জগন্নাথপুরে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাঁধের কাজ শেষ হচ্ছে না আজ ৫০টি টিম হাওর পরিদর্শনে নামবে

বিশেষ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় হাওরের বোরো ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের নির্ধারিত সময়সীমা আজ বৃহস্পতিবার শেষ হচ্ছে। তবে শতভাগ ুএকটি বাঁধেরও কাজ সম্পন্ন হয়নি।
গতকাল বুধবার কয়েকদফা বৃষ্টি হওয়ায় বাঁধের কাজেও বিঘিœত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ সকাল থেকে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫০ টিম হাওরের সব ক’টি বাঁধের কাজ পরিদর্শন করবে।
এদিকে প্রকল্পের সভাপতি/ সম্পাদকরা জানিয়েছেন দেরিতে কাজেও ওয়ার্ক অর্ডার (কার্যাদেশ) প্রদান, শ্রমিক ও মাটি কাটার মেশিন সংগঠন থাকায় সঠিক সময়ের মধ্যে পুরাপুরি কাজ শেষ করা সম্ভব নয়। আরো ১০-১২ দিন সময় পেলে বাঁধের কাজে শতভাগ শেষ করা যাবে। পাউবোর নীতিমালা অনুয়ায়ী গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে বাঁধের কাজ শুরু করে চলতি মাসের ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তুু জগন্নাথপুরে কাজ শুরু হয় গত জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে বাঁধের মেরামত ও সংস্কার কাজ শুরু হয়।
কৃষকরা জানান, দুই মাসেও বেশি সময় পেড়িয়ে গেলেও একটি বাঁধেও সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়নি। গতকাল ভোর থেকে কয়েকদফা বৃষ্টি হওয়ায় ফসলের ফলনের জন্য খুবই উপকারি হলেও বাঁধের কাজে বিঘিœত ঘটেছে। এভাবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলেও হাওরের ফসল ঝুঁকির মধ্যে পড়ার আশঙÍায় কৃষকরা।
নলুয়া হাওরের ১৫ নম্বর প্রকল্পের পিআইসি সভাপতি চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের পরিষদের ইউপি সদস্য জুয়েল মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মাটির তীব্র সংগঠন থাকায় বাঁধের কাজ সম্পন্ন করা যাচ্ছে না। এরমধ্যে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। তারপরও গতকাল ১০০ শ্রমিক লাগিয়ে বাঁধের কাজ চলছে।
হাওর বাচাঁও সুনামগঞ্জ বাঁচা আন্দোলন কমিটির জগন্নাথপুর উপজেলার যুগ্ম সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান জগন্নাথপুর টিুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাঁধের কাজ সম্ভব হবে না। এখনও গড়ে বাঁধের কাজ ৬০-৬৫ ভাগ কাজ হয়েছে। ইতিমধ্যে ঝড় বৃষ্টি শুরু হওয়ায় চিন্তিত আমরা বাঁধের কাজ নিয়ে।
উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের আঞ্চলিক কার্যালয় সুত্র জানায়,এবার জগন্নাথপুর উপজেলার সর্বৃবৃহৎ জেলার অন্যতম নলুয়া হাওর, মইয়া, পিংলার হাওরসহ ছোটবড় ১৫টি হাওরের ৫০ টি প্রকল্পের ৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বরাদ্দে ৩২ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে মাটির কাজ ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমাদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে আজ (বৃহস্পতিবার) ৫০টি টিম হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজের অগ্রগতি পর্যবেক্ষন করবেন। তদন্তের পর বুঝা যাবে বাস্তবিক কাজের অগ্রগতি। তারপর আমরা সিদ্ধান্ত নেবে। এতে গাফিলতির প্রমাণিত হলে আইনানুত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাঁধের কাজ শেষ হচ্ছে না আজ ৫০টি টিম হাওর পরিদর্শনে নামবে

বিশেষ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় হাওরের বোরো ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের নির্ধারিত সময়সীমা আজ বৃহস্পতিবার শেষ হচ্ছে। তবে শতভাগ ুএকটি বাঁধেরও কাজ সম্পন্ন হয়নি।
গতকাল বুধবার কয়েকদফা বৃষ্টি হওয়ায় বাঁধের কাজেও বিঘিœত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ সকাল থেকে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫০ টিম হাওরের সব ক’টি বাঁধের কাজ পরিদর্শন করবে।
এদিকে প্রকল্পের সভাপতি/ সম্পাদকরা জানিয়েছেন দেরিতে কাজেও ওয়ার্ক অর্ডার (কার্যাদেশ) প্রদান, শ্রমিক ও মাটি কাটার মেশিন সংগঠন থাকায় সঠিক সময়ের মধ্যে পুরাপুরি কাজ শেষ করা সম্ভব নয়। আরো ১০-১২ দিন সময় পেলে বাঁধের কাজে শতভাগ শেষ করা যাবে। পাউবোর নীতিমালা অনুয়ায়ী গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে বাঁধের কাজ শুরু করে চলতি মাসের ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তুু জগন্নাথপুরে কাজ শুরু হয় গত জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে বাঁধের মেরামত ও সংস্কার কাজ শুরু হয়।
কৃষকরা জানান, দুই মাসেও বেশি সময় পেড়িয়ে গেলেও একটি বাঁধেও সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়নি। গতকাল ভোর থেকে কয়েকদফা বৃষ্টি হওয়ায় ফসলের ফলনের জন্য খুবই উপকারি হলেও বাঁধের কাজে বিঘিœত ঘটেছে। এভাবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলেও হাওরের ফসল ঝুঁকির মধ্যে পড়ার আশঙÍায় কৃষকরা।
নলুয়া হাওরের ১৫ নম্বর প্রকল্পের পিআইসি সভাপতি চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের পরিষদের ইউপি সদস্য জুয়েল মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মাটির তীব্র সংগঠন থাকায় বাঁধের কাজ সম্পন্ন করা যাচ্ছে না। এরমধ্যে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। তারপরও গতকাল ১০০ শ্রমিক লাগিয়ে বাঁধের কাজ চলছে।
হাওর বাচাঁও সুনামগঞ্জ বাঁচা আন্দোলন কমিটির জগন্নাথপুর উপজেলার যুগ্ম সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান জগন্নাথপুর টিুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাঁধের কাজ সম্ভব হবে না। এখনও গড়ে বাঁধের কাজ ৬০-৬৫ ভাগ কাজ হয়েছে। ইতিমধ্যে ঝড় বৃষ্টি শুরু হওয়ায় চিন্তিত আমরা বাঁধের কাজ নিয়ে।
উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের আঞ্চলিক কার্যালয় সুত্র জানায়,এবার জগন্নাথপুর উপজেলার সর্বৃবৃহৎ জেলার অন্যতম নলুয়া হাওর, মইয়া, পিংলার হাওরসহ ছোটবড় ১৫টি হাওরের ৫০ টি প্রকল্পের ৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বরাদ্দে ৩২ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে মাটির কাজ ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমাদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে আজ (বৃহস্পতিবার) ৫০টি টিম হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজের অগ্রগতি পর্যবেক্ষন করবেন। তদন্তের পর বুঝা যাবে বাস্তবিক কাজের অগ্রগতি। তারপর আমরা সিদ্ধান্ত নেবে। এতে গাফিলতির প্রমাণিত হলে আইনানুত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।