মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

১২ লাখ টাকার বিনিময়ে রাজনের খুনিদের রক্ষায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে চলছে তোলপাড়-এস.আই ক্লোজ আরেক খুনি গ্রেফতার

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০১৫
  • ৬৭ Time View

সংগ্রাম সিংহ সিলেট থেকে- শিশু শেখ সামিউল আলম রাজনের হত্যাকারীদের গ্রেফতার নয়, তাদের বাঁচাতেই ছিল পুলিশের যত ব্যস্ততা। তথ্য গোপন ও খুনিদের পালানোর সুযোগও করে দেয় তারাই। এমনকি মামলা যেন আদালতে না টিকে সেজন্য নানা কৌশল অবলম্বনেও চেষ্টার কমতি ছিল না পুলিশের। এসব করা হয়েছিল ১২ লাখ টাকার (ঘুষ) চুক্তিতে। যার মধ্যে ৬ লাখ টাকা এরই মধ্যে পুলিশ নিয়েছে। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে ও যুগান্তরের অনুসন্ধানে এ তথ্য উঠে এসেছে।
মামলার এজাহার নিয়ে যুগান্তর কথা বলেছে আইনজ্ঞদের সঙ্গেও। এজাহার বিশ্লেষণ করে তারা বলছেন, এজাহারে কৌশলে রাজনকেই অপরাধী অর্থাৎ ‘চোর’ বানানো হয়েছে। রাজনের বয়স মাত্র ১৩ বছর হলেও ‘শিশু’ না লিখে লেখা হয়েছে ‘পুরুষ’।
যুগান্তরের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ঘটনার দিনই রাজনের বাবা শেখ আজিজুর রহমান আলম লিখিত অভিযোগ দেন থানায়। কিন্তু তা গ্রহণ করেনি পুলিশ। বরং তারা নিজেরা এজাহার তৈরি করে খুনিদের বক্তব্যের ওপর ভিত্তি করে! তবে নিজেদের করা এজাহারে মামলা রেকর্ডের পরদিন রাজনের বাবার লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করে পুলিশ। তবে তা প্রাধান্য দেয়নি মোটেও। পিতার এজাহার এড়িয়ে ‘চুরি’ প্রসঙ্গ উল্লেখ করা হয় আদালতে দেয়া প্রতিবেদনেও। তাতে খুনিদের দাবির সঙ্গে সম্পর্কিত ‘চোর ও চুরি’ শব্দ প্রয়োগে অতি উৎসাহী দেখা গেছে পুলিশকে। এমনকি ছেলে খুনের এজাহার নিয়ে গেলে ‘চোরের বাপ’ বলে থানা থেকে রাজনের বাবা আলমকে তাড়িয়েও দেয় পুলিশ।
আইনজ্ঞরা বলছেন, শিশু হওয়া সত্ত্বেও ভিকটিমকে শিশু না বলা, পিতার এজাহার না নিয়ে খুনিদের বক্তব্য প্রাধান্য দিয়ে এজাহার করা, ভিকটিমকে ‘চোর’ ও হতভাগা পিতাকে ‘চোরের বাপ’ আখ্যা দেয়া, পিতার অভিযোগ গ্রহণের পরও খুনিদের ‘প্রভাবিত’ এজাহারের ভাষা প্রয়োগ অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। পুলিশের উদ্দেশ্য তাদের কৃতকর্মেই পরিষ্কার।
এসব অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এসএম রুকন উদ্দিনকে। অন্য দুই সদস্য হচ্ছেন- ট্রাফিক বিভাগের ডিসি মুশফেকুর রহমান ও এডিসি দক্ষিণ জিদান আল মুসাকে। এর আগে এ মামলার অগ্রগতি মনিটরিংয়ে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার রহমত উল্লাহকে প্রধান করে আরও পাঁচ সদস্যের একটি মনিটরিং ইউনিট গঠন করা হয়।
আইন বিশেষজ্ঞরা বলেন, পুলিশের অভিযোগ পুলিশ দিয়ে তদন্ত না করলেই ভালো। এমন স্পর্শকাতর অভিযোগ সরকারের অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে টিম গঠন করে তদন্ত করা উচিত। পুলিশের লোক হয়ে এমন অপকর্ম করে থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও মামলা হওয়া উচিত। দাঁড় করানো উচিত আইনের কাঠগড়ায়।
সিলেটের জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদীন যুগান্তরকে জানান, খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মামলাটির খোঁজখবর নিচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে দফায় দফায় আপডেট জানানো হচ্ছে। একটি জরুরি প্রতিবেদনও পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, আমি রাজনের পিতা-মাতাকে দেখতে গিয়েছিলাম। নগদ ২০ হাজার টাকা দিয়ে এসেছি। আজ মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি রাজনের পরিবারকে দেখতে যাবেন।
নানা অভিযোগ ওঠার পর পুলিশের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় বইছে। সিলেটের বিশিষ্ট আইনজীবী ও প্রাক্তন পিপি এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন বলেন, ঘটনার শুরু থেকে এ পর্যন্ত পুলিশের কর্মকাণ্ডে খুনিদের রক্ষার প্রবণতাই বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে। ন্যায়বিচারের জন্য এটা উদ্বেগজনক। মনে রাখতে হবে পুলিশ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী ড. দিলীপ কুমার দাশ চৌধুরী বলেন, শিশু হত্যার মতো স্পর্শকাতর ঘটনার এজাহারে পুলিশই যদি সত্য গোপন করে তা গর্হিত অপরাধ। এমন ঘটনা মানবতা ও সভ্যতার জন্য হুমকি।
টাকা নেন তদন্ত কর্মকর্তা ও এজাহার গ্রহণকারী : কুমারগাঁও এলাকায় অনুসন্ধানে গেলে স্থানীয় লোকজনের কাছে নানা অভিযোগ শোনা যায়। তবে ভিকটিমের পরিবার দরিদ্র ও খুনিরা প্রভাবশালী হওয়ায় অভিযোগকারীরা আতংকে নাম প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানান। তারা বলেন, রাজনকে হত্যার পর দ্রুত দুটি সিএনজি বিক্রি করে আসামিরা। এ থেকে পাওয়া ৬ লাখ টাকা তুলে দেয় পুলিশের হাতে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন ও রাজন হত্যা মামলার এজাহার গ্রহণকারী এসআই আমিনুল এ টাকা নেন। এ কারণেই প্রচার করা হয় ‘জনতার পিটুনিতে চোর মরেছে’ বলে।
স্থানীয়রা আরও বলেন, টাকা নেয়ার কারণে খুনিদের পালানোর সুযোগ করে দেয় পুলিশ। ঘটনার দু’দিন পর নির্বিঘ্নে সিলেট থেকে বিমানে সৌদি চলে যান ঘাতক কামরুল। অন্য আসামিরাও বিভিন্ন স্থানে সটকে পড়ে। এজাহার হয় খুনিদের বক্তব্যের ওপর ভিত্তি করে। কিন্তু জনতার হাতে মুহিতের ধরা পড়া এবং ফেসবুক-ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও দেখে তোলপাড় শুরু হলে টনক নড়ে এসএমপির বড় কর্তাদের। আসামি গ্রেফতারে শুরু হয় দৌড়ঝাঁপ। জারি করা হয় সতর্কতা।
রিমান্ডে মুহিতের চাঞ্চল্যকর তথ্য : ৫ দিনের রিমান্ড চলছে গ্রেফতার আসামি মুহিত ও আবলুসের। জিজ্ঞাসাবাদে মুহিত আলম হত্যার দায় স্বীকার করেছেন। জালালাবাদ থানার ওসি আখতার হোসেন জানান, মুহিত হত্যায় জড়িত ৫ জনের নাম জানিয়েছে। এরা হচ্ছে- মুহিত নিজে, তার ভাই কামরুল ইসলাম, শামীম আহমদ, আলী ও চৌকিদার ময়না। মুহিত নির্যাতন ও হত্যায় জড়িত থাকা শামীম, আলী ও ময়নার অবস্থান বিষয়েও তথ্য দিয়েছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে মুহিত দাবি করে, হত্যাকাণ্ডের স্থলে রাখা একটি ভ্যান গাড়িতে হাত দেয়ায় তাকে চোর সন্দেহে আটক করে মারধর করা হয়।
সৌদিতে আটক কামরুলের আকুতি : এখন চোখে জল আর ফাঁসির ভয় রাজন হত্যার মূলহোতা কামরুলের। গ্রেফতারের পর এনটিভির সৌদি প্রতিনিধি তার সঙ্গে কথা বলেন। সে ভিডিওতে দেখা যায়, একটি গাড়িতে ওই সংবাদকর্মী কামরুলের কাছে ঘটনার বিবরণ জানতে চাচ্ছেন। একসময় তিনি বলেন, আপনি যা করেছেন, জানেন এতে আপনার ফাঁসি হবে। তখন সংবাদকর্মীকে কামরুল অনুরোধ করেন, ‘ভাই যেবাটে আমার ফাঁসি অয় না, অউবাটে সব কিছু খররেবা’ (যা করলে আমার ফাঁসি না হয়, সেভাবেই সবকিছু করুন)। এরপরই কান্নায় ভেঙে পড়ে কামরুল। বলে, ‘অনে আমি কিতা খরতাম, আমারে মাফ খরি দেলাউরেবা’ (এখন আমি কী করব, আমাকে মাফ করে দিন)। এ সময় গাড়িতে থাকা অপর ব্যক্তি ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, তোকে কে মাফ করবে? তুই একটা বাচ্চা ছেলেকে খুন করেছিস।
রাজন হত্যার ভিডিওচিত্রে কামরুলকেই নির্যাতকের ভূমিকায় দেখা গেছে। সে শিশু রাজনকে উদ্দেশ করে বলেছিল, ‘কোন সিস্টমে তরে মারতাম খ, আমরার হখল সিস্টম জানা আছে’ (তোকে কীভাবে মারব বল, আমাদের সব পদ্ধতি জানা আছে)।
রাজনের বাবা হাসপাতালে : রাজনের বিচার চাইতে এসে জ্ঞান হারালেন তার বাবা আজিজুর রহমান আলম। অসুস্থ অবস্থায় তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সোয়া ২টার দিকে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের ২য় তলার ১৬নং ওয়ার্ডের ১১নং বেডে চিকিৎসাধীন। রাজনের খালাতো ভাই শাহীন আহমদ জানান, রাজন হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে টুকেরবাজারে আয়োজিত সমাবেশে যোগ দিতে আসেন আজিজুর রহমান। এসময় হঠাৎ করে বুকে ব্যথা অনুভব করেন তিনি। একপর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।
স্বামীর বিচার চান লিপি : রাজন হত্যার ঘটনায় আটক মুহিত আলমের স্ত্রী লিপি বেগমও বিচার চেয়েছেন নির্মম এ খুনের ঘটনার। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানিয়েছেন খুনের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তার স্বামী জড়িত থাকলে তিনিও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান। গত সোমবার রাতে জালালাবাদ থানা পুলিশ মুহিতের স্ত্রী লিপিকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জালালাবাদ থানার ওসি আখতার হোসেন জানান, জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে লিপি অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়।
দুই প্রত্যক্ষদর্শীর জবানবন্দি রেকর্ড : শিশু রাজন হত্যার ঘটনাস্থল কুমারগাঁওয়ের দুই ব্যক্তিকে প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করে গতকাল আদালতে হাজির করে পুলিশ। তারা হচ্ছেন ফিরোজ আলী ও আসগর আলী। হাজির করার পর তারা মহানগর দ্বিতীয় আদালতে প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে জবানবন্দি দেন। বিচারক ফারহানা ইয়াসমিন তাদের বক্তব্য রেকর্ড করেন। রাজন হত্যা মনিটরিং ইউনিটের প্রধান রহমত উল্লাহ এই তথ্য দেন।
রাজনের পরিবারের পাশে ইতালির জালালাবাদ সংগঠন : ইতালি থেকে জমির হোসেন জানান, রাজনের পরিবারের সব খরচ বহন করবে ইতালির জালালাবাদ কল্যাণ সংঘ (বৃহত্তর সিলেট)। এ কথা জানিয়ে এরই মধ্যে সংগঠনের সভাপতি ওয়ালী উল্লাহ শামীম তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।
ফোন ধরেননি পুলিশের দুই কর্মকর্তা : ঘুষ গ্রহণের অভিযোগের ব্যাপারে মামলার এজহারকারী এসআই আমিনুল ও তদন্তকারী আলমগীর হোসেনকে রাত পৌনে ১০টা কয়েকবার ফোন করা হয়। কিন্তু তারা ফোন ধরেননি। এদিকে শেষ কবরে জানা গেছে এস.আই আমিনুল কে ক্লোজ করা হয়েছে। আর চৌকিদার ময়নাকে গ্রেফতার করা হয়। (খবর যুগান্তরের)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24