সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শালুকের ঠোঁটে ফুটে বিজয় || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার সম্পন্ন, ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত জগন্নাথপুরে প্রবাসি সংগঠনের উদ্যেগে দরিদ্র মানুষের মধ‌্যে ত্রাণ বিতরণ দিরাইয়ে সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১, গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০ ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উদ্যাগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল

শিক্ষক সামান ও তরুণ জনপ্রতিনিধি হীরার অকালে চলে যাওয়া মেনে নেয়া যায় না…..

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ১৫৫ Time View

অমিত দেব:: মানুষ মরণশীল এই চিরন্তন সত্যকে অস্বীকার করার কারো উপায় নেই। তারপরও কিছু কিছু মৃত্যু মানুষকে পীড়া দেয়, ব্যতিত করে। তেমনি আজ জগন্নাথপুরের দুজন মানুষের মৃত্যু আমাকে পীড়িত করছে। যাদের দুজনের কেউ আমার আত্বীয় না হলেও দু’জনই পরিচিতজন। পেশাগত কারণে তাদের সাথে ঘনিষ্টতা ছিল। যাদের একজন চিলাউড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামান অপরজন পাটলী ইউনিয়নের তরুণ সাবেক জনপ্রতিনিধি হীরা মিয়া।অকাল এই দুই মৃত্যু মেনে নেয়া কষ্টকর। শিক্ষক সামান ওয়ান ইলেভেনের সময় প্রভাবশালী আমলার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিলেন সেই থেকে তাঁর সাথে ঘনিষ্টতা।সব সময় তাকে পেয়েছি অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে স্বোচ্ছার। গড়ে তুলেছিলেন নাগরিক ফোরাম নামের একটি সামাজিক সংগঠন। সমাজ বদলের কারিগর দীর্ঘদিন শিক্ষকতা পেশায় জড়িয়ে ছিলেন। করেছেন সাংবাদিকতা। শিক্ষক প্রশিক্ষক হিসেবেও কাজ করেছেন। সাম্প্রতিককালে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। লজিং বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় সোমবার মারা যান। বুধবার জানাজা শেষে তাকে সমাহিত করা হয়। এই মৃত্যুর সংবাদের শোক সইতে না পারতে না পারতে বিকেলে খবর পেলাম পাঠলী ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার তরুণ সমাজকর্মী হীরা মিয়া মারা গেছে। শোক সইবার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলি। অকাল এই মৃত্যুর মিছিল জগন্নাথপুরবাসীকে শোক বিহ্বল করে তুলে। কিছু দিন ধরে হীরার সাথে খুব যোগাযোগ। পাটলী ইউনিয়নে হীরাদের বাড়ির সংলগ্ন শ্যামহাট আশ্রম।আশ্রমের সড়কের জায়গা হীরা মিয়া গংদের। এই আশ্রমের সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হওয়ার পর থেকে আশ্রমের রাস্তার জন্য বার বার তার সাথে যোগাযোগ করেছিলাম। জোরগলায় কথা দিয়েছিল দাদা আশ্রমের রাস্তার জায়গা আমরা দেব। আমার ভাই ফেব্রুয়ারি মাসে দেশে এলে বিষয়টি সুরাহার আশ্বাস দিয়েছিল। ভরসা ছিল তার কথায়। এলাকার যে কোন সমস্যা হলেই ফোনে বলত দাদা কিছু করা যায়নি দেখুন। অনুজ প্রতীম হীরা ও অগ্রজ সামান পরপারে ভাল থাকুন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24