বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১১:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বাড়ছে জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে আ.লীগ নেতাসহ চারজনের কারাদণ্ড এরালিয়া বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৭ শিক্ষার্থী ফরম পূরন থেকে বঞ্চিত নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে জগন্নাথপুরে পরিবহন ধর্মঘট পালন, জনভোগান্তি জগন্নাথপুরে গানে গানে মাতিয়ে গেলেন ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র তারকা শিল্পী সালমা আইন শৃঙ্খলা সভা: জগন্নাথপুরে মাদক বিরোধী অভিযান জোরদারের আহবান জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’

ভয়ংকর জালিয়াত তাজুল গ্রেফতার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ২৮ Time View

মো. এনামুল কবীর :: পুলিশ ক্লিয়াসন্সসহ স্কুল কলেজের সার্টিফিকেট, এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্র পর্যন্ত তৈরি করে দেয়া তার কাছে অতি সাধারণ কাজ। বিভিন্ন ধরনের জাল কাগজপত্র তৈরি তার মূল পেশা।

অবশেষে সিলেটের জেলা নির্বাচন অফিসে এসে ঘুষ দিয়ে জাল পরিচয়পত্র বৈধ করতে গিয়ে এখন পুলিশের খাঁচায় বন্দি সেই ভয়ংকর জালিয়াত তাজুল ইসলাম।

তাজুলের পরিচয়: তাজুলের বাড়ি জৈন্তাপুরের নিজপাট পানিয়ার আড়ি গ্রামে। তার বাবার নাম এনাম আহমদ। এলাকায় তার রিক কম্পিউটার নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। এই প্রতিষ্ঠান থেকেই সে দীর্ঘদিন থেকে নানান জালিয়াতি চালিয়ে যাচ্ছিল।

যেভাবে পুলিশের খাঁচায় তাজুল: জৈন্তাপুরের নিজপাট এলাকার মৃত হাসান আলীর ছেলে দুলাল উদ্দিন আহমদ। তার প্রতিবেশি জয় বাহাদুর ছত্রির স্ত্রী বিঞ্চু মায়া ছত্রির জাতীয় পরিচয়পত্রের একটি ভূল সংশোধনের জন্য তাজুলের কাছে যান। তাজুল তা সংশোধন করে দিবে এবং জেলা নির্বাচন অফিসে সেটি সঠিক কি না তা যাচাই করে দেওয়ার শর্তে ২ বারে দুলালের কাছ থেকে ১৪’শ টাকা নেয়।
সোমবার দুপুরে তা যাচাই করতে এসে ফেঁসে যায় তারা দুজন।

জেলা নির্বাচন অফিসারকে ঘুষ সাধাসাধি: বিঞ্চু ছত্রির জাতীয় পরিচয়পত্রটি সংশোধন করে তাজুল দুলালের হাতে তুলে দেয় সপ্তাহখানেক আগে। তিনি জেলা নির্বাচন অফিসে বসে এ প্রতিবেদককে জানান, এরপর থেকে সে নানা টালবাহানা করতে থাকে। কথামতো যাচাই করতে নির্বাচন অফিসে আসতে দিন ঠিক করলেও নানা কারণ দেখিয়ে সে আর আসেনা। অবশেষে সোমবার তাকে নিয়ে তিনি দুপুরের দিকে জেলা নির্বাচন অফিসে আসেন।

এখানে এসে দুলাল সিনিয়র নির্বাচন অফিসার আজিজুল ইসলামকে কার্ডটি সঠিক কি-না দেখতে বললে তারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেন এটা একটা নকল কার্ড। এসময় তাজুল অফিসারকে ‘কিছু টাকা পয়সা’ দিবে বলে সাধাসাধি করে। জেলা নির্বাচন অফিসার তখন গোয়েন্দা পুলিশকে খবর দেন।

বিভ্রান্ত করার নানা চেষ্টা: বিকেলে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল নির্বাচন অফিসে এসে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করলে তাজুল একেকবার একেক তথ্য দেয়। তাজুল তার বাবার নাম গ্রামের নাম ইত্যাদি তথ্য সে একেক সময় একেক কথা বলে। গোয়েন্দারা নির্বাচন কর্মকর্তাদের সাহায্যে তাজুলের ল্যাপটপ এবং আইডিকার্ডের মূল মালিক বিঞ্চু ছত্রিকেও নির্বাচন অফিসে উপস্থিত করেন।

তাজুলের ল্যাপটপে যা আছে: তাজুলের ল্যাপটপ যেন জালিয়াতীর আড়ৎ। নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তারা সেটা চালু করে দেখেছেন সেখানে স্কুল কলেজের সার্টিফিকেট থেকে শুরু করে জাতীয় পরিচয়পত্র এমনকি কয়েকটি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেটও রয়েছে।

বিঞ্চু ছত্রির বক্তব্য: এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বিঞ্চু ছত্রি জানান, তার কার্ড সংশোধনের জন্য তিনি দুলালকে দিয়েছিলেন। দুলাল সেটা ঠিক করে দিবেন বললেও তার কাছে কোন টাকা পয়সা দাবি করেননি।

নির্বাচন কর্মকর্তাদের বক্তব্য: রাত ১০টার সময় সিলেট মেট্টোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালী থানা পুলিশের কাছে দুলাল ও তাজুলকে তুলেদেন নির্বাচন কর্মকর্তারা।

জালিয়াতীর শাস্তি প্রসঙ্গে সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচনী কর্মকর্তা এজহারুল হক বলেন, নির্বাচনী আইন অনুযায়ী ভোটার আইডিকার্ড জালিয়াতীর সাজা অনধিক ৭ বছরের জেল। সাথে ১ লক্ষ টাকা জরিমানার বিধানও রয়েছে।

এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত (রাত সাড়ে ১১টা) কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24