্রা বানু। পরে পুলিশকে আর কিছু জিজ্ঞেস করতে হয়নি। নিজে থেকেই বলতে থাকেন, ‘আমি স্বামীকে (ফজল শেখ) হত্যা করে ঘরে তালা দিয়ে চলে এসেছি।’

পলিথিনের রক্তাক্ত ব্যাগটি দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘এই দেখেন, ওর পুরুষাঙ্গও কেটে নিয়ে এসেছি। আমাকে আটক করেন।’

স্বামী হত্যার এমন সরল স্বীকারোক্তিতে থমকে যান পুলিশ কর্মকর্তা। এরপরই শুরু হয় তোলপাড়। অবশেষে ওই নারীকে আটক করে বাড্ডার আদর্শ নগরের ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার করা হয় ফজল শেখের (৪৭) মরদেহ।

চন্দ্রা বানু পুলিশকে বলেন, ‘আমি ফজল শেখের প্রথম স্ত্রী। পরে ফজল রুমি নামে একটি মেয়েকে বিয়ে করেন। এরপর খবর পাই আমার স্বামী আরও একটি বিয়ে করেছেন। এ ঘটনা নিয়ে বুধবার রাতভর ঝগড়া হয় আমাদের। ভোরের দিকে স্বামী ঘুমিয়ে গেলে দা দিয়ে তার পুরুষাঙ্গ কেটে শিল-পাটা দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করি।’

বাড্ডা থানার উপপরিদর্শক আব্দুল কাদের বলেন, ‘শুরুর দিকে চন্দ্রা বানুর কথাবার্তা পাগলের প্রলাপের মতো মনে হচ্ছিল। তাকে থানায় বসিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানাই। ততক্ষণে চন্দ্রা বানু তার স্বামীকে হত্যার বিস্তারিত বিবরণ দেন। এরপর তাকে নিয়েই আদর্শ নগরের ওই বাসায় তল্লাশি চালিয়ে ফজল শেখের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।’

পুলিশ কর্মকর্তা আবদুল কাদের বলেন, ‘আদর্শ নগরের একটি টিনশেড বাড়িতে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন ফজল শেখ। ওই বাসাতেই হত্যাকাণ্ড ঘটে। পাশেই ভাড়া বাসায় থাকতেন চন্দ্রা বানু। তার কাছ থেকে ঘরের চাবি নিয়ে তালা খুলে বিছানার ওপর কাথা মোড়ানো ফজল মিয়ার রক্তাক্ত মৃতদেহ পাওয়া যায়। শিল-পাটার আঘাতে তার মাথা পুরো থেতলে গেছে। পুরুষাঙ্গও বিচ্ছিন্ন অবস্থায় চন্দ্রা বানুর কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে।’

চন্দ্রা বানুকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা আবদুল কাদের। তিনি জানান, নিহত ফজল শেখ রিকশা চালিয়ে সংসার চালাতেন।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল জানান, ঘটনার সময় ফজল শেখের দ্বিতীয় স্ত্রী রুমি বেড়াতে গিয়েছিলেন। ওই খবরেই প্রথম স্ত্রী চন্দ্রা বানু বাসায় গিয়ে স্বামীর সঙ্গে রাতভর ঝগড়া করেন।

তিনি আরও জানান, চন্দ্রা বানুর ভাষ্য অনুযায়ী, প্রথম সংসারে তিনটি সন্তান থাকলেও ফজল শেখ তার কোনো খোঁজ নিতেন না। দুই স্ত্রী রেখে তিনি আরও একটি বিয়ে করেন। এমন খবরে তাদের পারিবারিক কলহ ভয়াবহ রূপ নেয়। এর জেরেই চন্দ্রা বানু ক্ষিপ্ত তার স্বামীকে হত্যা করেন।

ওসি বলেন, ‘চন্দ্রা বানুই যে তার স্বামীকে খুন করেছেন তা নানা আলামতে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ ছাড়া অন্যদের বক্তব্য যাচাই করা হচ্ছে। দ্বিতীয় স্ত্রীকে খবর দেওয়া হয়েছে। ফজল শেখ তৃতীয় বিয়ে করেছিলেন কিনা-তা জানার চেষ্টা চলছে।’
সুত্র- সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24