রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

আব্দুস সামাদ আজাদ বেঁচে আছেন স্বমহিমায়

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৭৯ Time View

অমিত দেব:: আব্দুস সামাদ আজাদ এক কিংবদন্তী রাজনীতিবীদের নাম। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া লদিপুর ইউনিয়নের শেষ সীমান্ত নলুয়া হাওর পাড়ের ভূরাখালি গ্রামে জন্মগ্রহন করেন এই বরণ্য রাজনীতিবীদ। ১৯২২ সালের ১৫ জানুয়ারী শরিয়ত ঊল্যা ও সুরজাহান বিবি দম্পতির গর্ভে তাঁর জন্ম। ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল ক্ষনজন্মা এই রাজনীতিবীদ আমাদের ছেড়ে চলে যান না ফেরার দেশে। মৃত্যুর১১ বছর পরও তাঁর রাজনৈতিক শুন্যতা পূরন হয়নি। এখনো তাঁর নামে তার প্রিয় সংগঠন আওয়ামীলীগের কমীরা সামাদ গ্রুপ বলে নিজিদের অসিত্ব ঠিকিয়ে রেখেছেন। কতটুকু প্রভাব প্রতিপত্তি আর ভালবাসা থাকলে মৃত্যুর এক যুগ পরও স্বমহিমায় বেঁচে থাকে মানুষ রাজনৈতিক অঙ্গনে সামাদ আজাদই তাঁর বড় প্রমাণ। সামাদ আজাদ জীবদ্দশায় তাঁর পরিবারের কাউকে রাজনীতিতে শক্তিশালী অবস্থানে রেখে যেতে পারেননি। প্রতিটি রাজনীতিবীদই চান তাঁর আপনজন কেউ মৃত্যুর পর তাঁর রাজনৈতিক উত্তরসূরী হোক। প্রয়াত জাতীয় এ নেতার ক্ষেত্রে বিষয়টি ব্যতিক্রম। আব্দুস সামাদ আজাদ জীবদ্দশায় স্বমহিমায় রাজনৈতিক অঙ্গনে দাপটের সহিত কর্মকান্ড চালিয়ে যান। কেন্দ্র থেকে শুরু করে তৃণমুল পর্যন্ত অনেক নেতাকে তিনি প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন রাজনীতিতে। ধারনা করা হয়েছিল মৃত্যুর পর সব তছনছ হয়ে যাবে। কিন্তুু এই মহান নেতার মৃত্যুর ১১ বছর পরও স্বমহিমায় উদ্ভাসিত। যার প্রমাণ পাওয়া যায় বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার ছেলে আজিজুস সামাদ ডন আওয়ামীলীগের প্রাথীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র নির্বাচনে অংশ নিয়ে শুধু মাত্র আব্দুস সামাদ আজাদের নামে নির্বাচনে ব্যাপক সাড়া জাগিয়ে সন্মানজনক ভোট পান। এ কথা জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জের মানুষ অবশ্যই স্বীকার করবেন গত নির্বাচনে আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে হিসেবে আজিজুস সামাদ ডন এত ভোট পেয়ে সাড়া জাগিয়েছিলেন। রাজনৈতিক অঙ্গনে অনেক শুন্যতা দেখা যায় এখনো আব্দুস সামাদ আজাদের নামে গ্রুপ চালিয়ে জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ, সিলেট ও কেন্দ্রে অসংখ্য নেতাকর্মী ঠিকে আছেন। আব্দুস সামাদ আজাদ কমীদের ভালোবাসতেন। ভালবাসতেন আওয়ামীলীগকে তাইতো আজো আওয়ামীলীগের শত শত কমী তাকে শ্রদ্ধা চিত্তে স্মরণ করেন।

তিনি দিরাই উপজেলার একটি বিদ্যালয়ে গিয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সমপন্ন করেন। পরে জগন্নাথপুর উপজেলার সর্ব প্রথম প্রতিষ্ঠিত পাইলগাঁও বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। পরে উপজেলা সদরের স্বরূপ চন্দ্র সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে কিছুদিন অধ্যায়ন করে সুনামগঞ্জ জুবলি স্কুল থেকে মেট্রিক পাস করেন। ১৯৪৮ সালে সিলেট এম.সি কলেজ থেকে স্মাতক ডিগ্রী লাভ করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পেশায় ভর্তি হয়ে কৃতিত্বের সহিত প্রথম পার্ট সমপন্ন করলেও রাজনৈতিক কারণে ফাইনাল পরিক্ষায় অংশ নিতে পারেননি। বরণ্য এ রাজনীতিবীদের রাজনৈতিক দ্বায়বোধের স্পষ্ট পরিচয় পাওয়া যায় তাঁর স্কুল ও কলেজ জীবনের কর্মকান্ডে। ১৯৪০ সালে সুনামগঞ্জ মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহনের মাধ্যমে সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। একজন রাজনীতিবীদ হিসেবে জগন্নাথপুর,দিরাই, নবীগঞ্জ, বানিয়াচং, নিয়ে গঠিত বাল্লা অঞ্চলের সুরমা ভ্যালী কিষাণ কনফারেন্সে প্রখ্যাত রাজনীতিবীদ জ্যোতি বসু,করুনা সিন্ধু রায়, পীর হবিবুর রহমান,সাথে যোগ দিয়ে এলাকার অধিকার আদায়ে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ১৯৫২সালের ভাষা আন্দোলন,১৫৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের নৌকা প্রতিক নিয়ে এম এল এ নির্বাচিত হন। এবং ওই সময় আওয়ামীলীগে যোগ দিয়ে কেন্দ্রীয় শ্রম সম্পাদক নিযুক্ত হন। এসময় কেন্দ্রীয় সরকার তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত ষোষনা করায় গ্রেফতারী পরোয়ানা মাথায় নিয়ে পালিয়ে বেড়ান। ১৯৫৮ সালের ২৮ জুন পাবনার শাহাজাদপুর উপজেলার খাসাতবাড়ীয়া গ্রামের কাজীম উদ্দিন সরকারের মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহিলা হল বর্তমান রোকেয়া হলের প্রথম নির্বাচিত মহিলা ভিপি নূরুন নাহার বেগমকে বিয়ে করেন। ঔই বছরের ২৭অক্টেবর আইয়ূব খানের সামরিক আইন জারীর পর আওয়ামীলীগ নিষিদ্ধ ঘোষনা করা হলে ফের গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী হয়। এবং গ্রেফতার হন। ১৯৬২ সালে তিনি জেল থেকে মুক্তি পান। ১৯৬৪ সালে তাঁর জীবনে আবারও কারাবন্দিত্বের পূনরাবৃত্তি ঘটে। মুক্ত হয়েই রাজনৈতিক সংগ্রামে সক্রিয় হন। ছয়দফা আন্দোলন,১৯৬৯ গণঅভ্যূথ্্যান ১৯৭০ সালে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে সুনামগঞ্জ জেলার দু’টি আসন থেকে নির্বাচন করে জাতীয় পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্ব জনমত গঠনে ছুঁঠে বেড়ান। যা বাঙ্গাঁলীর জীবনে চীরকাল স্মরণযোগ্য
এলাকার উন্নয়নে তাঁর আন্তুরিকতার প্রমাণ পাওয়া যায় জীবনের শেষ সায়েহ্নে এসে এলাকার উন্নয়নে কাজ তদারকি করতে। তাঁর পুত্র আজিজুস সামাদ ডন বলেন আমার পিতা মৃত্যু শয্যায় থেকেও এলাকার উন্নয়নের কথা ভাবছেন জোট সরকারের শাসনামলে তাঁর শুরু করা কাজ গুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তিনি দুঃখ প্রকাশ করে হাসপাতালে চারদলীয় জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রি বেগম খালেদাজিয়াসহ মন্ত্রিরা তাকে দেখতে গেলে তিনি কাজগুলো চালুর দাবী জানান। যার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হলো পাগলা-জগন্নাথপুর আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়ক ও আধুনিক অডিটরিয়াম নির্মাণ কাজ। যদিও আব্দুস সামাদ আজাদের সেই স্বপ্নগুলো জোট সরকার বাস্তবায়ন করেনি। কিন্তুু তাঁর আসনের সংসদ সদস্য আরেক সৎ সজ্জন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বর্তমান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান সেই স্বপ্নগুলো পূরন করেছেন। আব্দুস সামাদ আজাদের স্মৃতিগুলো স্মরন করতে তাঁর নামে অনেক কিছুর নাম করণ করতে কাপুন্য করেননি। স্বমহিমায় তুলে ধরেছেন জাতীয় এই নেতাকে। আব্দুস সামাদ আজাদ এর জীবদ্দশায় যার সাথে রাজনৈতিক সর্ম্পক ছিল সাপে নেউলে আরেক ভাটি বাংলার জাতীয় নেতা সুরিঞ্জত সেন গুপ্তের রাজনৈতিক কার্যক্রম যেন মলিন হয়ে যায়। সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর এই নেতার দাপটও কমতে থাকে। এ প্রতিবেদককে তিনি বলেছিলেন আব্দুস সামাদ আজাদ আমারও নেতা। আমরা তাঁর অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে কাজ করছি। তিনি আব্দুস সামাদ আজাদকে ভাটি বাংলার অহংকার হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন।

আব্দুস সামাদ আজাদের ঘনিষ্ট সহচর প্রবীণ রাজনীতিবীদ সিদ্দিক আহমদ বলেন, তাঁর মতো রাজনীতিবীদ ইতিহাসে বিরল। তিনি সারা জীবন অসাম্প্রদায়িক চেতনা বাস্তবায়নে মানুষের জন্য রাজনীতি করছেন। আমরা তাকে শ্রদ্ধাচিত্তে স্মরণ করি। উল্লেখ্য ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল বার্ধ্যক্যজনিত কারণে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুদিনে তাঁর স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24