বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী

শাল্লায় প্রধানমন্ত্রী-হাওর অঞ্চলে কৃষিঋন আদায় করা হবে না

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৭৪ Time View

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, হাওর অঞ্চলে কৃষিঋণ আদায় করা হবে না। সোমবার সুনামগঞ্জের শাল্লায় গিয়ে হাওরবাসীদের দুর্দশা স্বচক্ষে দেখার পর তাদের উদ্দেশ্যে একথা বলেন তিনি।
হাওর অঞ্চলে অনেক বেসরকারি অনেক সংস্থাও কৃষিঋণ দিয়েছে— একথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা সুদ আদায়ের জন্য চাপ দিচ্ছে। সুদ আদায়ের জন্য দুর্যোগে পড়া মানুষের ওপর যেন চাপ দেওয়া না হয় সে জন্য এনজিওগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।
হাওরে ফসল নষ্ট হওয়ার অজুহাতে কেউ কালোবাজারি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, খাদ্যের মজুদ আছে। কম পড়লে আমদানি করা হবে। কিন্তু খাবারের কষ্ট হবে না।
হাওর অঞ্চলে ক্ষতিগ্রস্তদের ধানের সঙ্গে পশু খাদ্যও দেওয়া হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া আগামী মৌসুমে হাওর অঞ্চলে বিনা মূল্যে কৃষি উপকরণ দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

হাওরে মানুষের বিকল্প জীবিকা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পানি নেমে গেলেই হাওরে ব্যাপকভাবে মাছের পোনা ছেড়ে দেওয়া হবে। এমন ব্যবস্থা করতে হবে যেন মাছের চাষ বাড়ে। শুধু তাই নয়, হাসের চাষ করা যায়, খাচার মধ্যে মাছের চাষ করা যায়, শাক-সবজির চাষ করা যায়, ডাল-শরিষা উৎপাদন করা যায়। এমন নানা ধরনের প্রক্রিয়া আছে। এগুলো ব্যবহার করতে শুরু করলে আর হাওর এলাকার মানুষ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না।’
আগাম বন্যা হলেই হাওর এলাকার ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে প্রতিকূল পরিবেশের সঙ্গে সহনীয় ধানের জাত তৈরিতে গবেষণা চলছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এমন ধানের জাত নিয়ে গবেষণা চলছে, যেগুলো কিছুদিন পানির নিচে থাকলেও নষ্ট হবে না। পানি নেমে গেলেই সেগুলো ঠিকভাবে বেড়ে উঠবে। এছাড়া অনেক সময় বৃষ্টি হয় না। অনাবৃষ্টি বা খরাতেও যেন ধান গাছ টিকে থাকতে পারে, তেমন ধান নিয়েও গবেষণা চলছে।’
হাওর অঞ্চলের উন্নয়নে সরকারের পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হাওর এলাকার নদীগুলো যেন ভরাট না হয়ে যায়, সেজন্য নদীগুলো ড্রেজিং করা হবে। হাওর এলাকায় খাল কাটা হবে এবং এসব খাল যেন বেশি পানি ধারণ করতে পারে, সে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এসব এলাকার ঘরবাড়ি যেন দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে জন্যও পদক্ষেপ নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। হাওর উন্নয়ন বোর্ড সরকারের এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের হাওর বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কারণ হাওরে যে পানি জমা হয়, এই পানিই সারাবছর নদীতে যায়। এই পানি এই এলাকার মানুষের জীবনযাত্রার সঙ্গে সম্পৃক্ত।’
হাওর এলাকাকে দুর্যোগপ্রবণ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রকৃতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা এবং প্রকৃতিকেই কাজে লাগানোর চিন্তা করতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসবে, সেটা মোকাবিলা করেই বাঁচতে হবে। কিভাবে মোকাবিলা করে বাঁচতে পারি, সেই পথ বের করতে হবে। এমন ব্যবস্থা নিতে হবে যেন কোনও মানুষের জীবনের ক্ষতি না হয়। খেয়াল রাখতে হবে, হাওরাঞ্চল জীববৈচিত্র্যের এলাকা। এই অঞ্চলের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এসব সম্ভাবনা কাজে লাগাতে হবে। এখানে পর্যটনের সুযোগ আছে, আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার সুযোগ আছে। এগুলোকে কাজে লাগিয়ে কেবল এই অঞ্চল নয়, দেশও যেন লাভবান হতে পারে সেই ব্যবস্থা আমরা নেবো।’
দুর্যোগে ত্রাণ তৎপরতা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোনও ধরনের দুর্যোগ হলেই ত্রাণ মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করে। আমরা যতটুকু সম্ভব, ত্রাণ দিয়ে যাব। হাওর এলাকায় ১০ টাকা কেজিতে ওএমএসের মাধ্যমে চাল বিক্রি করা হচ্ছে। যারা দুঃস্থ আছেন, তাদের জন্য রয়েছে ভিজিএফ কার্ডের ব্যবস্থা। এই অঞ্চলের মানুষের ঘরে খাবার আসার আগ পর্যন্ত এসব সহায়তা অব্যাহত থাকবে। একজন মানুষও না খেয়ে কষ্ট পাবেন না, এটাই আমাদের লক্ষ্য। আমরা চাই, আমাদের দেশের মানুষ, তিনি যে অঞ্চলেরই হোক না কেন, তারা যেন ভালোভাবে বাঁচতে পারে।’
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, দুর্যোগ ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম ও স্থানীয় সংসদ সদস্য জয়া সেনগুপ্তা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24