মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন

শেষ বিকেলের রৌদ-অমিত দেব

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ জুন, ২০১৮
  • ২৬৫ Time View

বিনম্র শ্রদ্ধা- মানস রায়

১৯৮৩ সালে জগন্নাথপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সামজিক সংগঠন নাট্যবানীর প্রকাশনা আবাহন এ মানস রঞ্জন রায়ের লেখা শেষ বিকেলের রৌদ প্রকাশিত হয়। লেখায় একজন প্রতিভাবান সাংস্কৃতিক ব্যক্তির সারা জীবনের অবহেলা ও বঞ্চনার চিত্র তুলে ধরা হয়। জীবনের শেষ সায়েন্সে ওই প্রতিভাবান সাংস্কৃতিক ব্যক্তির রাষ্ট্রীয় পুরস্কার লাভের পর শহীদ মিনারে সংর্ধতি হন। সেই থেকে এলাকাবাসীর কাছে অবহেলিত মানুষটি গুরুত্বপূর্ণ ও সন্মানীয় হয়ে উঠে। শেষ বিকেলের রৌদে লেখকের মতো প্রতিভাবান সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মানস রায় এর জীবন যেন এঁকি সূত্রে গাঁথা। গত ২৬ মে জগন্নাথপুরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের উজ্জ্বল পুরুষ মানস রায় চলে গেছেন না ফেরার দেশে। মৃত্যুর তিন দিন আগে হাসপাতালের বেডে বসে তিনি শুনিয়েছিলেন তাঁর লেখা শেষ বিকেলের রৌদ এর গল্প।
মানস রঞ্জন রায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সন্মাননার জন্য মনোনীত হয়েছিলেন। তাঁর হাতেগড়া সংগঠন উদীচী জগন্নাথপুর শাখা তাকে সংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছিল। নিয়তির নির্মমতায় শহীদ মিনারে তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়। জগন্নাথপুরের বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ ফুলের ভালোবাসায় তাকে চীরবিদায় জানায়। ’৭৯ থেকে ১৮’ মহীরুহের পতন শিরোনামে শহীদ মিনার শোকের সাগরে মেতে উঠে। মানস রায়ের সহযোদ্ধাদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে,হবিগঞ্জের বানিযাচং উপজেলার বাসিন্দা মানস রায় বিএডিসির চাকুরী সূত্রে জগন্নাথপুরে আগমন। তাঁর পর থেকে জগন্নাথপুরের মায়া আর তাকে ছাড়েনি। জগন্নাথপুরের কৃষ্টি সংস্কৃতির সাথে মিলেমিলে একাকার হয়ে যাওয়া মানস রায়ের ওপর নেতৃত্বের বোঝা ক্রমশ বাড়তে থাকে। সাংস্কৃতিক অঙ্গনে দীর্ঘদিনের নেতৃত্ব তাঁকে এ উপজেলার সংষ্কৃতিক সিংহাসনে বসায়। অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক চেতনা লালণকারী মানস রায়কে সকল সংকটময় প্রেক্ষাপটে অগ্রনী ভুমিকা রাখতে দেখা যায়। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে রাজপথে গনজাগরন মঞ্চ গঠন করে আন্দোলনের নেতৃত্বের কথা ভুলার নয়।
মানস রায়ে সৃষ্টি দু .কুলে নদী ভাঙ্গন টেলিফিল্ম হয়েছিল। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দুই বিঘা জমিতে অসাধারণভাবে নাট্যরূপ দিয়ে তিনি জাতীয় পর্যায়ে সুনাম অর্জন করেছেন। তাঁর লেখা সিংহাসন নাটকটি মঞ্চায়িত হয়েছে একাধিকবার। বাংলাদেশ টেলিভিশন,বেতারে তাঁর নাটক প্রচারিত হয়েছে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ বেতার সিলেট কেন্দ্রের নিয়মিত নাট্যকার ও নাট্যশিল্পী হিসেবে কাজ করে গেছেন। অসংখ্য সাংস্কৃতিক কর্মী গড়ে তোলার কারিগর মানস রায়কে তাঁর সহকর্মীরা অনন্তকাল মনে রাখবে মনের মনিকোটায়। তাঁর হাত ধরে বিকশিত হয়ে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী,আবৃত্তি,নৃত্যর চর্চা,মঞ্চায়িত হয়েছে অসংখ্য মঞ্চ নাটক।
গত ২৬ মে দুপুরে মানস রায়ের মৃত্যুর সংবাদে জগন্নাথপুরবাসীর মতো কেঁদেছিল প্রকৃতি। বৃষ্টিতে ভেজে শোকার্ত মানুষ সমবেদনা জানাতে জড়ো হতে থাকেন। তাঁর মরদেহ জগন্নাথপুর শহীদ মিনারে পৌঁছতেই বৃষ্টি থেমে রৌদের দেখা। বিভিন্ন সংগঠনের ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন ও তাঁর কর্মময় জীবনের গুন কির্তন যেন শেষ বিকেলের রৌদ। বিনম্র শ্রদ্ধা। পরপারে ভাল থাকুন দাদা…!
লেখক-অমিত দেব সম্পাদক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24