1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৫:০৭ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে ‘ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেট’ সেজে প্রতারণার চেষ্ঠা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১৪৫ Time View
বিশেষ প্রতিনিধি::
আমি ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর সুনামগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বলছি, আপনাদের বাজারে অভিযানে আসছি। আপনি বিকাশে আমাকে ৫০ হাজার টাকা পাঠিয়ে দিন। অন্যতায় আপনার দোকান এবং ফ্যাক্টরী সিলগালা করে দেয়া হবে।
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে  সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা সদরের জগন্নাথপুর বাজারের এক ব্যবসায়ী কে মোবাইল ফোনে এসব বলা বলেন তিনি। একইভাবে বাজারের আরও কয়েকজন কে অনুরূপভাবে কল দিয়ে টাকা দাবি করেছেন ওই ব্যক্তি।
ব্যবসায়ীরা জানান, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আতিয়ার রহমান নাম পরিচয় দিয়ে মোবাইলে ফোনে ( ফোন নং ০১৯১৫৬৬৬৪৯৯)  পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র কে জানায়, জগন্নাথপুর বাজারে ভোক্তা আইনে তারা অভিযানে আসছেন। তাদেরকে সহযোগিতা করার জন্য। পরে পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক বিপলু রঞ্জন সরকারের নিকট থেকে বাজারের কয়েকজন মিষ্টি দোকানের মালিকদের নাম ও মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে। এদিকে অভিযানের খবর বিপলু রঞ্জন সরকার
কয়েকজন ব্যবসায়ীকে জানান।
জগন্নাথপুর বাজারের রিচমুন কনফেকশনারীর মালিক মিন্টু রঞ্জন ধর বলেন, দুপুর ১২ টা ১৯ মিনিটে ০১৯১৫৬৬৬৪৯৯ নম্বর মোবাইল ফোন থেকে সুনামগঞ্জের ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আতিয়ার রহমান পরিচয় দিয়ে আমাকে কল করে বলেন, আমরা অভিযান আসছি। ভেজাল পন্য রাখার অভিযোগে ৬ মাস আপনার ফ্যাক্টরী বন্ধ করে দেয়া হবে। ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে। এজন্যে বলছি, আমাকে ৫০ হাজার টাকা বিকাশে পাঠিয়ে দিলে আমি আপনার এখানে আসব না।  একজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পরিচয় দিয়ে সরাসরি উৎকোচ চাওয়ার আমার সন্দেহ হয়। পরে আমি ঢাকা, সিলেট ও সুনামগঞ্জের ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরে যোগাযোগ করে জানতে পারি এই নামে কোনো নেই তাদের। সে প্রতারক হবে। এরপর থেকে ওই প্রতারকের মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়।
জগন্নাথপুর পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক বিপলু রঞ্জন সরকার জানান, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পরিচয় দেওয়ায় প্রথমে বুঝতে পারিনি। পরে জানতে পারলাম সে একজন প্রতারক।
জগন্নাথপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র শফিকুল হক জানান, বিষয়টি আমি জগন্নাথপুরের ইউএনওকে অবহিত করেছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহেদী হাসান জানান, এ বিষয়ে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়রকে বলেছি।
সুনামগঞ্জের ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, আতিয়ার রহমান নামে কোন লোক নেই আমাদের। লোকটি প্রতারক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com