বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

সুনামগঞ্জে দূর্নীতির বিরুদ্ধে আবেদন

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৪৮ Time View

সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জন অফিস ও সদর হাসপাতালের দুর্নীতি’র প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করা হয়েছে। হাসপাতালে দুর্নীতি দমন ও সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ কমিটি জেলা প্রশাসকের নিকট এ ব্যাপারে লিখিত আবেদন করেছে। সংগঠনের সদস্যদের স্বাক্ষর সংবলিত স্মারকলিপিকে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ডিজিটাল টেকনোলজি বন্ধ রেখে রোগীদের পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য বাইরের ক্লিনিকে পাঠানো হয়। যা থেকে মাসোহারা পান সিভিল সার্জন। ২০১৭ সালের পর থেকে আর রোগী কল্যাণ সংস্থার সভা হয় নি। নব নির্মিত হাসপাতাল ভবনের যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্রের পঁচিশ কোটি টাকার কাজ তাঁর নিয়ন্ত্রণাধীন সি-িকেট পেয়েছে। এখানে দুর্নীতি আছে। নতুন ভবনের সামনের গোল চত্বরের জন্য আড়াই লাখ টাকার ফুল গাছ ক্রয় করা হয়। কিন্তু বাস্তবে ফুল গাছের কোন অস্তিত্ব নেই। পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য প্রতিবছর ১৫ থেকে ১৮ লাখ টাকা উত্তোলন হয়। কিন্তু কিছুই পরিস্কার হয় না। ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার জন্য ১০ লাখ টাকা আসলেও টাকার কোন হিসাব নেই। বর্তমান সিভিল সার্জন ডা. আশুতোষ দাস দায়িত্ব নেবার পর ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে যে দরপত্র হয়েছিল খাদ্য, ওষুধ, ধোপা ও স্টেশনারীতে এরপর আর কোন দরপত্র হয় নি। পূর্বের দরপত্র দাতারাই মালামাল সরবরাহ করছেন। আউট সোর্সিং দরপত্র এবং নিয়োগেও দুর্নীতি হয়েছে। যা থেকে সিভিল সার্জন লাভবান হয়েছেন।’
সিভিল সার্জন ডা. আশুতোষ দাস এসব অভিযোগকে মিথ্যা-কাল্পনিক উল্লেখ করে বলেন, এই অভিয়োগ জনসম্মুখে আমার এবং সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা মাত্র। হাসপাতালের টেকনেসিয়ান দিয়ে যে সব পরীক্ষা করা সম্ভব, সবই হচ্ছে। এক্সরে টেকনেসিয়ান ও প্যাথলজিস্ট এখানে নেই। হাসপাতালের প্রশাসনিক বিষয় আমি দেখি, চিকিৎসা বিষয় সহ অন্যান্য সকল বিষয়ের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট সকলের উপরই বর্তায়। হাসপাতালের সরবরাহের দরপত্র প্রতিবছরই হয়, এবারও দরপত্র কমিটি দরপত্র আহ্বান করেছে। আমি এই কমিটির সদস্য নয়। দরপত্র কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ঠিকাদার নিয়োগ হয়। আউট সোর্সিংয়ের নিয়োগে দুর্নীতি হয় নি। দুদকও এই বিষয়ে তদন্ত করেছে। রোগী কল্যাণ সংস্থার সভাও প্রতিবছরই হয়। আসবাবপত্রের দরপত্র ইজিবিতে আহ্বান করা হয়েছে। পত্রিকায় দেওয়া হয়েছে। দরপত্র কমিটিও ছিল, কীভাবে দুর্নীতি হয়েছে আমার জানা নেই। ফুলগাছ কেনার এক টাকাও আমি পাই নি। ডেঙ্গুর ১০ লাখ টাকা সরকারি কোষাগারেই আছে। ২০-২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তাও এখনো উত্তোলন হয় নি। মাসোহারা নেবার অভিযোগ মানহানিকর, যারা এই শব্দ ব্যবহার করেছেন, তারা কী তা প্রমাণ করতে পারবেন?
জেলা প্রশাসকের নিকট দেওয়া লিখিত অভিযোগে সিভিল সার্জন অফিসের কীট তত্ত্ববিদ আনসারুল হক বাবু ও স্টোর কিপার মধূসুদন এবং অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী মানবেন্দু এর কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, তারা ২৫ বছর হয় একই কর্মস্থলে আছেন। আনসারুল হক বাবু, মধুসুদন এবং মানবেন্দু সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের সামনে ১৭ শতক জমি নিয়ে ফার্মেসী করেছেন। আলফা ডায়গনস্টিক সেন্টারে তাঁদের শেয়ার রয়েছে। কাজীর পয়েেেন্টর কুটুমবাড়ি রেস্টুরেন্ট, আনিসা হেলথ কেয়ার, হেলথ কেয়ার পলি ক্লিনিক, হিউম্যান ল্যাবের পরিচালক আনসারুল হক বাবু, মধূসুদন ও মানবেন্দু। এই তিনজনেরই কোটি টাকার আলিশান বাড়ি আছে। গত ২০ বছর হয় নামে বেনামে তারা সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ওষুধ সরবরাহ করছেন।
কীটতত্ত্ববিদ আনসারুল হক বাবু জানালেন, আমার কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নেই। আমি কোন কিছু’র পরিচালকও নই। আমার বাবার দেওয়া বাড়িতেই আমি আছি। সদর হাসপাতালে ওষুধ দেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে আমাকে হেয় করার জন্য। আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য গুটি কয়েক লোক এসব অপপ্রচার করছে।
স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মচারী মধুসুদন তালুকদারও (আবেদনে যার নাম কেবল মধুসুদন লিখা হয়েছে) বলেন, অভিযোগ অসত্য, কাল্পনিক, যা কেউ প্রমাণ করতে পারবেন না। মানবেন্দ্র কুমার দাস (যার নাম আবেদনে মানবেন্দু লিখা হয়) দেড় বছর আগে অবসরে চলে গেছেন।
জেলা প্রশাসকের কাছে দেওয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের হেডক্লার্ক ইকবাল হোসেন এবং তার স্ত্রী হাসপাতালের হিসাব রক্ষক রেহেনা বেগম একই কর্মস্থলে ১৫ বছর যাবৎ আছেন। হাসপাতালের সামনে ১০ শতাংশ জমির উপর দ্বিতল ভবন (রাফি টাওয়ার) নির্মাণ করে মার্কেট করেছেন। হাছননগরে এক কোটি টাকা ব্যয়ে কমিউনিটি সেন্টার করেছেন। একই মহল্লায় ৩ তলার আলিসান বাড়ি আছে তার। এছাড়া মেডিকেল সার্টিফিকেট, পোস্টমর্টেম, ভিকটিম সার্টিফিকেট নার্সদের বদলী সব কিছুতেই বখরা আদায় করেন হেডক্লার্ক ইকবাল।
হেডক্লার্ক ইকবাল হোসেন বলেন, হাসপাতালের সামনের মার্কেটের একাংশ আমার স্ত্রী’র নামে করা। এটি ব্যাংক ঋণ এবং জিপি ফা-ের তহবিল থেকে ঋণ নিয়ে করা। আমার কোন কমিউনিটি সেন্টার নেই। বাড়ি আমার পৈতৃক সম্পত্তি। আমার মানহানির জন্য এসব অভিযোগ করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ জানিয়েছেন, তিনি এ ধরণের একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
অন্যদিকে, সিভিল সার্জন ও সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক কিছু সংখ্যক দুস্কৃতিকারী ও সন্ত্রাসী লোকজন সরকারি কাজে বাধা প্রদান এবং সাইনবোর্ড সর্বস্ব সংগঠনের ব্যানারে হাসপাতালের ডাক্তার কর্মচারীগণকে হুমকী ধামকি দিচ্ছে উল্লেখ করে গত ২২ আগস্ট পুলিশকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন। তিনি এই আবেদনে হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেন।
প্রসঙ্গত. একই ধরনের অভিযোগ এনে এর আগে হাসপাতালে দুর্নীতি দমন ও সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ কমিটি তিন দফা মানববন্ধন করেছে। গত সোমবার শহরের আলফাত স্কয়ারে মানববন্ধন করতে চাইলে ছাত্রলীগ বাধা দেয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24