মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন

স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৯ জুন, ২০১৯
  • ১৭৪ Time View
রত্না। কোন মেয়ের নাম নয়।স্রোতস্বিনী মায়াবী জলে বাড়ীর পাশে বয়ে যাওয়া নদী। শৈশব, কৈশোরের  সাথী আমার । এই ঈদে হারিয়ে যাওয়া আপন জনের ভিড়ে  রত্নাকে ও  খুব মনে পড়ল। 
 
তপ্ত দুপুরে যার জল শীতল পরশ দিতো। মায়াবী জল। রূপে টলমল। স্রোতে গাইতো গান। ঝাঁকে ঝাঁকে মাছ  উপহার দিয়ে রসনায় দিতো সুস্বাদু ঘ্রাণ।বিনা মূল্যে পুষ্টি।
যৌবনে রত্না নাম কে প্রথম ভাললাগা  হিসেবে  লালন করেছি অজান্তে ।এই নামে কারো  নাম শুনলে  ভাবতাম সে মায়াবতী  কবিতার জল।  কেন এমন হতো ? আজো জানিনা।
 
দূরন্ত শৈশব কাটিয়েছি রত্নার  বুকে  মমতায়।সাঁতার কেটে।পাড় থেকে পিছলে ট্রেনের মতো পড়তাম । জড়াইয়া ধরতো রত্না । এক জোড়া মায়াবী কবুতরের শান্তিতে। চুলে লাগা কাঁদা ধুয়ে দিতো। ডুব দিয়ে উঠলে হরেক রকম ফিতা এঁকে দিতো  চুলে। গরু কে ফেরি বানিয়ে তার জলে পার হতাম। এপার থেকে ওপার।
 
রত্নায় গুণটানা নৌকায় মানুষ কে টানতো মানুষ নৌকার নামে।পেটের দায়ে। রঙ্গিন পালের নৌকা দেখে দৌড়ে যেতাম। ফুরুত্তার পাল। ইঞ্জিন ছাড়া নৌকায় দেখতাম মাঝির  বাড়ি ফেরার আনন্দ। হুক্কার টানের সুখ। মাল বোঝাই বেশী হলে গর্ভবতী গাভীর মতো ধীরে ধীরে চলতো নৌকা। বলতাম পেটলা নৌকা। পেট মোটা নাও।
 
নব বধুর সাজানো নৌকা দেখলে মাথা নিচু করে দল বেধে চাইতাম। কন্যা বেটিরে নি দেখা যায়। চিৎকার দিতাম এই কন্যা বেটির নাও যায়। বাইরে থাকা মুখে সরমের রুমাল দেওয়া বর ও বরযাত্রীরা আমাদের দেখে আনন্দ পেতো। জোরে ফুটাইতো বিয়ার বঙ্গুলা। 
 
হেমন্তে রত্নার পাড়ে জমা ধুলো দিয়ে ব্যবসা করতাম। মুরতার পাতার টাকায়। কলাগাছের খুলের
নৌকার সওদাগর। খেলার সাথীদের সাথে বনিবনা না হলে চোখে ধুলো দিয়ে ঝগড়া। কান্না কাটি। মা দের দৌড় পড়তো মিমাংশায়। 
 
সেই নৌকা গুলো  আজ নেই। সেই মাঝিরা নেই। রত্নায় সেই আনন্দ নেই । যাত্রীরা নেই । রত্নার দুই পাড়ে পাকা
রাস্তা। গাড়ী চলে । লাইটেস,সিএনজি। 
 
 
রত্নার দুঃখ আছে বুঝতামনা তখন । রত্নার বিরহ বুঝতাম না তখন । প্রতিটি মানুষের মধ্যে স্মৃতির রত্না বহমান ভাবতে পারতামনা। আজ সেটা বুঝি। অবসরে রত্না কে খুঁজি। আমার শান্তির রত্না।আমার প্রথম ভাল লাগার অনুভব রত্না।
 
বন্যায়  রত্নায়  মেটো রঙের জল দেখতাম।কূল ভেঙে পড়তো তার জলে। বুকের দুধ পান করা শিশুকে ছুড়ে ফেলার মতো। রত্নার রাগ,অভিমানে আহত হতাম। 
 
কবে, কে  এই শ্যামলা ষোড়শী নদী কে রত্না নাম দিয়েছিল জানিনে।তবে যে নাম দিয়েছিল সে প্রেমিক ছিল নিশ্চিত। তাঁর ছবি দেখতে ইচ্ছে করে। কে দেখাবে?  কে বলবে ইতিহাস? মাথার চুলে জট ভরা রত্না এখন স্মৃতি হারা বার্ধক্যে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা  লড়ছে । তার কেউ নেই! কিছু নেই। পুঁজিবাদে চুষে খাওয়া রক্তহীন শ্রমিক।সংসারে গিলে খাওয়া সর্বহারা নারী রত্না।নাম রাখা প্রেমিকটির মতো রত্না একে বারে হারিয়ে যাওয়ার সময় আসন্ন। 
 
ঈদে দেখলাম  রত্না ভাল নেই। জল নেই। রূপ নেই।অধিক সন্তানের পুষ্টিহীন গ্রাম্য নারীর মতো। ক্লান্ত। বিষন্ন। গায়ে অনাদরের মাটির চাদরে ভীষন জ্বর আটকানোর ব্যর্থ চেষ্টায় পতিত। শ্যামলা চোখে  কাজলের আকৃষ্ট করা রত্না জ্বলন্ত  অতীত।
 
ঐ পারে  বটের তলে সন্ধ্যায়  বাউলের আসর পাতা লোকগুলো সব হারিয়ে গেছে। কোথায় হারিয়ে গেছে ? কোন কষ্টে? কেউ জানেনা। রত্নার জেগে উঠা চর নিয়ে লাটালাটি করা যুবক গুলো অনেকে আজ নেই। অথবা বার্ধক্যে ঘরের কোনে অবহেলার অন্ধকারে। সন্তানের বোঝা। ছেলের বউয়ের পীড়ায় বিদায়ের প্রহর গুণছেন! 
 
বিবাদে ভরসার লাটির ভাইয়েরা সংসারে জ্বলে পুড়ে নিঃস্ব,নিস্তেজ এক একটি বিবর্ণ লাটি। ভাইয়ে ভাইয়ে  নিজেদের প্রতিপক্ষ! 
 
কৈশোরের বন্ধুরা তামাটে,গালভাঙা,ভগ্ন স্বাস্থ্যে একেকজন ক্ষেতের কাটা অসহায় আল। সংসার,স্ত্রী, সন্তানের ভরণ পোষণের কঠিন বাস্তবতায় বন্যায় ভাসমান শুকনো কচুরিপানা !হায় জীবন। নিষ্ঠুর জীবন।কান্না করে লাভ নেই।  
 
একদিন রত্নার অস্থিত্ব কেউ মনে রাখবেনা।অনাগত প্রজন্ম রত্নার বুকে বাঁধবে অর্জিত ভূমি ভেবে নতুন নতুন ঘর।নতুন নতুন স্বপ্নে ভরে উঠবে বেদনার পৃথিবী। জীবনতো রত্নার মতোই !  
লেখক: প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ,শাহজালাল মহাবিদ্যালয় ,জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ২০১৭। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24