বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৪১ অপরাহ্ন

আ’লীগ নেতাদের কারনে আটকে আছে জেলা ছাত্রলীগের কমিটি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৯ মার্চ, ২০১৭
  • ৭২ Time View

জগন্নাথপুর টিুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::আ.লীগ নেতাদের অনড় অবস্থানের আটকে আছে জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি। আ.লীগের বিবদমান গ্রুপগুলো পদ বাগিয়ে নেয়ার চেষ্টার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তবে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেছেন, শীঘ্রই নতুন কমিটি দেয়া হবে, আর তাতে আ.লীগ নেতাদের মতামত নেয়া হবে। এদিকে পুরনো তারিখ দেখিয়ে দুটি উপজেলায় ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জ জেলা আ.লীগ বর্তমানে দু’টি বলয়ে বিভক্ত। এক বলয়ে আছেন প্রতিমন্ত্রী, এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক। এই বলয়ে জেলা শহরে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। অন্যদিকে আছেন জেলা আ.লীগের সভাপতি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়র। জেলা শহরে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট ও পৌর মেয়র আয়ূব বখ্ত জগলুল এই বলয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। কিন্তু ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে পদবী বাগিয়ে নিতে বলয় ‘অকার্যকর’ হয়ে পড়েছে। প্রতিটি বলয় থেকে একাধিক প্রার্থী আছেন। একারণে নেতারাও পড়েছেন বিপাকে।
ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, প্রতিমন্ত্রী, এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক গ্রুপ থেকে সভাপতি প্রার্থী হচ্ছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক হাবিব আল হাসান তপু, সহ সম্পাদক নাজমুল হক কিরণ, দুর্যোগ ও ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক ইশতিয়াক আলম পিয়াল, শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের আহ্বায়ক নুর মোহাম্মদ স্বজন। এক বলয়ে একাধিক প্রার্থী নিয়ে নেতারা নিজেরাই বিপাকে আছেন। নেতাদের মন জয় করতে মরিয়া হয়ে এসব নেতা তদবির থেকে শুরু করে শো-ডাউনসহ নানা কর্মসূচি নিচ্ছেন তারা। এই গ্রুপ থেকে আ.লীগ নেতারা প্রার্থী চূড়ান্ত করতে পারেন নি বলে জানা গেছে।
জেলা আ.লীগের সভাপতি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়র বলয়ের অবস্থাও একই। তবে এ বলয়ের তিন নেতার তিন প্রার্থী। মতিউর রহমানের প্রার্থী এনায়েত রেজা জিসান, নূরুল হুদা মুকুটের প্রার্থী ছাত্রলীগ নেতা দিপঙ্কর কান্তি দে, আয়ূব বখ্ত জগলুলের প্রার্থী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আরিফ উল আলম। এই বলয়ের আরো প্রার্থীরা হচ্ছেন অভিজিৎ চৌধুরী টিংকু, মাসকাওয়াত জামান ইন্তি, ফয়সাল আহমদ।
এছাড়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বরুণ কান্তি, ছাত্রলীগ নেতা তানজিলুর রহমান, এনামুল হক চৌধুরী রুমেন সভাপতি প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় আছেন।
এমন অবস্থায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন আ.লীগের ৩-৪জন নেতাদের সঙ্গে পৃথকভাবে বৈঠক করেছেন। এসময় তিনি নেতাদের পছন্দের প্রার্থীর নাম জানতে চেয়েছেন। কিন্তু আশানুরূপ ফলাফল না পাওয়ায় পদপ্রত্যাশীদের জীবনবৃত্তান্ত নেয়ার পরও আটকে আছে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি।
এদিকে পুরাতন তারিখ দেখিয়ে দুটি উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এগুলো হল জামালগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটি। দুটি উপজেলায় কমিটি পাওয়ার দাবি করে, কিছু সংখ্যক নেতাকর্মী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা গেছে। কমিটি পাওয়া নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন জেলা কমিটি বিলুপ্ত হওয়ার আগেই তাদের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে।
জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ এ ব্যাপারে কথা বলতে নারাজ।
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দারুস সালাম শাকিল (সুনামগঞ্জ জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত) বলেন, কমিটি বিলুপ্ত হওয়ার পর পুরাতন তারিখ দেখিয়ে ইউনিট কমিটি দেয়া যায় না। এই কমিটিগুলো অবৈধ। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অবৈধ কমিটির দায়িত্ব নেবে না। আশা করছি এই সপ্তাহের মধ্যেই সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের গ্রহণযোগ্য নতুন কমিটি অনুমোদন করবে কেন্দ্র।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24