শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কলকলিয়া ইউনিয়ন আ,লীগ সেক্রেটারী দীপাল বাবুর শ্রাদ্ধ আজ

জগন্নাথপুর ভূমি অফিস জনবান্ধব অফিসে রুপান্তর অনন্য দৃষ্টান্ত হতে পারে দেশব্যাপী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০১৬
  • ১৫৮ Time View

বিশেষ প্রতিবেদক:: জগন্নাথপুর উপজেলার ভূমি অফিসে আমুল পরির্বতন এসেছে বদলে গেছে ভূমি অফিসের সেবা প্রদানের নমুনা। ভূমি আইন জানুন নিজের ভূমি নিজে রক্ষা করুন শ্লোগানে চলছে বদলে যাওয়ার তৎপরতা। আর এতে করে কাজে এসেছে গতিশীলতা। মাত্র ৫ মাসে ভূমি অফিসের সেবাপ্রদানের নমুনা বদলে দেয়ার নায়ক উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি বিশ্বজিত কুমার পাল। তিনি যোগদান করার পর থেকে অফিসের ভিতর ও বাহিরকে সাজিয়েছেন জনবান্ধন করে। প্রতিটি স্তরে সচেতনতা সৃষ্টিতে প্রচার করা হয়েছে ভূমি আইন বিষয়ে। ভূমি অফিসের মূলমন্ত্র নির্ধারন করা হয়েছে ‘ভূমি বিষয়ক সমস্যা আপনার,সমাধানের দায়িত্ব আমাদের’। নিশ্চিত করা হয়েছে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা। বিষয়টি ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে ভূমি মালিকদের মধ্যে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ভূমি অফিসের এক পাশে ফুলের বাগান ও অপর পাশে সবজি বাগান করা হয়েছে। উপজেলা ভূমি অফিসের সুরম্য দ্বিতল ভবন, নীচতলা থেকে দু’তলা পর্যন্ত টপে বিভিন্ন জাতের ফুলের গাছ। প্রধান ফটকের সামনে সুন্দর একটি টিনশেড ঘর নাম ‘সেবা নিকেতন’ এই সেবা নিকেতনে সেবা নিতে আসা ভূমি অফিসের লোকজন বসে আছেন। ভূমি অফিসের প্রধান কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার ভূমি বিশ্বজিত কুমার পাল একে একে ভূক্তভোগীদের কথা শুনছেন,সমাধানের পথ দেখিয়ে সমাধান করে দিচ্ছেন।দ্বিতীয় তলায় ভূমি কর্মকর্তার দপ্তরে প্রবেশ করার আগেই চোখে পড়বে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকের সেই শ্লোগান ও ভূমি বিষয়ক সচেতনতামূলক নানা শ্লোগান। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার বদলে যাওয়া ভূমি অফিসের চিত্র এখন এরকমই। আরো দেখা যায় অফিসের সামনের দেয়ালে বড় করে লাগানো সিটিজের চাটার,সেখানে লেখা আছে জমির নামজারি করতে কত টাকা লাগে, খতিয়ান তুলতে কত টাকা লাগে, খাসজমি বন্দোবস্ত নিতে কী করণীয়, কোন বিষয়ে কার সঙ্গে কীভাবে যোগাযোগ করতে হবে এসব তথ্য। বারান্দায় রয়েছে হেলপ ডেস্ক। সেখানে একজন কর্মচারী বসে আগতদের তথ্য সহায়তা দেন।
কার্যালয়ের বিভিন্ন কক্ষের ওপরে কর্মচারীদের নাম, শাখার নাম, কার কাছে কোন সেবা পাওয়া যাবে তা মুঠোফোন নাম্বারসহ লেখা রয়েছে। কর্মচারীদের গলায় ঝুলছে পরিচয়পত্র।বন্টন করে দেয়া হয়েছে স্ব স্ব দায়িত্ব। প্রতিটি কক্ষে ছোট সাদা বোর্ডে কর্মচারীদের প্রতিদিনের কাজ লেখা। দিন শেষে এসি ল্যান্ড সেগুলো ধরে পর্যালোচনা করেন। একটি বড ডিসপ্লে বোর্ডে কোন ধরনের মামলার শুনানি কোন দিন, তা লেখা।

13119843_998804393530346_6629485029801295386_o-
সেবা গ্রহিতার সেবার পূর্ণ বিবরণ। আছে অভিযোগ বক্স। অফিসের বারান্দায় কথা হয় জগন্নাথপুরের কান্দারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত এর সাথে তিনি বলেন,ভূমি অফিসে নামজারি করার জন্য এসেছিলেন। আগে যেখানে নামজারি করতে ৫ হাজার টাকা লাগত এখন তিনি শুধুমাত্র নির্ধারিত ফি দিয়েই নামজারি করতে পেরেছেন। তিনি বলেন, এই বদলে যাওয়া অব্যাহত থাকলে দেশটা এগিয়ে যাবে। শুধু এই মুক্তিযোদ্ধাই নন কথা হয় ভূমি অফিসে আসা এক প্রবাসীর সাথে। সৈয়দপুর গ্রামের প্রবাসী গোলাম রব্বানী বলেন, আমি প্রতি বছর দেশে আসি। দেশে আমার প্রচুর ভূসম্পত্তি রয়েছে। এবার দেশে এসে ভূমি অফিসে গিয়ে মনটা ভাল হয়ে গেছে। সুরম্য ভবনের পাশাপাশি কর্মকর্তা কর্মচারীদের ব্যবহার যেন বদলে গেছে। তার মতে আমরা প্রবাসীরা এরকম সেবাই আশা করি। ভূমি অফিস মানেই মধ্যম্বত্বভোগীদের বড় আস্তনা। তা এখন নেই বললেই চলে। প্র্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলা ভূমি অফিস মানেই ছিল এক সময় টাকা বানানোর কারখানা। অনেক কর্মকর্তা কর্মচারী চাকুরী জীবনে ভূমি অফিসকে আসতে চাইতেন। আর এখন কাজের চাপে অনেকেই অফিস ছাড়তে চান। রাত পর্যন্ত চলে অফিসের কাজ। ভূমি অফিসে স্থাপন করা হয়েছে সিসি ক্যামরা। লেখা রয়েছে সিসি ক্যামেরায় আপনার আগমন পর্যবেক্ষন করা হচ্ছে। তাই সেবাগ্রহিতা ছাড়া দালালদের আগমন কমে গেছে। অল্পদিনে এই বদলে দেয়ার নায়ক উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি বিশ্বজিত কুমার পাল নিজে অনেকটা প্রচারবিমুখ। অতি সম্প্রতি জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির সেবা নিকেতন উদ্বোধন করেন। নাম ফলকে তাদের নাম লেখা থাকলেও সহকারী কমিশনার ভূমির নাম নেই। কারণ জানতে চাইলে সহকারী কমিশণার ভূমি বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, আমি কাজের মধ্যে বেঁচে থাকতে চাই। উপজেলা ভূমি কার্যালয়ে সেবাদানের ক্ষেত্রে এই ইতিবাচক পরিবর্তনের কারিগর সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিশ্বজিত কুমার পালের বাড়ি ঢাকার কেরানীগঞ্জে।
তিনি গত কয়েক বছর ধরে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও দিরাই ভূমি অফিস দাযিত্ব পালন করে জগন্নাথপুরে এসেছেন মাত্র ৫ মাস হয়। অল্পদিনে ইতিবাচক বদলে যাওয়া উপজেলাবাসীর মন কেড়েছেন। শুধু সুরম্য ভূমি অফিসই নন ভূমি ব্যবস্থাপনা ও কাজে এনেছেন গতিশীলতা। সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলে অফিসের কাযক্রম।

2016-04-27 14.24.15p
জগন্নাথপুর উপজেলা ভূমি অফিসের রের্কডপত্রের অবস্থা ছিল করুন। এখন তিনি একটি রের্কডরুম তৈরী করে রের্কডপত্র সংরক্ষনের উদ্যোগ নেন। প্রতিটি মৌজার বই বাঁধাই করে সংরক্ষনের উদ্যেগ নেন। উপজেলার জন্য একটি কালার ম্যাপ তৈরী করেছেন। ভূমি ব্যবস্থাপনার জটিলতা নিরসনে অংশ ভিত্তিক নামজারির উদ্যোগ নিয়েছেন।এতে করে ভূমি জটিলতা কমে এসেছে। গত কয়েক বছরে নামজারির সংখ্যা বছরে ১৫০০ থেকে ১৮০০ হলেও এবার তা কমে এসেছে ৫৫০তে। কারণ জাল দলিল ও ভূল তথ্য দিয়ে এখন আর নামজারি করা যায়না। প্রায় দুই হাজার পুরাতন গুরুত্বপূর্ণ নথিকে সুবিন্যস্ত করে রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করে সংরক্ষন করা হয়েছে।
ইতিমধ্যে সমস্ত রেজিস্টার নির্ধারিত সরকারি ফরমে লাল সালু কাপড়ে বাঁধাই করে সংরক্ষণ ও হালনাগাদ
করা হয়েছে। নামজারি ও বিবিধ মামলার শুনানির তারিখ বাদী ও বিবাদীকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। উপজেলা ভূমি অফিসের একটি ওয়েবসাইট ও ডিজিটাল ফরমেট আর এস খতিয়ান করার পরিকল্পনা রয়েছে।
অফিস বদলে দেয়ার অর্থের উৎস হিসাবে জানতে চাইলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিশ্বজিত কুমার পাল জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বিদ্যমান সরকারী বরাদ্দ ও কর্মকর্তার ইচ্চাশক্তি ও জনগনের সেবা করার আকাঙ্খা থাকলে যে কোন কাজ একজন সরকারী কর্মকর্তা করতে পারেন । তিনি দাবি করেন একইভাবে পরিবর্তন এসেছে উপজেলার সকল ইউনিয়ন ভূমি অফিস গুলোতে ও, সিটিজেন চার্টার টাঙ্গানো হয়েছে । এসেছে পরিবর্তনের ছোঁয়া, নেয়া হয়েছে ভূমি উন্নয়ন কর আদায়ের উদ্যোগ। ভূমি মালিকদের উদ্ধুধ ও উৎসাহিত করার জন্য এ বছর ইউনিয়ন ভিত্তিক সর্বোচ্চ ভূমি উন্নয়ন কর দাতাকে সম্মাননা সনদ প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়।
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বুধবার ভূমি অফিস পরির্দশন করে বদলে যাওয়া সেবা প্রদানের ভূয়সী প্রশংসা করে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর ভূমি অফিস অন্যান্য উপজেলার জন্য মডেল হতে পারে। প্রশাসনকে জনবান্ধন হিসেবে জনগনের সেবায় কাজ করতে হবে। জগন্নাথপুর ভূমি অফিসের জনবান্ধবমূলক কর্মকান্ড অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করে সহকারী কমিশনার ‍ভূমি বিশ্বজিত কুমার পালের সফলতা কামনা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24