মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের রথযাত্রার ইতিহাস

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৪ জুন, ২০১৭
  • ৬৮ Time View

সিদ্ধ মাধব দাস :: সনাতন ধর্মবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শ্রী শ্রী জগন্নাথদেবের রথযাত্রা প্রতি বৎসর আষাঢ় মাসের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে অনুষ্ঠিত হয়। রবিবার (২৫ জুন বাংলা ১০ আষাঢ়) রথযাত্রা শুরু হবে। শেষ হবে আগামী ৩ জুলাই উল্টো রথযাত্রা মধ্য দিয়ে। মানুষের মাঝে সম্প্রীতি শান্তি ও মৈত্রীর পরিবেশ গড়ে তোলার জন্যই শ্রী জগন্নাথ, বলদেব, সুভদ্রা মহারানীর বিগ্রহগণ উৎসব লগ্নে মন্দির থেকে রাজপথে সবাইকে দর্শন দানের জন্য বেরিয়ে আসেন।

আর্ন্তজাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ ইসকন প্রতিষ্ঠাতা আচার্য শ্রীল এ.সি. ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ ১৯৬৫ সালে তার গুরুদেবের নির্দেশে পাশ্চাত্যে কৃষ্ণভাবনামৃত প্রচারের জন্য আমেরিকায় গিয়েছিলেন। ১৯৬৭ সালে সানফ্রান্সিসকোতে শ্রীল প্রভুপাদ প্রথম রথযাত্রা মহোৎসব আয়োজন করেন। যে মহোৎসব আজ তার কৃপায় সারা পৃথিবী জুড়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

অনাদিনকাল থেকে পুরীতে প্রতিবছর রথযাত্রার মহোৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। সারা জগতের প্রভু হচ্ছেন শ্রী জগন্নাথদেব। ভক্তদের প্রমের বশবর্তী হয়ে তিনি নিজেকে রাজপথে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুমতি দিয়েছিলেন। শ্রী জগন্নাথ অত্যন্ত কৃপাশীল। যারা মন্দিরে জগন্নাথকে দর্শন করতে আসে না তাদের সবাইকে কৃপা আর্শিবাদ করতে তিনি মন্দির থেকে বেরিয়ে আসেন।

ভগবান জগন্নাথদেব হলেন শ্রীকৃষ্ণ স্বয়ং, যিনি জগতের নাথ বা জগদীশ্বর রুপে প্রকাশিত। বৃন্দাবন থেকে মহারাজ নন্দসূত শ্রীকৃষ্ণ তার দ্বরকালীলায় রত হলেন। সূর্যগ্রহন উপলক্ষে শ্রীকৃষ্ণ যখন কুরুক্ষেত্রে যান, তখন তার জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা বলরাম ও ভগিনী সুভদ্রা এবং দ্বারকা থেকে অনেকেই তার সঙ্গে গিয়েছিলেন। সেই সময় ব্রজবাসী ও সূর্যগ্রহন উপলক্ষে কুরুক্ষেত্রে গিয়েছিলেন। কুরুক্ষেত্রে বৃন্দাবনে গোপ-গোপীদের সাথে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সাক্ষাৎ হলো। ব্রজবাসী ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে তার বাল্যলীলাস্থল বৃন্দবনে ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিলেন। তারা তাকে রাজবেশে দেখতে চাইলেন না। তারা শ্রীকৃষ্ণকে বৃন্দাবনে ফিরিয়ে নিয়ে ব্রজের বেশে দেখতে চাইলেন এবং তার সাহচার্য পেতে উন্মুখ হলেন। তখন ব্রজবাসী কৃষ্ণ, বলরাম ও সূভদ্রা দেবীর রথের ঘোরা ছেড়ে দিয়ে নিজেরাই রথ টানতে টানতে বৃন্দাবন নিয়ে গেলেন। সে ঘটনা স্মরণ করে ভক্তরা আজো পুরীর জগন্নাথ মন্দির থেকে ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে রথে টেনে বৃন্দাবনে নিয়ে যান।

দ্বারকা রাজ্য যেমন শ্রীকৃষ্ণের ঐশ্বর্যলীলার স্থান, বৃন্দাবন তেমনি মাধুর্যলীলার স্থল। এই হচ্ছে রথযাত্রার ইতিহাস। শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভূ ভাবতেন ‘কৃষ্ণ কতদিন ধরে আমি তোমাকে দেখতে চেয়েছি’। আর এখন আমি তোমাকে দর্শন করছি। শ্রীল প্রভূপাদ বলেছিলেন, বা পাশে একদল, ডান পাশে একদল, সামনে একদল এবং পেছনের দিকে একদল আর শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভূ মাঝখানে থাকতেন। তারা সবাই নাচতেন এবং কীর্ত্তন করতেন। রথযাত্রার সময় ভগবান শ্রী জগন্নাথ দেব স্বয়ং আমাদের সামনে উপস্থিত হন। তাই এটি এমনই সুন্দর সুযোগময় একটি উৎসব যার মাধ্যমে আমরা ভগবানের প্রতি আমাদের হৃদয়ের ভক্তি ও প্রেম নিবেদন করতে পারি। রথযাত্রার দিন রথরূঢ় পরমেশ্বর ভগবান শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেব, বলদেব ও সুভদ্রা দেবিকে দর্শন করে আপনার হৃদয়ের ভক্তি নিবেদন করুন। রথের রশি ধরে টানুন। আপনার মানব জন্মকে স্বার্থক করে তুলুন। রথযাত্রা উৎসবে অংশ নেয়ার মানে হল আত্মোপলব্ধির পথে এক ধাপ অগ্রসর হওয়া। রথযাত্রার শ্রীকৃষ্ণের অন্যতম লীলা।

এই উৎসবে অংশ নেয়ার অর্থ হলো সরাসরি কৃষ্ণের সংস্পর্শে আসা। যারা মন্দিরে এসে ভগবানকে দর্শন করেন না, তাদেরকে দর্শন দেয়ার জন্য ভগবান জগন্নাথদেব ভক্ত পরিবেষ্ঠিত হয়ে নিজেই পথে বের হন। রথোপরি ভগবান জগন্নাথদেবের একবার দর্শনেই জন্ম-মৃত্যুর পুনরাবর্তন রোধে অগ্রগতি লাভ হয়। কেউ যদি রথের রশি ধরে টানে বা রথ স্পর্শ করে অথবা রথোপবিষ্ঠ বিগ্রহকে দর্শন করে, তাহলে তার মুক্তি সুনিশ্চিত। এই জন্ম-মৃত্যুর চক্র থেকে অব্যাহতি লাভ করতে হৃদয়ে অবস্থিত সুপ্ত কৃষ্ণভক্তিকে পুনর্জাগ্রত করতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24