প্রাথমিকে শিক্ষক শিক্ষার্থীর অনুপাতে পিছিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
প্রাথমিকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাতে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা জেলাগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে সুনামগঞ্জ। পিছিয়ে থাকা পাঁচটি জেলার মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ।
জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী, দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত নির্দিষ্ট করা আছে ১: ৩০। যদিও দেশের বেশির ভাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ই সে লক্ষ্যমাত্রা থেকে বেশ পিছিয়ে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য বলছে, প্রাথমিকে শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাতের কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া। পরের অবস্থানে সুনামগঞ্জ। অনুপাতে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা পাঁচটি জেলার বাকি তিনটি হলো কক্সবাজার, নারায়ণগঞ্জ ও হবিগঞ্জ।
প্রাথমিক শিক্ষাসংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রাথমিকে শিক্ষার্থী ভর্তি প্রায় শতভাগে পৌঁছেছে। প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রতি বছরই যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন বিদ্যালয়। তবে শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয়ের সংখ্যা বাড়লেও সে অনুযায়ী নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না পর্যাপ্তসংখ্যক শিক্ষক। তাই শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত কাঙ্খিত লক্ষ্যে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বার্ষিক অগ্রগতি প্রতিবেদনেও শিক্ষক সংকটের বিষয়টি উঠে এসেছে। অধিদপ্তরের গত বছর প্রকাশিত অ্যানুয়াল সেক্টর পারফরম্যান্স রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশের ৭৯টি বিদ্যালয়ে মাত্র একজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে। দুজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে ৭২১ বিদ্যালয়ে। আর তিনজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে ৭ হাজার ৭৬৪ বিদ্যালয়ে। অর্থাৎ সরকারি হিসাবেই ৮ হাজার ৫৬৪টি বিদ্যালয়ে তীব্র শিক্ষক সংকট রয়েছে। যদিও অধিদপ্তরের ওই প্রতিবেদনেই বলা হয়েছে, একটি বিদ্যালয়ে কমপক্ষে চারজন শিক্ষক প্রয়োজন। অন্যথায় মানসম্মত পাঠদান নিশ্চিত সম্ভব নয়।
শিক্ষক সংকটের কারণে পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে জানান গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী। তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার্থী ভর্তির হার বেড়েছে বেশ। তবে সে তুলনায় নিয়োগ দেয়া হয়নি পর্যাপ্ত শিক্ষক। ফলে বিদ্যালয়গুলোয় তীব্র শিক্ষক সংকট দেখা দিয়েছে। পর্যাপ্তসংখ্যক শিক্ষক না থাকলে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হবে—এটাই স্বাভাবিক। অধিকাংশ বিদ্যালয়ে বেশকিছু পদ খালি পড়ে আছে। সরকারের উচিত, শূন্য পদগুলোয় অতিদ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে এ সমস্যার সমাধান করা।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সর্বশেষ অ্যানুয়াল প্রইমারি স্কুল সেন্সাস অনুযায়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার্থী সংখ্যা মোট ২ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭২ জন। শিক্ষক রয়েছেন ৪ হাজার ৮২৮ জন। সে হিসাবে এ জেলায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৫৭। আর নতুন করে জাতীয়করণ বিদ্যালয়গুলোয় এ ব্যবধান আরো বেশি। জেলার নতুন জাতীয়করণ বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৬০।
হাওর অঞ্চলের জেলা সুনামগঞ্জের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় একজন শিক্ষকের বিপরীতে শিক্ষার্থী সংখ্যা ৫৫। আর কক্সবাজার জেলায় প্রতি ৫৪ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে শিক্ষক রয়েছেন একজন। এ জেলার নতুন জাতীয়করণকৃত বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৬৮।
-সূত্র: বণিক বার্তা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

প্রাথমিকে শিক্ষক শিক্ষার্থীর অনুপাতে পিছিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
প্রাথমিকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাতে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা জেলাগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে সুনামগঞ্জ। পিছিয়ে থাকা পাঁচটি জেলার মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ।
জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী, দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত নির্দিষ্ট করা আছে ১: ৩০। যদিও দেশের বেশির ভাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ই সে লক্ষ্যমাত্রা থেকে বেশ পিছিয়ে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য বলছে, প্রাথমিকে শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাতের কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া। পরের অবস্থানে সুনামগঞ্জ। অনুপাতে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা পাঁচটি জেলার বাকি তিনটি হলো কক্সবাজার, নারায়ণগঞ্জ ও হবিগঞ্জ।
প্রাথমিক শিক্ষাসংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রাথমিকে শিক্ষার্থী ভর্তি প্রায় শতভাগে পৌঁছেছে। প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রতি বছরই যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন বিদ্যালয়। তবে শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয়ের সংখ্যা বাড়লেও সে অনুযায়ী নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না পর্যাপ্তসংখ্যক শিক্ষক। তাই শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত কাঙ্খিত লক্ষ্যে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বার্ষিক অগ্রগতি প্রতিবেদনেও শিক্ষক সংকটের বিষয়টি উঠে এসেছে। অধিদপ্তরের গত বছর প্রকাশিত অ্যানুয়াল সেক্টর পারফরম্যান্স রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশের ৭৯টি বিদ্যালয়ে মাত্র একজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে। দুজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে ৭২১ বিদ্যালয়ে। আর তিনজন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে ৭ হাজার ৭৬৪ বিদ্যালয়ে। অর্থাৎ সরকারি হিসাবেই ৮ হাজার ৫৬৪টি বিদ্যালয়ে তীব্র শিক্ষক সংকট রয়েছে। যদিও অধিদপ্তরের ওই প্রতিবেদনেই বলা হয়েছে, একটি বিদ্যালয়ে কমপক্ষে চারজন শিক্ষক প্রয়োজন। অন্যথায় মানসম্মত পাঠদান নিশ্চিত সম্ভব নয়।
শিক্ষক সংকটের কারণে পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে জানান গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী। তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার্থী ভর্তির হার বেড়েছে বেশ। তবে সে তুলনায় নিয়োগ দেয়া হয়নি পর্যাপ্ত শিক্ষক। ফলে বিদ্যালয়গুলোয় তীব্র শিক্ষক সংকট দেখা দিয়েছে। পর্যাপ্তসংখ্যক শিক্ষক না থাকলে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হবে—এটাই স্বাভাবিক। অধিকাংশ বিদ্যালয়ে বেশকিছু পদ খালি পড়ে আছে। সরকারের উচিত, শূন্য পদগুলোয় অতিদ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে এ সমস্যার সমাধান করা।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সর্বশেষ অ্যানুয়াল প্রইমারি স্কুল সেন্সাস অনুযায়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার্থী সংখ্যা মোট ২ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭২ জন। শিক্ষক রয়েছেন ৪ হাজার ৮২৮ জন। সে হিসাবে এ জেলায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৫৭। আর নতুন করে জাতীয়করণ বিদ্যালয়গুলোয় এ ব্যবধান আরো বেশি। জেলার নতুন জাতীয়করণ বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৬০।
হাওর অঞ্চলের জেলা সুনামগঞ্জের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় একজন শিক্ষকের বিপরীতে শিক্ষার্থী সংখ্যা ৫৫। আর কক্সবাজার জেলায় প্রতি ৫৪ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে শিক্ষক রয়েছেন একজন। এ জেলার নতুন জাতীয়করণকৃত বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১: ৬৮।
-সূত্র: বণিক বার্তা

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।