মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টেক পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজের প্রধান সহকারীর বিরুদ্ধে মাস্টারোল কর্মচারীদের মজুরী পরিশোধে অনিয়মের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০১৬
  • ৪১ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজে দৈনিক মজুরী ভিত্তিতে কর্মরত মাস্টাররোল কর্মচারীদের বেতন পরিশোধে হয়রানী ও গড়িমশি করার অভিযোগ উঠেছে প্রধান সহকারী তৈয়ব আলীর বিরুদ্ধে। গত ৪ঠা জানুয়ারী ভূক্তভোগী কর্মচারীদের এক প্রতিবাদ সভায় এ অভিযোগ উত্থাপন করা হয়। কর্মচারী সংগঠনের সভাপতি সুজন আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা বলেন,সাবেক অধ্যক্ষ মাসে ৩০ দিনের নিয়মিত দায়িত্ব ধরে সকল কর্মচারীদেরকে নিয়মিতভাবেই বেতন দিতেন। কিন্তু তৈয়ব আলী ইদানিং ক্ষমতার অপব্যবহার করত: কর্মচারীদেরকে মাসে ২৫/২৬ দিন ধরে কম বেতন দেওয়ার পাশাপাশি প্রতিমাসের ১০/১২ তারিখে অনিয়মিতভাবে বেতন ভাতা পরিশোধ করে যাচ্ছেন। ১৫ বছর যাবৎ একাধারে কর্মরত কর্মচারীদের নিয়োগ বৈধ ও স্থায়ীকরনে সহযোগীতা না করে ২/৩ বছর ধরে কর্মরত কোন কোন প্রতিভূ কর্মচারীদেরকে নিয়োগ অনুমোদনে বিশেষভাবে সহযোগীতা করছেন। সুনামগঞ্জের কর্মস্থলে দূর্নীতি করে দূর্নীতির টাকায় নিজ বাড়ি গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বর এলাকায় মাল্টিষ্টরিড ভবন নির্মান করেছেন। ইতিপূর্বেও তার অনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে সংবাদপত্র ও শহর মুখরিত ছিল। সরকার কর্তৃক ধার্য্যকৃত নির্ধারিত মজুরীর টাকা যথানিয়মে সময়মতো পরিশোধের দাবীতে বিক্ষোব্ধ কর্মচারীরা প্রধান সহকারীর অফিস ঘেরাও করেন। ঘেরাও কর্মসুচি চলাকালে প্রধান সহকারী তৈয়ব আলী আন্দোলনরত কর্মচারীদেরকে চাকুরী বাতিল করে দেয়ার হুমকী দেন। এসময় মাস্টাররোল কর্মচারীরা সার্বক্ষনিকভাবে দায়িত্ব পালন করার পরও কেন তাদের সাথে বৈষম্যমূলক আচরন করছেন জানতে চাইলে অভিযুক্ত সহকারী তাদেরকে গালিগালাজ করেন। পরে কলেজের অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ তৈয়ব আলীকে মৌখিকভাবে দোষারুপ করে সরকারী নিয়ম অনুযায়ী সঠিক সময়ে মজুরী পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিলে আন্দোলনরত কর্মচারীরা তাদের ঘোষিত ঘেরাও কর্মসুচি স্থগিত করেন। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে অধ্যক্ষ প্রপেসর মোঃ আব্দুস সাত্তার বলেন,অডিট আপত্তির জন্য আমরা সকল কর্মচারীদেরকে সমানভাবে মজুরী দিতে পারিনা। নাইড গার্ডরা শুক্রবার রাতেও কাজ করে বিধায় ৩১ দিনে মাস হলেও পূরো মাসেরী মজুরী পাবে। অন্যরা শুক্রবার অফ ডে কাজ না করলে বা কাজ না থাকলে পুরো মাসের বেতনের বদলে শুধু তাদের ওয়ার্কিং ডে বিবেচনায় মজুরী পাবে। কাজ নাই মজুরী নাই এই বিধানকে কর্মচারীরা মানতে নারাজ। কিন্তু তাদেরকে বুঝতে হবে তারা নিয়মিত সরকারী চাকুরীজীবী নয়। মাস্টাররোল কর্মচারীদেরকে ছাত্রছাত্রীদের পরিশোধিত টাকা থেকে বেতন দিতে হয়। আমাদের ছাত্রসংখ্যা মাত্র ৬ হাজার আর মৌলভীবাজার সরকারী কলেজে এর চাইতে অনেক বেশী। আমরা ইচ্ছে করলেই আমাদের কর্মচারীদেরকে মৌলভীবাজারের মতো বেশী বেতন দিতে পারবোনা। পাশাপাশি দরিদ্র এলাকার ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করতে পারবোনা। সরকারী নিয়ম ও সমস্যাটি মাস্টাররোল কর্মচারীদেরকে বুঝতে হবে। তিনি আরো বলেন,তৈয়ব আলী অতীতে কোন অনিয়ম করে থাকলে সেটি আমার জানা নেই। ভবিষ্যতে কোন অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যাবস্থা নেয়া হবে। জানা যায়,নৈশ প্রহরী,এমএলএসএস,ইলেক্ট্রিশিয়ান ও কম্পিউটার অপারেটরসহ সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজে প্রায় ২১জন মাস্টাররোল কর্মচারী রয়েছে। এদের মধ্যে সর্বনি¤েœ ১৮০ টাকা হতে সর্বোচ্চ ৩২০ টাকা হিসেবে বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে দৈনিক মজুরী ধার্য্য আছে। এসব কর্মচারীদেরকে কখনও মাসের ১০ আবার কখনও ১২ বা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন তারিখে মাসিক নিয়মে অনিয়মিতভাবে মজুরী দেয়া হয়। এদের মধ্যে সুজন আলীসহ অনেক মাস্টাররোল কর্মচারী আছেন যারা আজোবদি স্থায়ী নিয়োগ লাভের সুযোগ থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। অধ্যক্ষ বলছেন বিভিন্ন সময়ে সরকার মাস্টাররোল কর্মচারীদের নিয়োগ অনুমোদন করে থাকেন। আমরা তাদের যোগ্যতা দক্ষতা ও জেষ্টতা অনুযায়ী নিয়োগ অনুমোদনের জন্য কর্তৃপক্ষ বরাবরে সুপারিশ করে থাকি। এদিকে জেষ্টতা ও নিয়মের ভিত্তিতে মাস্টাররোল কর্মচারীদের নিয়োগ অনুমোদন এবং তাদের মজুরী নিয়মিতভাবে পরিশোধের বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে মানবিক বিবেচনায় এনে উপযুক্ত প্রতিকারের দাবী জানিয়েছেন সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি খায়রুল হুদা চপল, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি শিক্ষিকা ফৌজিআরা বেগম শাম্মী,সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক আল-হেলাল,পৌর শাখার সভাপতি জাকারিয়া জামান তানভীর ও সাধারন সম্পাদক শাকিল আহমদসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রতিনিধিবর্গ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24