বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব

মাকে খুন করে মায়ের রক্ত দিয়ে কী লেখল যুবক

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৯ মে, ২০১৭
  • ৫৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: রাতে বিছানায় ছুরিকাঘাতে মাকে খুন করলেন যুবক সিদ্ধান্ত গানোর। এর পর মায়ের রক্ত দিয়েই ঘরের মেঝেতে একটি বার্তা লিখে রাখেন তিনি।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মুম্বাইয়ে। গত ২৫ মে ওই ঘটনা ঘটে। এর পর সেই যুবককে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। রাজস্থানের যোধপুরের একটি হোটেল থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের ধারণা, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় সিদ্ধান্ত গানোর এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে থাকতে পারেন।

সিদ্ধান্ত গানোরের বাবা দিনেশ্বর গানোর একজন পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি খার পুলিশ স্টেশনে কর্মরত আছেন। তাঁর মায়ের নাম দীপালি গানোর।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম মুম্বাই মিররের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, পুলিশ কর্মকর্তার ২২ বছর বয়সী ছেলে সিদ্ধান্ত গানোর তাঁর মাকে খুন করেন। তারপর মায়ের রক্ত দিয়েই ঘরের মেঝেতে লেখেন, ‘তাঁর জন্য আমি ক্লান্ত, আমাকে ধরুন এবং ফাঁসি দিন।’

এখানেই শেষ নয়, সেই বার্তার নিচে রক্ত দিয়ে হাসিমাখা একটি মুখায়বও আঁকেন সিদ্ধান্ত। এর পর বাড়ি থেকে দুই লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে যান তিনি।

বাবা দিনেশ্বর গানোর বলেন, ঘটনার দিন মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে তিনি তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে শেষ কথা বলেছিলেন। তিনি তখন দায়িত্ব পালন করছিলেন এবং পরে তাঁর এক আত্মীয়ের সঙ্গে রাতের খাবার খেতে যান।

পুলিশের কাছে দেওয়া জবানবন্দিতে সিদ্ধান্ত বলেছেন, তিনি ঠান্ডা মাথায় তাঁর মাকে খুন করেছেন। এ সময় তিনি প্রায় নয়বার মায়ের গলায় ছুরি চালানোর কথা জানান। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বাকোলা পুলিশের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মাহাদিও বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে গানোরের স্ত্রী ও রক্তে লেখা বার্তাটি দেখতে পাই।’ এর পর দীপালিকে কুপার হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সিদ্ধান্ত গানোর ন্যাশনাল কলেজে ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে পড়তেন এবং তিনি ‘ড্রপআউট’ (ছাত্রত্ব বাতিল) হয়ে গিয়েছিলেন।

সিদ্ধান্তের বন্ধুরা জানান, গত দুই মাস সিদ্ধান্ত খুবই চুপচাপ হয়েছিলেন। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমও এড়িয়ে চলতেন সিদ্ধান্ত গানোর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24