বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৩৮ অপরাহ্ন

৬৮ বছরের যন্ত্রনা শেষ হচ্ছে আজ রাতেই, চলছে চারিদিকে উৎসব

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০১৫
  • ৪৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম :: বাংলাদেশ-ভারত স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। বৃহস্পতিবার ঢাকায় ভূমি জরিপ অধিদফতরে সর্বশেষ ৩০টি গুচ্ছ মানচিত্র (স্ট্রিপ ম্যাপ) সইয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে স্থলসীমানা চিহ্নিত করার কাজ প্রায় সমাপ্ত হল। যদিও মুহুরীর চরে দুই কিলোমিটার সীমান্ত এখনও চিহ্নিত করা বাকি। ভারত সেখানে পুনরায় জরিপ চালানোর দাবি করায় তা বাদ রেখেই সীমান্ত চিহ্নিত করার কাজ আপাতত শেষ হয়েছে। ২০১৬ সালের ৩০ জুনের মধ্যেই নতুন করে চিহ্নিত করা সীমান্তে সীমানা পিলার বসানো হবে। এদিকে আজ মধ্যরাতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ছিটমহল বিনিময় কার্যকর হয়ে যাবে। এ নিয়ে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস চারদিকে। ছিটমহলে ৬৮ বছরের অবরুদ্ধ জীবনের অবসান ঘটতে যাচ্ছে আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ৩১ জুলাই মধ্যরাতের পর ছিটমহল ও অপদখলীয় ভূমি বিনিময় কার্যকর হয়ে যাবে। স্থানীয় প্রশাসন পহেলা আগস্ট সকালে জাতীয় পতাকা ওড়াবেন।

ঘড়ির কাঁটায় আজ রাত বারটা এক মিনিট বাজার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ ও ভারতে আর কোনো ছিটমহল থাকবে না। বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অবস্থিত ভারতীয় ছিটমহলে উড়বে বাংলাদেশের পতাকা। মূল ভূখণ্ডে মিশে যাবে উভয় দেশের ১৬২ ছিটমহল। এসব বিচ্ছিন্ন জনপদের মানুষ পাবে মুক্তির স্বাদ। ছিটমহল বিনিময় উদযাপনে বাংলাদেশ ও ভারতের সরকারি কোনো কর্মসূচি নেই। তবে লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারীর বিভিন্ন ছিটমহল থেকে আমাদের সংবাদদাতারা জানিয়েছেন, ছিটমহলের মানুষ বহুল প্রতীক্ষিত এই দিন উদযাপনে গ্রহণ করেছে নানা কর্মসূচি। এসব কর্মসূচির মধ্যে আছে আজ মধ্যরাতে ছিটমহলের বাড়িতে বাড়িতে ৬৮টি করে মোমবাতি ও প্রদীপ প্রজ্বলন, মশাল ও বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা হাতে আনন্দ মিছিল, মিষ্টি বিতরণ, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রার্থনা, হাডুডু, লাঠিখেলাসহ গ্রামীণ খেলাধুলা, নৌকাবাইচ, ঘোড়দৌড়, জারিসারি বাউলসহ নাচ- গান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, যাত্রাপালা, বাড়িতে বাড়িতে বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা, আলোকসজ্জা, রাত ১২টা এক মিনিটে ৬৮ বার তোপধ্বনি।
দুই দেশের সরকার কোন কোন ভূখণ্ড কোন দেশের অধীনে যাচ্ছে তার উল্লেখপূর্বক পৃথক গেজেট নোটিশ জারি করবে। সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে আনুষ্ঠানিকতার অংশ হিসেবে ঢাকায় বাংলাদেশ ও ভারত ৩০টি গুচ্ছ মানচিত্র (স্ট্রিপ ম্যাপ) সই করেছে। দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী বাংলাদেশের পক্ষে এবং ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ ভারতের পক্ষে ছোট ছোট এসব নকশা মানচিত্রে সই করেছেন। ইতিপূর্বেও এমন ছোট মানচিত্রে সই করেছেন দুই দেশের ‘সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী’ (প্ল্যানিপটিমিয়ারি) দুই কূটনীতিক। এ নিয়ে সর্বমোট এগারশ’র বেশি স্ট্রিপ মানচিত্রে সই করেন তারা।
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ১৯৭৪ সালে সীমান্ত চুক্তি সই হয় যা ‘মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি’ নামে পরিচিত। তার সঙ্গে ২০১১ সালে আরও একটি প্রটোকল সই হয়। ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার শেষ পর্যন্ত সর্বসম্মতভাবে সংবিধান সংশোধনী বিল পার্লামেন্টে পাস করাতে সমর্থ হয়। ফলে সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের পথ উন্মুক্ত হয়।

সীমান্ত চুক্তির অধীনে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থাকা ভারতের ১১১টি ছিটমহল বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ডে মিশে যাবে। লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারী জেলায় এসব ছিটমহল অবস্থিত। অপরদিকে ভারতের ভূখণ্ডে অবস্থিত বাংলাদেশের ছিটমহলের সংখ্যা ৫১টি। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কুচবিহার জেলায় এসব ছিটমহল অবস্থিত। এসব ছিটমহল ভারতের মূল ভূখণ্ডে মিশে যাবে। বাংলাদেশ যেসব ছিটমহল পাবে সেখানে জমির পরিমাণ প্রায় ১৭ হাজার একর এবং ভারত যেসব ছিটমহল পাবে সেখানে জমির পরিমাণ ১০ হাজার একর। ছিটমহলের বাসিন্দার যে কোনো দেশের নাগরিকই ইচ্ছা করলে হতে পারে এবং সেই মর্মে ইতিমধ্যেই তাদের পছন্দ জানিয়েছেন জরিপকারীর কাছে। ছিটমহল ছাড়াও সীমান্তবর্তী এলাকায় অনেক ভূখণ্ড বাংলাদেশ ও ভারতে ঢুকে পড়েছে। এগুলোকে অপদখলীয় বা বিরোধপূর্ণ ভূমি বলা হয়। দু’দেশের মধ্যে প্রায় পাঁচ হাজার একরের মতো অপদখলীয় ভূমি রয়েছে। এসব ভূমি যে দেশের দখলে যা রয়েছে সেই মোতাবেক হস্তান্তর হবে।
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে চার হাজার কিলোমিটারের বেশি স্থলসীমান্ত থাকলেও অচিহ্নিত স্থলসীমান্ত রয়েছে সাড়ে ছয় কিলোমিটার। উত্তরাঞ্চলের দইখাদা, পূর্বাঞ্চলের লাঠিটিলা এবং ফেনীর মুহুরীর চরে এই সাড়ে ছয় কিলোমিটার অচিহ্নিত সীমান্তে অবস্থান। সীমান্ত চুক্তির আওতায় এসব সীমান্ত চিহ্নিত করেছেন দু’দেশের যৌথ জরিপ কর্মকর্তারা। কিন্তু এখন ভারত জানিয়েছে, মুহুরীর চরে যে সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে, তাতে তাদের আপত্তি রয়েছে। চুক্তি মোতাবেক, মুহুরী নদীর মধ্যসে াত হবে দুই দেশের সীমানা রেখা। কিন্তু ভারতের আপত্তির কারণে মুহুরীর চরে সীমান্ত চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। এই সীমানা চিহ্নিত না হলে সীমান্ত চুক্তির পুরোপুরি বাস্তবায়ন হবে না।

ফিরে দেখা : ১৯৪৭ সালে ভারতবর্ষ ভেঙে ভারত ও পাকিস্তান নামক দুটি রাষ্ট্র জন্মের সময় সীমারেখা নির্ধারণে লর্ড মাউন্ট ব্যাটনের পরিকল্পনা অনুযায়ী ব্রিটিশ আইনজীবী সিরিল রেডক্লিফকে প্রধান করে গঠন করা হয় সীমানা নির্ধারণ কমিশন। ওই বছরের ৮ জুলাই লন্ডন থেকে ভারতে আসেন রেডক্লিফ। এর ক’দিন পর ১৩ আগস্ট তিনি এ সংক্রান্ত চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেন। ১৬ আগস্ট জনসমক্ষে তা প্রকাশ করা হয়। অভিযোগ আছে, গভীর ভাবনা-চিন্তা ছাড়াই জমিদার, নবাব, স্থানীয় রাজনীতিবিদ ও চা-বাগানের মালিক দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সময় না নিয়েই সীমানা মানচিত্র তৈরি করা হয়।
১৪ আগস্ট পাকিস্তান ও ১৫ আগস্ট ভারত স্বাধীনতা পেলেও অনেক পরে স্বতন্ত্র রাজ্য কুচবিহারের মহারাজা নারায়ণ ভুপ বাহাদুর পশ্চিমবঙ্গের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী বিধান চন্দ্র রায়ের কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় ভারতীয় ইউনিয়নে যুক্ত হন। ভারত ও পাকিস্তান অংশে বিভিন্ন মৌজায় রাজার খাস খতিয়ানভুক্ত জমি ভারতের অধীনে চলে গেলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে লালমনিরহাটে ৫৯টি, পঞ্চগড়ে ৩৬টি, কুড়িগ্রামে ১২টি, নীলফামারীতে ৪টি মোট ১১১টি ছিটমহল ভারতের অংশ হয়ে যায়। যার আয়তন ১৭১৫৮ দশমিক ১৩ একর। সর্বশেষ ৬-১৬ জুলাই যৌথ সমীক্ষানুযায়ী এখানের ৪১ হাজার ৪৪৯ জন নাগরিকের মধ্যে ঠিকানা পরিবর্তন করে ভারতের মূলে যাওয়ার আবেদন করেছেন ৯৭৯ জন। তাদের বিশেষ নিরাপত্তায় ১ আগস্ট থেকে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত বুড়িমারী, হলদিবাড়ী ও সাহেবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাঠিয়ে দেয়া হবে।
অন্যদিকে ময়মনসিংহের কাশিমবাজার স্টেটের মহারাজা শ্রী চন্দ্র নন্দী, কুড়িগ্রামের পাঙ্গারাজা শচীন চন্দ কোঙ্গার, দিনাজপুরের মহারাজা গিরীজা প্রসাদ, রংপুরের রাজা জগৎ ভুপেন্দ নারায়ণ ও নীলফামারীর মহারানী বৃন্দা রানী পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত হওয়ায় ভারতীয় ভূখণ্ডের অভ্যন্তরে বিভিন্ন মৌজায় অবস্থিত নিজস্ব খাস খতিয়ানভুক্ত জমিগুলো তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের অংশ হয়ে যায়। এর সংখ্যা ৫১টি। এগুলো ভারতের কুচবিহার জেলার দিনহাটা ও তুফানগঞ্জ মহকুমার অভ্যন্তরে অবস্থিত। যার আয়তন ৭১১০ দশমিক ২ একর। জমিগুলো পৃথক মৌজায়। সেই মৌজার ভেতরে এক বা একাধিক এলাকার ছোট ছোট ছিট রয়েছে। সর্বশেষ যৌথ সমীক্ষানুযায়ী এর জনসংখ্যা ১৪ হাজার ২১৫ জনের কেউই ঠিকানা পরিবর্তনে রাজি হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24