রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯, ০২:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে তিনটি ড্রেজার মেশিন আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করল ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে সিলেটে যুবলীগ নেতার রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে দুইটি মামলা দায়ের লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আ.লীগ নেতাদের সাক্ষাৎ গণপিটুনিতে নিহত নারী ছেলেধরা ছিলেন না.৪০০ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা জগন্নাথপুরে আশার আলো ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তিন শতাধিক বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ জগন্নাথপুরে বিপর্যস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা,১০ কোটি টাকার ক্ষতি, লাখো মানুষের দুর্ভোগ জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎ স্পর্শে শিশুর মৃত্যু সুনামগঞ্জের নিরপরাধ ব্যক্তিদের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন যে পরিচয়ে হোয়াইট হাউসে যান প্রিয়া সাহা

জাহালমকে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৩৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: বিনাদোষে তিন বছর কারাগারে রাখার ক্ষতিপূরণ হিসেবে টাঙ্গাইলের জাহালমকে ১০ কোটি টাকা দেয়ার দাবি জানিয়েছে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন। সংগঠনটির নেতারা বলছেন, দ্রুত জাহালমকে এ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ক্ষতিপূরণ না দেওয়া পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন করা হবে।

শনিবার (০৯ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে সংগঠনটির নেতারা জাহালমের জন্য ক্ষতিপূরণ চেয়ে মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে অংশ নিয়ে সংগঠনটির নেতারা এসব দাবি করেন।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি জিয়াউদ্দিন তারেক আলী বলেন, ‘নিরীহ পাটকল শ্রমিক জাহালমকে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হোক। আর যেন জাহালমের মতো নির্দোষ কাউকে গ্রেপ্তার করে হয়রানি না করা হয়।’
নিরীহ পাটকল শ্রমিক জাহালম চরম অন্যায়ের শিকার হয়েছেন বলে মন্তব্য করেন অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস।

তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, অসংখ্য জাহালম, বাংলাদেশের কারাগারে পচে মরছেন। জাহালমের ক্ষতিপূরণ কমপক্ষে ১০ কোটি টাকা হওয়া উচিত। জাহালম দিনের পর দিন শুধু কারাগারে কেঁদেছেন। পরিবার থেকে তাঁকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়। চাকরি থেকে বিযুক্ত রাখা হয়।’

তিনি বলেন, “দুর্নীতি দমন কমিশনের বিচারে নিরীহ জাহালম তার জীবন থেকে ও পরিবার-পরিজন থেকে গত ৩ বছর বঞ্চিত ছিলেন। মহামান্য হাই কোর্টের নির্দেশনায় তার মুক্তি মানবিকতার ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। “আমরা মনে করি ৩ বছরের অমানবিক আচরণের কারণে তার পরিবার পরিজনের যে বঞ্চনা, তার ক্ষতিপূরণ ১০ কোটি টাকা দুর্নীতি দমন কমিশনকে দিতে হবে।”

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি জিয়াউদ্দিন তারেক আলী বলেন, “রাষ্ট্র এবং দুদক কেউই জাহালমের উপর যে নির্দয় ও অমানবিক আচারণ তা এড়িয়ে যেতে পারেন না। আমরা জাহালমের উপর এই অন্যায়ের প্রতিকার দাবি করছি।”

সভায় ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সংগঠনের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মামুনুর রশীদ। এতে বলা হয়, “নির্দোষ জাহালমের জেলে যাওয়া ও তিন বছর কারাগারে থাকার ঘটনার দুদকের মতো একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান যেমনটি করে প্রশ্নবিদ্ধ হলেন, তেমনি সোনালী ব্যাংক ও একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান কী করে সালেকের পরিবর্তে জাহালমকে দোষী হিসেবে সাব্যস্ত করলেন, তা আমাদের বোধগম্য নয়। এ বিষয়ে দেশবাসীর সামনে অনেকগুলো প্রশ্ন এসে হাজির হয়েছে।”

এই মামলায় মূল আসামিকে আড়ালে রাখার কোনো প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে জাহালমকে ফাঁসানো হয়েছিল কি না, তা তদন্ত করে দায়ীদের শাস্তি দাবি করেছে সামাজিক আন্দোলন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী এস এম এ সবুর, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ কে আজাদ, সানোয়ার হোসেন সামছী, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সবুজ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, আবু সালেকের প্রতারণা, গোলাম মর্তুজার সহযোগিতা এবং সর্বশেষ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ভুল কিংবা তদন্তে অবহেলার কারণেই জেল খেটেছেন নিরপরাধ জাহালম। অথচ প্রতারণার সঙ্গে যুক্ত আবু সালেক ও গোলাম মর্তুজা রয়েছেন আড়ালে। প্রতারণার মাধ্যমে উপার্জিত অর্থ লুটে তারা রয়েছেন আয়েশে। অপরদিকে, দুদকের অদক্ষ কর্মকর্তা দিয়ে এ মামলা তদন্ত করানো হয়েছে। নয়তো এ মামলা তদন্তে ছিল খুবই অবহেলা। অথবা তদন্তকালে সালেক ও মর্তুজার কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা নিয়েছেন দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা।

রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের প্রায় ১৮ কোটি টাকা কোটি আত্মসাৎ করেছে একটি প্রতারক চক্র। আর এ মামলায় তিন বছর কারাভোগ করেছেন নিরাপরাধ পাটকল শ্রমিক জাহালম। জাহালমের কারাভোগ ও মুক্তির ঘটনায় দেশ-বিদেশে আলোচনার ঝড় বইছে। ধিক্কার জানানো হয়েছে তদন্ত কর্মকর্তাদের। দাবি উঠেছে প্রকৃত দোষীদের বিচারের। অনেকেই বলেছেন, সালেক-মর্তুজা-মাইনুলের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করে তা ক্ষতিপূরণ হিসেবে জাহালমকে দেয়া উচিত। জাহালমের প্রসঙ্গে ক্ষুব্ধ মানুষজন এভাবে অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন।

আদালত বলেছে, এ রকম ভুলের দায় কোনোভাবেই এড়াতে পারে না দুদক। নিরপরাধ জাহালমের কাহিনী এবং টাকা লোপাটের রহস্য উদঘাটনের পর নড়েচড়ে বসেছে দুদক। ইতোমধ্যে নিজেদের ভুলের কথা স্বীকার করেছে প্রতিষ্ঠানটি। ঘটনার জন্য দায়ী কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না বলেও জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে এই বিশাল টাকা আত্মসাতের ঘটনায় তদন্তে দুদক ও ব্যাংক কর্মকর্তাদের গাফিলতি ছিল কি না তা জানতে পুনরায় এক সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। পরিচালক আবু হাসনাত মো. আব্দুল ওয়াদুদকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এদিকে যাদের কারণে জাহালমের জেলখাটা এবং টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটে, সেই সালেক ও মর্তুজা রয়েছেন বহাল তবিয়তে।দুদকের অনুসন্ধানে দেখা যায়, গোলাম মর্তুজার বাড়ি নড়াইলের লোহগড়া উপজেলার মল্লিকপুর ইউনিয়নের জোগিয়া গ্রামে। বর্তমানে বসবাস করেন লোহাগড়া উপজেলা সদরের দক্ষিণপাড়া (পাইলট স্কুলের পূর্ব পাশে)। তার বাবার নাম ছামাদ মোল্লা। তার বড়ভাই মৃত তবিবুর রহমান রুনু ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। আর মর্তুজার তিন সন্তানের মধ্যে দুই ছেলে ও এক মেয়ে। তারা সবাই কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজে পড়ছেন। স্ত্রী কালনা সরকারি প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা।

‘মেহেরুন ছামাদ ট্রেডার্স’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক। ঢাকার ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে এখন লোহাগড়াতেই আছেন গোলাম মর্তুজা। জড়িয়েছেন স্থানীয় রাজনীতিতেও। কোনো পদ-পদবি না থাকলেও মল্লিকপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ড নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে তার। সময় কাটান ফেসবকেও।অপর দিকে সোনালী ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের নাটের গুরু সালেকের কিছুদিন ধরে কোনো খবর নেই। আলোচিত সালেক ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের সিঙ্গিয়া গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বছরখানেক ধরে লাপাত্তা সালেক। বছরখানেক আগে স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়। এরপর দ্বিতীয় বিয়ে করেন। মা-বাবার সাথে বনিবনা না হওয়ায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে আলাদা থাকেন। আসেন না গ্রামের বাড়িতে। কাঁচা মাটির পরিবর্তে গ্রামের বাড়িতে তুলেছেন আলিশান বাড়ি। বাবা-মা বোন থাকলেও সারাক্ষণ বাড়ির ভেতর থেকে তালাবদ্ধ থাকে। বাইরের কেউ যায় না ওই বাড়িতে। গ্রামের বাড়িতে নয়নাভিরাম ভবন বানালেও সম্পদ করেছেন বোনের বাড়ি পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায়। সেখানে টেলিভিশনের শোরুম দেন আবু সালেক। কিনেছেন বেশ কিছু জমি।

সালেকের বাবা আব্দুল কুদ্দুস জানিয়েছেন, ছোটবেলা থেকেই বেপরোয়া ছিল সালেক। এসএসসি পরীক্ষার পর বকুনি খেয়ে ঢাকায় আসে সালেক। সেখানে ভোটার আইডি কার্ড (এনআইডি) তৈরির সঙ্গে সালেক যুক্ত ছিল তারা জানতে পারেন। তিনি সন্তানের এ কুকর্মের শাস্তি দাবি করেন। বালিয়া ইউপির চেয়ারম্যান নুরে আলম সিদ্দিকী মুক্তি বলেন, আবু সালেক একজন প্রতারক। এলাকাতেও ছোট-বড় অনেক অপরাধের নালিশ আছে। এদিকে জাহালমের ঘটনা দুদুকের নজরে আসার পর প্রতিষ্ঠানটি এ বিষয়ে অধিকতর তদন্ত শুরু করে। তাদের তদন্তে বেরিয়ে আসে আসল রহস্য।

মামলার নথিপত্র, দুদকের এজাহার ও চার্জশিটে দেখা যায়, আবু সালেক মেহেরুন ছামাদ ট্রেডার্সের মালিক গোলাম মর্তুজাকে ৩৩টি অ্যাকাউন্ট পেয়ি চেক দিয়েছেন। যদিও তার ওই অ্যাকাউন্টে কোনো টাকাই ছিল না। এরপরও ‘চেক বাউন্স’ না হয়ে কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংকে থাকা গোলাম মর্তুজার মেহেরুন ছামাদ ট্রেডার্সের হিসাবে ১৮ কোটি টাকা যোগ হয়েছে। পরে এই টাকা তুলে নিয়ে আত্মসাৎ করেছে চক্রটি। তদন্ত শেষে দুদক জানিয়েছে, সালেক একসময় এনআইডি কার্ড (জাতীয় পরিচয়পত্র) প্রকল্পে কাজ করত। সেখান থেকেই কিভাবে আইডি কার্ড জাল করা যায় সেসব রপ্ত করে। জাল পরিচয়পত্র তৈরি করে সে শুধু ছবি পরিবর্তন করে ব্যাংকে ঋণ জালিয়াতির ঘটনা ঘটায়। তথ্য অনুযায়ী, মূল অপরাধী আবু সালেকের বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ৩৩টি মামলা হয়। আবু সালেকের ১০টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের ভুয়া ঠিকানাগুলোর একটিতেও জাহালমের গ্রামের বাড়ির কথা নেই। রয়েছে পাশের আরেকটি গ্রামের ভুয়া ঠিকানা। কিন্তু সেটাই কাল হয়ে দাঁড়াল জাহালমের জীবনে। নির্ধারিত দিনে দুই ভাই হাজির হন দুদকের ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে।

জাহালম বুকে হাত দিয়ে বলেছিলেন, ‘স্যার, আমি জাহালম। আবু সালেক না। আমি নির্দোষ।’ কিন্তু ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি নরসিংদীর ঘোড়াশালের মিল থেকে জাহালমকে গ্রেপ্তার করা হয়। জাহালম পাটকল শ্রমিক। নিরাপরাধ জাহালমের জেল খাটার বিষয়টি তুলে ধরা বিভিন্ন মিডিয়ায়। পরে ঘটনার তদন্তে নেমে আবু সালেককেই জাহালম হিসেবে চিহ্নিত করেন দুদক কর্মকর্তারা। আবু সালেক জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) জালিয়াতির মাধ্যমে জাহালমের ঠিকানা ব্যবহার করেছেন। ঠিকানা জালিয়াতির এ ঘটনায় তিন বছর কারাভোগ করেছেন জাহালম। পরে আদালতে শুনানি শেষে সোনালী ব্যাংকের অর্থ জালিয়াতির অভিযোগে দুদকের করা সব মামলা থেকে নিরীহ জাহালমকে অব্যাহতি দিয়ে মুক্তির নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

উল্লেখ্য, সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০১২ সালে ৩৩টি মামলা করে দুদক। দুদক তদন্ত করে বলে, জালিয়াত চক্র সোনালী ব্যাংকের ক্যান্টনমেন্ট শাখায় আবু সালেকসহ তিন জনের হিসাব থেকে ১০৬টি চেক ইস্যু করে। চেকগুলো ১৮টি ব্যাংকের ১৩টি হিসাবে ক্লিয়ারিংয়ের মাধ্যমে জমা করে ১৮ কোটি ৪৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন। এ ঘটনায় সালেক মর্তুজা ছাড়াও একটি জালিয়াত চক্র রয়েছে। জানা যায়, জালিয়াতির ব্যাপারে প্রত্যক্ষ ভূমিকা রাখেন সোনালী ব্যাংকের কর্মচারী মাইনুল হক।

সূত্র জানায়, সোনালী ব্যাংকের ক্যান্টনমেন্ট শাখার কর্মচারী মাইনুল সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিস (মতিঝিল) থেকে ভাউচার, চেক, কম্পিউটার প্রিন্ট আনা-নেয়া করতেন। আনা-নেয়ার পথে আবু সালেক স্বাক্ষরিত চেকগুলো সরিয়ে আলাদা রাখতেন। ওই চেকগুলো ছাড়া বাকি চেকের জন্য আলাদা ভুয়া ভাউচার তৈরি করে তা ক্যান্টনমেন্ট শাখায় দাখিল করতেন। লোকাল অফিসের কর্মকর্তা শাখা অফিসের কর্মকর্তার স্বাক্ষর যাচাই-বাছাই না করে পুরো অর্থ ক্লিয়ারিং হাউসে পাঠাতেন। এভাবে ক্লিয়ারিং হাউসের সোনালী ব্যাংকের হিসাব থেকে ভুয়া ভাউচার তৈরির মাধ্যমে সঙ্ঘবদ্ধ জালিয়াত চক্র সাড়ে ১৮ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে।
সৌজন্যে আমার সংবাদ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24