প্রকল্প পরিচালকদের প্রকল্প এলাকায় থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক ঃ
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান
প্রকল্প পরিচালকদের সংশ্লিষ্ট প্রকল্প এলাকায় অবস্থান করে উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের নির্দেশনা দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

বুধবার খুলনা বিভাগে চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতি সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভা মন্ত্রী এই নির্দেশনা দেন।

খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ণ বিভাগ (আইএমইডি) এই পর্যালোচনা সভার আয়োজন করে।

সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকার চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য এক লাখ ৮০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে দেশব্যাপী এক হাজার ৫০৭ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে খুলনা বিভাগে তিন হাজার ৪৫৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৮টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, “চলমান প্রকল্পগুলোর সঠিক মান নিশ্চিত করতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা দরকার। যাতে সকল প্রকল্প যথাযথ মান বজায় রেখে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ করা যায়। এ জন্য প্রত্যেক প্রকল্প পরিচালককে প্রকল্প এলাকায় থাকতে হবে।

“সরকার জনগণের জন্যই উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করছে। তাই প্রকল্পের কাজ এমনভাবে করতে হবে যাতে জনগণ এর সুফল ভোগ করতে পারে।”

একজন একাধিক প্রকল্পের পরিচালক হিসেবে থাকতে পারবেন না বলেও জানান মন্ত্রী।

“আমরা চাই প্রতিটি প্রকল্প গুণগতমান বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়িত হোক। এজন্য প্রকল্পের পরিচালক যিনি থাকবেন তাকে প্রকল্প শেষ হওয়ার পরও দায়িত্ব নিতে হবে, যেন ওই প্রকল্পের মান নিয়ে জনগণের মনে কোনো সংশয় না থাকে।

সভায় খুলনা বিভাগের ৫৮টি প্রকল্প পর্যালোচনা করা হয়। এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী যশোর খুলনা মহাসড়ক নির্মাণ, কয়রা-পাইকগাছা এলাকায় ৫৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজসহ আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ দেন।

বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে পর্যালোচনা সভায় খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, সংসদ সদস্য মো. আক্তারুজ্জামান, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের আইএমইডির সচিব আবুল মনসুর মো. ফয়েজউল্লাহ ও মহাপরিচালক মো. সিদ্দিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মন্ত্রী খুলনা নগরীতে ‘১৯৭১: জেনোসাইড-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর’ পরিদর্শন করেন।

বিকালে মন্ত্রী বাগেরহাটের রামপাল উপজেলায় নির্মাণাধীন খানজাহান আলী বিমানবন্দর পরিদর্শন করেন।
সৌজন্যে বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

প্রকল্প পরিচালকদের প্রকল্প এলাকায় থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক ঃ
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান
প্রকল্প পরিচালকদের সংশ্লিষ্ট প্রকল্প এলাকায় অবস্থান করে উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের নির্দেশনা দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

বুধবার খুলনা বিভাগে চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতি সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভা মন্ত্রী এই নির্দেশনা দেন।

খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ণ বিভাগ (আইএমইডি) এই পর্যালোচনা সভার আয়োজন করে।

সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকার চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য এক লাখ ৮০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে দেশব্যাপী এক হাজার ৫০৭ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে খুলনা বিভাগে তিন হাজার ৪৫৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৮টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, “চলমান প্রকল্পগুলোর সঠিক মান নিশ্চিত করতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা দরকার। যাতে সকল প্রকল্প যথাযথ মান বজায় রেখে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ করা যায়। এ জন্য প্রত্যেক প্রকল্প পরিচালককে প্রকল্প এলাকায় থাকতে হবে।

“সরকার জনগণের জন্যই উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করছে। তাই প্রকল্পের কাজ এমনভাবে করতে হবে যাতে জনগণ এর সুফল ভোগ করতে পারে।”

একজন একাধিক প্রকল্পের পরিচালক হিসেবে থাকতে পারবেন না বলেও জানান মন্ত্রী।

“আমরা চাই প্রতিটি প্রকল্প গুণগতমান বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়িত হোক। এজন্য প্রকল্পের পরিচালক যিনি থাকবেন তাকে প্রকল্প শেষ হওয়ার পরও দায়িত্ব নিতে হবে, যেন ওই প্রকল্পের মান নিয়ে জনগণের মনে কোনো সংশয় না থাকে।

সভায় খুলনা বিভাগের ৫৮টি প্রকল্প পর্যালোচনা করা হয়। এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী যশোর খুলনা মহাসড়ক নির্মাণ, কয়রা-পাইকগাছা এলাকায় ৫৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজসহ আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ দেন।

বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে পর্যালোচনা সভায় খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, সংসদ সদস্য মো. আক্তারুজ্জামান, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের আইএমইডির সচিব আবুল মনসুর মো. ফয়েজউল্লাহ ও মহাপরিচালক মো. সিদ্দিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মন্ত্রী খুলনা নগরীতে ‘১৯৭১: জেনোসাইড-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর’ পরিদর্শন করেন।

বিকালে মন্ত্রী বাগেরহাটের রামপাল উপজেলায় নির্মাণাধীন খানজাহান আলী বিমানবন্দর পরিদর্শন করেন।
সৌজন্যে বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।