শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

২০ বছরেও বকেয়া বেতন-ভাতা মেলেনি এক কর্মকর্তার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬
  • ২০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: চাকরির টাইম স্কেল পেতে ১৯৯৬ সালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে সার্ভিস বই পাঠানো হয়েছিল। অধিদপ্তর থেকে সেটি হারিয়ে যাওয়ায় নতুন আরেকটি সার্ভিস বই তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর গত ২০ বছর সার্ভিস বই ও বকেয়া বেতন-ভাতা পেতে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কার্যালয়ে ধরনা দিচ্ছেন এক চিকিৎসা কর্মকর্তা। কিন্তু এখনো এর কোনো সমাধান হয়নি।
ওই কর্মকর্তার নাম এ কে এম মজিবর রহমান। তিনি বর্তমানে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়া উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে উপসহকারী কমিউনিটি চিকিৎসা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন।
গত বছরের ২২ জানুয়ারি স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর পাঠানো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একটি চিঠি সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৫ সালের আগস্ট থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত ১৭ বছর ১০ মাসের বকেয়া বেতন-ভাতা বাবদ মজিবর রহমানের পাওনা ২২ লাখ ৮ হাজার ৮৬৭ টাকা। ১৯৯৭, ২০০৫ ও ২০০৯ সালের জাতীয় বেতন স্কেল এবং দুটি টাইম স্কেল ও একটি সিলেকশন গ্রেড স্কেলের বকেয়া বেতন-ভাতার ওই পরিমাণ টাকা তাঁর পাওনা রয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিভিন্ন চিঠি সূত্রে জানা যায়, ২০০৭ সালের ২৮ আগস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ভোলার সিভিল সার্জনকে নতুন সার্ভিস বই তৈরি করতে নির্দেশ দেয়। পরের বছর ১২ নভেম্বর মজিবর রহমানের সার্ভিস বই তৈরি হয়। তখন তিনি ভোলার লালমোহন উপজেলায় কর্মরত ছিলেন। ২০১৩ সালের জুলাইয়ে তিনি নড়াইলের লোহাগড়ায় বদলি হন। ২০১৪ সালের ১৪ আগস্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. শাহীদুল ইসলাম ওই বকেয়ার বাজেট বরাদ্দ চেয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে চিঠি দেন। এর ভিত্তিতে ওই বাজেট বরাদ্দের জন্য ২০১৫ সালের ২২ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি দেওয়া হয়। অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়ের চিঠি চালাচালিতে বিষয়টি এখনো আটকে আছে।
মজিবর রহমান অভিযোগ করেন, ‘অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়ে সব কাগজপত্র জমা দিয়েছি। সার্ভিস বই পেতে অফিসে অফিসে ধরনা দিয়েছি। ওই বই তৈরি হওয়ার পর থেকে বকেয়া বেতন-ভাতার জন্য সংশ্লিষ্ট সব কার্যালয়ে বারবার ধরনা দিচ্ছি। কিন্তু কোনো কূলকিনারা পাচ্ছি না। জানি না আর কত চিঠি চালাচালি হবে।’
লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার বলেন, ‘অধিদপ্তর বা মন্ত্রণালয় থেকে বাজেট বরাদ্দ পেলেই আমরা উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসে দাখিল করে ওই বকেয়া উত্তোলনের ব্যবস্থা করতে পারব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24