মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ১০:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটে পাঠদান বিঘ্নিত-নেই গণিত ও বাংলার শিক্ষক

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০১৬
  • ৯৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলার একমাত্র সরকারী বালিকা বিদ্যালয় (জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটের কারণে পাঠদান মারাত্বকভাবে বিঘিœত হচ্ছে। ফলে বিদ্যালয় থেকে কাঙ্কিত ফলাফল অর্জিত হচ্ছে না। এনিয়ে উপজেলাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি এলাকাবাসী স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীকে সম্প্রতি অবহিত করলে তিনি তাৎক্ষনিকভাবে সিলেটের ডিডিকে শিক্ষক সংকট দুরীকরনের অনুরোধ করেন।
এলাকাবাসী অভিভাবক ও শিক্ষানুরাগীরা জানান,উপজেলা সদরের সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক সংকটে রয়েছে। ফলে লেখা পড়ার মান দিনে দিনে নিম্মমূখী হয়ে পড়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৩ সালে জগন্নাখপুর গ্রামের ধরনী চক্রবর্তীর দান করার ভূমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয় জগন্নাথপুর বালিকা বিদ্যালয়। ১৯৮৮ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জাতীয়পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুসেন মোহাম্মদ এরশাদ বিদ্যালয়টি সরকারী করণ করেন। গত এক যুগ ধরে বিদ্যালয়টি শিক্ষক সংকটে পড়ে। প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষক সহ শিক্ষক শুন্যতা লেগেই থাকে। বর্তমানে ৯ জন শিক্ষকের মধ্যে রয়েছে মাত্র ৪ জন। গণিত ও বাংলার কোন শিক্ষক নেই। অফিস সহকারী, পিয়ন ও নাইটগার্ড পদ রয়েছে শুন্য। ফলে বিদ্যালয়টি পড়ালেখা মারাত্বকভাবে বিঘিœত হচ্ছে।
জগন্নাথপুর গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষানুরাগী ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির অভিভাবক সভাপতি বীরেন্দ্র কুমার দে বলেন,‘সরকারী বিদ্যালয়গুলোর প্রতি অভিভাবকদের অনেক প্রত্যাশা কিন্তুু, আমরা সরকারী বালিকা বিদ্যালয় নিয়ে চরমভাবে হতাশ। গত কয়েক বছরের জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলোফল আমাদেরকে চরমভাবে হতাশ করেছে। আমরা বিষয়টি আমাদের অর্থ ওপরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানকে অবহিত করেছি।
আরেক অভিভাবক জগন্নাথপুর গ্রামের নুরুল হক বলেন, ‘শিক্ষক সংকট ও বছরের অধিকাংশ সময় নানা অজুহাতে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা মারাত্বকভাবে বিঘিœত হয়। তাই বাধ্য হয়ে অভিভাবকরা সরকারি বিদ্যালয় ছেড়ে বেসরকারি বিদ্যালয়ের দিকে ঝুঁকছেন।
জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অনন্ত কুমার সিংহ বলেন,‘ বিদ্যালয়ে নয় জন শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র চারজন। তাদেরকে নিয়ে সাধ্যমতো চেষ্ঠা করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, পিয়ন,অফিস সহকারী,নাইটগার্ড না থাকায় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24