বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন

দেশের বিভিন্ন স্থানে পানিবন্দি মানুষ খাদ্য সংকটে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৫ জুলাই, ২০১৬
  • ৬২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::উজানের ঢল ও ভারি বর্ষণে বগুড়া, জামালপুর, সুনামগঞ্জ, ফরিদপুর, সিরাজগঞ্জ, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারীসহ কয়েক স্থানে বন্যাপরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। বন্যাদুর্গত এসব এলাকায় বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া নীলফামারীতে তিস্তার ভাঙনে ৪৬০টি পরিবারের ভিটেমাটি নদীর বুকে তলিয়ে গেছে। কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

বগুড়া : যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় পানি বেড়ে বিপত্সীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে সারিয়াকান্দি উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের প্রায় ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

এদিকে পানিবন্দি দুর্গত এলাকায় খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় দুর্গত এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সারিয়াকান্দি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সারওয়ার আলম জানান, উপজেলার ১২ ইউনিয়নের মধ্যে ৯টিতে বন্যার পানি ঢুকেছে। বন্যাকবলিত ইউনিয়নগুলো হলো চন্দনবাইশা, কুতুবপুর, হাটশেরপুর, সদর, কাজলা, কর্ণিবাড়ী, কামালপুর, চালুয়াবাড়ী ও বোহাইল। এসব ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

গতকাল শনিবার বন্যাকবলিত এলাকার দুই হাজার ৫০০ পরিবারের মধ্যে ২০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে। অবশিষ্ট এলাকার জন্য বরাদ্দ চেয়ে ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

জামালপুর : জামালপুরে যমুনার পানি বিপত্সীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় বন্যাপরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি হয়েছে। ইতিমধ্যেই ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ ও মাদারগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়ে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজপাঠক আব্দুল মান্নান জানান, বাহাদুরাবাদ ঘাট এলাকায় গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ১৭ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে ১৯.৭১ সেন্টিমিটার পয়েন্টে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বন্যাপরিস্থিতির ক্রমেই অবনতি হচ্ছে।

এদিকে নোযারপাড়া ইউনিয়নের রাজনগর, করিরতাইর, তাড়তাপাড়া, মাইজবাড়ী, কাজলা, কাঠমা এবং ব্রহ্মত্তর এলাকার প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এবং অধিকাংশ কৃষকদের পাট ও ধানক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। বন্যাকবলিতদের মধ্যে খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। বন্যাদুর্গত উপজেলাগুলোর নির্বাহী কর্মকর্তারা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সুনামগঞ্জ : পাহাড়ি ঢল ও বর্ষণে সুনামগঞ্জে প্রায় অর্ধ শতাধিক কমিউনিটি ক্লিনিক পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এতে বন্যাদুর্গত এলাকায় চিকিৎসাসেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

জানা গেছে, হাওর উপজেলার শাল্লা, দিরাই, জামালগঞ্জ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, ধর্মপাশা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও সদর উপজেলার অধিকাংশ কমিউনিটি ক্লিনিকের রাস্তা পানিতে ডুবে গেছে।

সুনামগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পাহাড়ি ঢল ও বর্ষণে বিভিন্ন উপজেলার অধিকাংশ কমিউনিটি ক্লিনিকের রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। তবে দুর্যোগ মোকাবিলায় এসব ক্লিনিকে কর্মরত সিএইসসিপিদের (কমিউনিটি হেলথকেয়ার প্রোভাইডর) প্রস্তত থাকতে বলা হয়েছে।

ফরিদপুর : ফরিদপুরের চরভদ্রাসনের তিনটি ইউনিয়নে গত কয়েক দিনে টানা বর্ষণে পদ্মা নদীতে তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে। গত চার দিনের ভাঙনে উপজেলার গাজীরটেক ইউনিয়ন, চরঝাউকান্দা ও সদর ইউনিয়নের প্রায় ৫০ একর পাট ও ধঞ্চে ক্ষেত পদ্মার বুকে বিলীন হয়েছে।

এ ছাড়া গাজীরটেক ইউনিয়নের জয়দেব সরকারের ডাঙ্গি গ্রামে পদ্মা নদীর তীর সংরক্ষণ বাঁধের সিসি ব্লক প্রায় ২০০ মিটার ধসে গেছে। আলিয়াবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফাজেলখাঁরডাঙ্গি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হুকুম আলী চোকদার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে।

সিরাজগঞ্জ : পাহাড়ি ঢল ও ভারি বর্ষণে যমুনা নদীর পানি বেড়ে সিরাজগঞ্জের নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের ২৪টি ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ। এ ছাড়া বেলকুচি ও চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুর, ব্রাহ্মণগ্রাম ও স্থলসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে দেখা দিয়েছে নদীভাঙন। বন্যাকবলিত এলাকার সাধারণ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে এসব এলাকার বেশির ভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের রৌমারী ও রাজীবপুর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ১৩৫ গ্রাম বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। এদিকে বন্যাকবলিত দুই উপজেলার ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ৪৫ টন চাল ও ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

দুই উপজেলার দায়িত্বে থাকা পিআইও (প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা) সাখাওয়াত হোসেন জানান, রৌমারীতে ৩০ টন চাল ও ৫০ হাজার টাকা এবং রাজীবপুরে ১৫ টন চাল এবং ২৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

নীলফামারী : নীলফামারীতে বন্যাপরিস্থিতির উন্নতি হলেও তিস্তার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। গতকাল শনিবার ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নে ৫০ পরিবারের ঘরবাড়ি নদীগর্ভে তলিয়ে গেছে। এ নিয়ে ওই ইউনিয়নে ভাঙনে ৪৬০টি পরিবার তাদের ভিটেমাটি হারাল।

টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম বলেন, নদীভাঙনের শিকার এসব পরিবারের মাঝে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চাল, ডাল, লবণ, তেল, দিয়াশলাই, মোমবাতি, চিড়া-মুড়িসহ প্রয়োজনীয় ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

গাইবান্ধা : অবিরাম বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে গাইবান্ধায় তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, করতোয় ও ঘাঘট নদীর পানি বেড়েছে। গত শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্রের পানি ১০ সেন্টিমিটার, ঘাঘট ৭ সেন্টিমিটার ও করতোয়া নদীর পানি ২৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে।

এতে সাঘাটা, ফুলছড়ি, সুন্দরগঞ্জ ও সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী ও চরাঞ্চলের প্রায় ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এসব এলাকার ২০টি প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঠদান বন্ধ রয়েছে।
সুত্র কালের কন্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24