শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ

বৃষ্টি ও দ্রোহের দেশে ভালবাসার নীল কাব্য-মনোরঞ্জন তালুকদার

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৪৬৪ Time View

কবি আফরোজা বানু লিখিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ। এই কবিতা সংকলনটি নিয়ে একান্তই আমার ব্যক্তিগত কিছু অনুভূতি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চাই। প্রথমেই স্বীকার করে নিচ্ছি,আমার এই আলোচনা তথাকথিত কোন পুস্তক পর্য্যালোচনা নয়। কারন সে যোগ্যতা আমার নেই। কবিতার নন্দনতত্ত্ব সম্পর্কে আমার কোন ধারনাই নেই। আমার পাঠ্য তালিকায় কবিতা কখনো কোন প্রিয় বিষয় ছিলনা। তবু কেন লিখতে বসলাম তার উত্তরে স্পষ্ট করেই বলছি, এই বইটি পড়ার পর কবিতার প্রতি আমার তীব্র আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে।
নাম নিয়েই আলোচনাটা শুরু করা যায়।
বৃষ্টি ও দ্রোহের দেশে
ভালবাসার নীল কাব্য।
অনিন্দ্য সুন্দর একটি কাব্যিক নামকরন। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। আক্ষরিক অর্থেই বইটিতে বৃষ্টি, বিদ্রোহ, ভালবাসা ও ভালবাসার কষ্টের কথা পরিশীলিত ভাবে উচ্চারিত হয়েছে।
সখি ভালবাসা কারে কয়
সে কি কেবলই যাতনাময়?
যাতনার মধ্য দিয়েই ভালবাসা উদ্ভাসিত হয়। ভালবাসার বিরহ যাতনার তীব্র দহন কথা কবিতা সংকলনটিতে নানা মাত্রায় নানা আংগিকে বারে বারে ফিরে এসেছে।
ভালবাসার নীল কাব্য নামকরনের এই অংশটিও শতভাগ স্বার্থক। কারন নীল তো বেদনারই রঙ।
বৃষ্টি ও দ্রোহের দেশে
ভালবাসার নীল কাব্য- কবিতার বইটি পড়লে নামকরনের স্বার্থকতাটি আরো গভীর ভাবে উপলবদ্ধি করা যাবে।
তবে বইটির প্রচ্ছদ আমার খুব একটা পছন্দ হয়নি।

মোট ৪০ টি কবিতা গ্রন্থিত আছে এই অনন্য সাধারণ কাব্য গ্রন্থটিতে।
কাব্যগ্রন্থের প্রথম কবিতাটি হচ্ছে বৃষ্টিকে নিয়ে।
সেই মেয়েটি, ময়না তদন্ত কিংবা পরাশ্রয়ী নই কবিতায় ফুটে উঠেছে ব্যাষ্টিক ও সামষ্টিক মানসে বিরাজমান নানা ধরনের অসংগতি ও হিপোক্রেসি বিরুদ্ধে এক ধরনের কাব্যিক দ্রোহ। অন্যান্য কবিতাগুলো ভালবাসা আর বিরহ অনুভূতির যুগলবন্দী।
কাব্যগ্রন্থের প্রতিটি কবিতার বক্তব্যই অত্যান্ত স্বচ্ছ ও গীতিধর্মী।
বইটি আমাকে আন্দোলিত করেছে প্রধানত দুটি কারনে।
প্রথমত: কবি তাঁর ভাবনা, আবেগ ও অনুভূতিকে সহজ সরল ভাষায় কিন্তু তীক্ষ্ণ ভাবে প্রকাশ করেছেন। ভাষা ও ভাবনায় কোন রকম অস্পটতা বা দুর্বোধ্যতা নেই। তাই সাধারণ থেকে বিদগ্ধ সমস্ত পাঠকই তাঁর কবিতার রূপ মাধুর্য সমান ভাবে উপভোগ করতে পারবেন।
যেখানে গুরুদেব বলে গেছেন,
সহজ কথা যায়না বলা অতি সহজে
সেখানে গভীরতম অনুভূতি অপূর্ব দক্ষতায় খুব সহজ ভাবেই প্রকাশ করেছেন কবি। কবির অনুভূতি পাঠক হৃদয়ে সঞ্চারিত হয়ে সৃষ্টি হয় এক যৌথ আবেগের। যেখানে কবি আর পাঠকের অনুভুতি একাকার হয়ে বাধা পড়ে বিনি সুতোর মালায়। এখানেই তাঁর কবিতার সার্থকতা।
দুএকটি উদাহরণ দিলে তা আরো স্পট হবে

একটু না হয় ভুলই হলো
তাই বলে কি ওরে।
তফাৎ হবে আমার সাথে
কষ্ট পাথর ছুঁড়ে।
কবিতা ( কষ্ট পাথর)

কিংবা

তুমি ডাকলে,
নাগরিক সব কোলাহল ফেলে
আমি হতে পারি বনবাসি
আমার ভাবনায় তুমি সদাই একুশ
আমি অষ্টাদশী।
কবিতা ( অষ্টাদশী)।
প্রতিটি কবিতায় এমনি করে সহজ, সরল ভাষায় ভাব, শব্দ আর ছন্দের মালা গেঁথেছেন কবি।

বইটি ভাললাগার দুটো কারনের কথা উল্লেখ করলেও এ পর্যন্ত আমি একটি কারন নিয়েই আলোচনা করেছি। এখন আমি অপর কারনটি নিয়ে আলোচনা করব।
মূল আলোচনায় যাবার আগে একটি অসাধারণ কবিতা নিয়ে দু এক কথা না লিখলে আমার নিজের অনুভূতির প্রতিই অবিচার করা হবে।

বিষয়বস্তু, চেতনাবোধ, বাক্য গঠন সর্বোপরী বর্ণ নিয়ে নতুন ভংগিতে কবিতা সৃষ্টির একটি অনন্য কবিতা হচ্ছে পরাশ্রয়ী নই।
বেগম রোকেয়া তাঁর ” সুলতানার স্বপ্ন” রচনায় কল্পনা করেছিলেন পুরুষের উপর নারী আধিপত্য। তাঁর সেই স্বপ্ন সম্পূর্ণ সফল না হলেও তা আজ আর আমাদের সমাজের স্থির চিত্র নয়। যুগ যুগান্তরের অবরোধের অচলায়তন ভেংগে নারী আজ মানুষ হবার নিরন্তর সংগ্রামে রত। আর সেই সংগ্রামেরই প্রতিধ্বনি পরাশ্রয়ী নই কবিতার ছত্রে ছত্রে উচ্চকিত।
প্রথমে বর্ণ নিয়ে খেলার যে অসাধারণ মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন কবি তার একটু উদাহরণ

মেয়ে তুমি চন্দ্রবিন্দু(ঁ) হবে
(চাঁ)দ হয়ে রইবে আকাশে
………………………………..
মেয়ে তুমি অনুস্বার(ং) হবে
প্রেমের অহ( ং)কারে রানী।

কবিতার শেষ অংশটিতে উদ্ভোধন ঘটেছে বেগম রোকেয়ার স্বপ্নের প্রতিধ্বনির। যেখানে মেয়েটি বলছে,

অনুস্বর, হবো না চন্দ্রবিন্দু
আমি বিসর্গও হবো না
আমি হব স্বাধীন সত্ত্বা
অ আ ই ঈ।
নারী স্বাধীনতার চেতনা বোধের জায়গা থেকে একই সমতলে বেগম রোকেয়া ও তাঁর যোগ্য উত্তর প্রজন্ম উত্তরের জনপদ রংপুরের কবি আফরোজা বানু।
অন্যদিকে কবিতায় উপমার সার্থক প্রয়োগ ঘটিয়ে কিছু কবিতাকে কবি নিয়ে গেছেন পাঠকের ভাল লাগার সর্বোচ্চ স্তরে।
দুএকটি উদাহরণ দিলে তা স্পষ্ট হবে

ওর নিয়তি ঠিক ওর সবুজ দেশটির মত।
ময়না তদন্ত হয়,
কেস হয়, তদন্ত কমিটি হয়
অথচ জানা হয়না,
কে তাকে বারবার রক্তাক্ত করে।

কবিতা- ময়না তদন্ত

কি অসাধারণ উপমা। পুরো কবিতা টি পড়লে মেয়েটির সাথে ওর সবুজ দেশটির অন্যান্য উপমা উপমা গুলোও আরো স্পষ্ট ভাবে প্রতিভাত হবে।

আর একটি কবিতার উদাহণ দিয়েই আজকের পর্ব শেষ করব।

এখনো বাদামের খোসা ছড়াই আনমনে।
কখনো কখনো
দুই ফাঁক হয়ে যাওয়া খোসাগুলির সাথে,
অদ্ভুত মিল খুঁজে পাই
অন্তঃসারশূন্য তোমার।

কবিতা – বাদাম খোসা।

আটপ্রৌঢ়ে উপকরণে কি অসাধারণ উপমা।

কথিত আছে জ্ঞানের সাহিত্য কালের সাহিত্য আর ভাবের সাহিত্য চির কালের সাহিত্য।
মানুষের মনোজগতে উথাল পাতাল আবেগের যে বিস্ফোরণ চলে প্রতিনিয়ত, যা আমাদের যাপিত জীবনের পরতে পরতে বিরাজমান থাকলেও তার শিল্পীত প্রকাশ সব সময় সবার পক্ষে প্রকাশ করা সম্ভব হয়না। এমন কি জ্ঞানমার্গী সাহিত্যিকরাও তা উপেক্ষা করে জ্ঞান নির্ভর সাহিত্য রচনায় নিমগ্ন থাকেন। কিন্তু পরিবর্তনশীল সমাজ ব্যবস্থায় জ্ঞান ধারনাও পরিবর্তিত হয়। অপরদিকে ভাব জগত সম্পূর্ণ অপরিবর্তীত থাকে। এমন কি আবেগ অনুভূতি ব্যাপারটা যেমন চিরায়ত তেমনি বিশ্বজনীনও বটে।

বৃষ্টি ও দ্রোহের দেশে
ভালবাসার নীলকাব্য

তেমনি একটি ভাববাদী কবিতা সংকলন। কবির যে সমস্ত কবিতায় তার শৈশব, কৈশোরের স্মৃতি কাতরতা মূর্ত হয়ে উঠেছে তা পাঠ করে প্রতিটি পাঠকই তার ফেলে আসা নিজস্ব দূরন্ত কৈশোরের স্মৃতিময়তায় ফিরে যাবেই।
আপ্লুত হবে এক নষ্টালজিক ভাবনায়। যেমন

সেবার মেলা থেকে পাঁচ সিকি দিয়ে একটা
বাঁশি কিনেছিলাম।
কিনেছিলাম একটা টেপা পুতুল,
হারিয়ে গেল সাঁঝ আঁধারে।
পা টিপে টিপে উল্টো রাস্তায় হেঁটে
খুঁজেছি কত।
হারানোর মেলায়, হারালো না শুধু স্মৃতি
স্মৃতি ভালবাসার,
কষ্টের,
নীল বেদনার।
থাকুক ওরা
নীল একটা রুমালে বাঁধা।
গ্রাম থেকে উঠে আসা প্রতিটি মানুষকেই কবিতাটি নষ্টালজিক করবে। প্রত্যেককে দাড় করিয়ে দেয় তার উচ্ছল কৈশোরের মুখোমুখি।
কোন একটি কবিতা পড়তে পড়তে যদি পাঠক তার জীবনের নানা স্তরে প্রত্যাবর্তন করে তখন কবিতাটি সার্থক হয়ে উঠে।
আফরোজা বানুর প্রতিটি কবিতাই এই বিবেচনায় সার্থক।
কৈশোর ও যৌবনের নানা আবেগ ও আবেশ, অপেক্ষা ও প্রতীক্ষার দহনে দগ্ধ হওয়ার অনুভূতি, আশা-হতাশা কিংবা বিরহ বিচ্ছেদের নানা মুর্চ্ছনায় প্রতিটি কবিতাই ভাস্বর।

স্মৃতি, অপেক্ষা, ঢেউগুলি সব তোমায় দেব, দুঃসময়,আমি অষ্টাদশী কিংবা কষ্ট পাথর এর মত কবিতা গুলো প্রতিটা প্রেমিক হৃদয়কে যেমন ব্যাকুল করে তেমনি সেই মেয়েটি, ময়না তদন্ত, পরাশ্রয়ী নই কিংবা সাদা বক

লেখক-মনোরঞ্জন তালুকদার সহকারী অধ্যাপক জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24