মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

জগন্নাথপুরে হামলা-দাঙ্গার প্রস্তুতির অভিযোগে অস্ত্রসহ গ্রেফতার-১৩

স্টাফ রিপোর্টার::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১৭৩৬ Time View

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এক যুবকের ওপর হামলার ঘটনায় এবং দাঙ্গার প্রস্তুুতি নেয়ার অভিযোগে পুলিশ অস্ত্রসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে

আজ মঙ্গলবার বিকেলে তাদেরকে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এই দুইটি ঘটনায় পৃথক মামলা হয়েছে। অস্ত্র ও হামলার ঘটনায় গ্রেফতারকৃতরা হলেন পৌরসভার ইসহাকপুর এলাকার আব্দুল আজিজের ছেলে রুহুল আমিন টিপু (২৯), আব্দুল গণির ছেলে আব্দুল কছির (৩৯), হবিব উল্লার ছেলে আব্দুল কাইয়ুম (৫০), মৃত আব্দুল মতিনের ছেলে আব্দুর রশিদ (৪২), মৃত আব্দুর নুরের ছেলে জুয়েল আহমদ (২৯), জগন্নাথপুর গ্রামের মৃত হারিছ উল্লার ছেলে শফিকুল ইসলাম খেজর (৩৬), সামছুল হকের ছেলে এনাম আহমদ (২৬), দিনাজপ্রু জেলার খানসেবা থানার হুলিহারা গ্রামের আকবল আলী ছেলে আব্দুল মতিন (৪২), সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকার বড়ইকান্দির তাহির আলীল ছেলে সুমন আহমদ (৩৮), জন্তার লামা মহাইল গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে রইছ উদ্দিন (৩০), আব্দুস সত্তারের ছেলে মোহাম্মদ আলী (৩২), সিরাজুল হকের ছেলে নাছির উদ্দিন (২১) ও আব্দুল খালেকের ছেলে আল আমিন (২০)।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসি জানান, জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ইসহাকপুরের আব্দুল জলাল এর পক্ষের সুন্দর আলীর ছেলে সরোয়ার হোসেন (২১) এবং একই এলাকার আব্দুস সাত্তারের পক্ষের লাল মিয়ার ছেলে রানা মিয়ার মধ্যে পূর্ব বিরোধ চলছিল। প্রায় আড়াই বছর পূর্বে রানা মিয়ার ওপর হামলা করে সরোয়ার। এই ঘটনায় প্রতিশোধ নিতে আড়াই বছর পর গত ২৮ অক্টোবর জগন্নাথপুরের আছিমশাহ’র ওরুস থেকে রাতে বাড়ি ফেরার পথে মনাইভাংতি নামকস্থানে সরোয়ার হোসেনের ওপর প্রতিপক্ষের লোকজন হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্র নিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে পালিয়ে যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে প্রথমে উপেজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এঘটনায় দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে গত কয়েকদিন ধরে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। গতকাল সোমবার গভীর রাতে পুলিশ খবর পায় দাঙ্গা সৃষ্টির জন্য ভাড়াটিয়া লোকজন এলাকায় অস্ত্রসন্ত্রে সজ্জিত হয়ে অবস্থান নিয়েছে। এমন খবর পেয়ে জগন্নাথপুর থানার একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে আব্দুস সত্তারের ভাই লন্ডন প্রবাসি আব্দুল কাহারের বাড়ি থেকে অস্ত্রসহ ১৩ জন গ্রেফতার করে। এই ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে গ্রেফতারকৃত ১৩ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। অপর দিকে হামলায় শিকার আহত যুবকের বাবা সুন্দর আলী বাদি হয়ে ২২জনকে আসামী করে মামলা করেছেন আজ। এঘটনায় অস্ত্র আইনে গ্রেফতারকৃত ১৩ জনের মধ্যে ৫ জনকে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

যুক্তরাজ্য প্রবাসি আব্দুল কাহারের ভাই আব্দুস সত্তার জানান, দুই ছোট বাচ্চাদের মধ্যে বিরোধ ছিল। এর জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন ৩/৪ দিন আমাদের পক্ষের আব্দুল আজিজের ওপর হামলা করেছে। এই ঘটনার আড়াই তিন বছর পূর্বে রানা মিয়াকে তাঁরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। আমরা কোন পক্ষের ওপর হামলা করেনি।

অপর দিকে আব্দল জলাল জানান, আমাদের এক যুবককে প্রতিপক্ষের লোকজন হত্যার উদ্যেশে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে। সে এখন আইসিইউতে রয়েছে। হামলার পর প্রতিপক্ষের লোকজন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী এনে আমাদের লোকজনের ওপর হামলার জন্য প্রস্তুতি নেয়। পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করেছে।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর খলিলুর রহমান জানান, দুই পক্ষের মধ্যে পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত কয়েকদিন ধরে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছিল। তবে বর্তমানে পরিস্থিত রয়েছে।

জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বিভিন্ন এলাকার ১৩ জন ব্যক্তিকে অস্ত্রসহ জড়ো করার খবর পেয়ে আমরা অভিযান চালিয়ে আব্দুল কাহারের বাড়ি থেকে একটি পাইপগান, লোহার একটি তলোয়ার, ২টি রামদা, ২টি ছুরি, ৩টি বর্শাসহ দেশীয় বিপুল পরিমাণ অস্ত্রসহ তাদের আটক করি। পরে অস্ত্র আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি।

জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দুই পক্ষের পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত কয়েকদিন ধরে ইসহাকপুর গ্রাম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। পুলিশ বিষয়টি নজরদারি করছিল যে কারণে বড় ধরনের সংঘাতের আগেই আমরা তাদেরকে গ্রেফতার করতে পেরেছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24