রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সামাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

আসুন মানবিক সহায়তা নিয়ে ফসলহারা মানুষের পাশে দাঁড়াই- অমিত দেব

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৪ মে, ২০১৭
  • ৮৮ Time View

মানুষ মানুষের জন্য-জীবন জীবনের জন্য একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না… কালজয়ী এই গানের সূরের মতো সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলের মানুষের জন্য প্রয়োজন এখন শুধু একটু সহানুভূতির সুর। হাওরপাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়ে একটু সহানুভূতি পারে দুর্যোগ ও দুভিক্ষ থেকে মানুষকে রক্ষা করতে। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক সামজিক,সাংস্কৃতিক সংগঠন,প্রবাসী ধনাঢ্য ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান হাওরবাসীর পাশে দাঁড়ানো এখন বড় প্রয়োজন।
অতীতের মতো ১৯৯৮ ও ২০০৪ সালের স্মরণকালের ভয়াবহবণ্যাসহ সকল দুর্যোগে সরকারের পাশাপাশি প্রবাসী বৃত্তবানরা এগিয়ে এসে সুনামগঞ্জের মানুষের পাশে যেভাবে দাঁড়িয়েছিলেন এবারও সরকারের পাশাপাশি প্রবাসীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ধনাঢ্য ব্যক্তিরা ফসল হারানো মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এই দুর্যোগ থেকে হাওরবাসীকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসতে হবে।
সুনামগঞ্জের ফসল হারানো মানুষের দুঃখ কষ্ট নিয়ে গনমাধ্যমে ধারাবাহিক চিত্র ফুটে উঠেছে। ইতিমধ্যে গনমাধ্যম কর্মীদের প্রচেষ্ঠায় দেশবাসী জেনে গেছেন বেড়িবাঁধ নির্মাণে পাউবো,ঠিকাদার ও পিআইসির সভাপতিদের দুর্নীতির কথা। ইতিমধ্যে পাউবোর তিন প্রকৌশলীকে বরখাস্ত করা হয়েছে। সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে হাওররক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির সাথে জড়িত পাউবো কর্মকর্তা, ঠিকাদার,পিআইসির সভাপতিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে সচেতনমহলের আশা। ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণে মানবসৃষ্ট দুর্নীতির পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে অকাল বন্যা,নদ নদীগুলো দীর্ঘদিন খনন না হওয়া সহ নানা কারন চিহিৃত করা হয়েছে। এখন জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরসহ ছোটবড় ১৫টি হাওরের মানুষের পাশাপাশি হাওর অঞ্চলের ফসল হারানো মানুষগুলো পড়েছেন খাদ্যঝুঁকিতে। বাংলাদেশ হাওর অ্যাডভোকেসি প্ল্যাটফর্মের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ি বোরো ধান তলিয়ে যাওয়ায় হাওরঅঞ্চলের ৯০ লাখ মানুষ খাদ্য ঝুঁকিতে পড়েছেন। তন্মেধ্যে ৫০ লাখ মানুষ তীব্র ও ৪০ লাখ মানুষ মাঝারি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। তাদের হিসেবে মতে ১০ লাখ পরিবার বেশি সংকটের মুখোমুখি।


সরকারি হিসেবে মতে জগন্নাথপুর উপজেলায় ৩৫ হাজার কৃষক পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী জগন্নাথপুরে এবার ২২হাজার হেক্টর আবাদ করা হয়। তন্মেধ্যে তলিয়ে গেছে ১৭ হাজার হেক্টর।যদিও এই তথ্য একে বারেই ভূল। কারণ জগন্নাথপুর উপজেলার ১ ভাগ কৃষকও তাদের ফলানো ধান এবার তুলতে পারেননি। মৎস্য বিভাগের হিসেব মতে জগন্নাথপুরে উৎপাদিত মাছের চাহিদা ৫,৩০৩.৯৭ মেট্রিকটন। মোট মাছ উৎপাদন ৫ হাজার ৪৯৩.৮৭ মেট্রিকটন। তন্মেধ্যে ৫ হাজার ২৫মেট্রিকটন মাছ মরে যাওয়ার তথ্য রয়েছে। সেই হিসেবে জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে এবার মাছের হাহাকার দেথা দিবে। ইতিমধ্যে হাওর ও হাট বাজারে মাছের বাজার মাছ শুন্য হয়ে পড়ার দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। মাছ বাজার দখল করে নিয়েছে ঝাটকা,ইলিশ ও পাংগাশে। গবাদিপশুর মৃত্যু,গোখাদ্য সংকট হাঁসের মরক দেখা দেয়ায় হাওর অঞ্চলে গরু ছাগল, হাঁস,মুরগী শুন্য হয়ে পড়েছে। পানির দামে গরু ছাগল বিক্রি করে কোন রকম টিকে থাকছেন মানুষজন। হাওরঅঞ্চলের একটি উপজেলা জগন্নাথপুরের এমন চিত্রের মতো প্রতিটি উপজেলায় রয়েছে দুর্গতি দুর্যোগ ও দুভিক্ষের পুর্বাবাস।
জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরপাড়ের বাসিন্দারা আফালের ঢেউয়ে ঘরবাড়ি ভাঙ্গনের কবলে পড়ে সংগ্রাম করছেন। হাওর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের নেতা শিক্ষক ফররুখ আহমদ বলেন, হাওরবাসী সব সময় প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকার লড়াই করে থাকেন। কিন্তুু এবার টিকে থাকা দুরহ হয়ে পড়েছে। কারণ ধান,মাছ,পবাদিপশু,ঘরবাড়ি সবকিছু হারিয়ে মহাবিপর্যয়ে পড়েছেন হাওর অঞ্চলের মানুষ। তিনি বলেন, হাওর অঞ্চলে এখন দরিদ্র হতদরিদ্র বলে কিছু নেই মধ্যবিত্তসহ সব শ্রেণীর মানুষ একাকার হয়ে পড়েছেন। তাঁর একথার সত্যতা পাওয়া যায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদের মধ্যে খাদ্য সহায়তা তালিকা প্রনয়নকারী জনপ্রতিনিধিদের নিকট থেকে। হাওর অঞ্চলের একাধিক জনপ্রতিনিধি এ প্রতিবেদককে জানান,যারা কোন দিন রিলিফের চাল কিংবা ত্রানের জন্য লাইনে যাননি সেই মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ ত্রানের জন্য নাম লিখাতে লোক লজ্জা ছেড়ে তাদের কাছে ধর্না দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে হাওরঅঞ্চলের মানুষ তীব্র খাদ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়েছেন। সরকারের একার পক্ষে বিশাল ক্ষতিগ্রস্থ জনগোষ্ঠীকে সহায়তা করা সম্ভব নয়। যদিও সরকারীভাবে ৩ লাখ মানুষকে ৩৮ কেজি করে চাল নগদ ১ হাজার টাকা,ওমমএসএর মাধ্যমে ১৫টাকা কেজি দরে চাল ফেয়ার পাইসে ১০টাকা কেজি দরে চাল বিতরণ কার্যক্রম চালু রয়েছে। বিজিএফ বিজিডিসহ নিয়মিত সহায়তাগুলো চালু রয়েছে। আবার এসব সহায়তার তালিকায় নাম উঠানো নিয়ে কতিপয় জনপ্রতিনিধিরা মেতে উঠেছেন নোংরা খেলায়। ত্রাণ বিতরণ ও মানবিক সহায়তা নিয়ে এসব নোংরা খেলা বন্ধ করতে হবে। তারপরও বিশাল জনগোষ্ঠী এসব সহায়তা ও সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। কিন্তুু দুঃখের বিষয় এখন পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক দল,হাওরঅঞ্চলের দুর্গত মানুষের পাশে কোন মানবিক সহায়তা নিয়ে দাঁড়াতে দেখা যায়নি।

রাজনৈতিক দলগুলো এসব ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদেরকে নিয়ে রাজনীতির খেলায় মেতে উঠেছে। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তি মহামান্য রাষ্টপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাওরর মানুষের দুর্গতি অনুধাবন করে হাওর অঞ্চল ঘুরে মানুষের পাশে দাঁড়ালেও স্থানীয় রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর মধ্যে উদাসীনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। জনগনের কল্যাণে যদি রাজনীতি হয় তাদের ফসল হারানো হাওরবাসীর পাশে মানবিক সহায়তায় ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে রাজনৈতিক,সামজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন,প্রবাসী,বৃত্তবান, ব্যবসায়ী, শিল্পপতি এনজিওদেরকে আর দেরি না করে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। তা না হলে দুর্যোগ মন্ত্রনালয়ের সচিবের কথার সত্যতার জন্য মৃত্যুর মিছিলের অপেক্ষা করতে হবে আমাদেরকে। তাই আসুন সবভেদাভেদ ভুলে সরকারের পাশাপাশি হাওরের ফসল হারানো ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের পাশে মানবিক সহায়তা নিয়ে আমরা সবাই দাঁড়াই। ঘুরে দাঁড়াক ফসল হারানো বাংলার কৃষক। জয়হোক মানবতার।

লেখক-অমিত দেব সম্পাদক জগন্নাথপুর২৪ডটকম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24