বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন

২০০১ সালের নির্বাচনের আগে হাওয়া ভবনে যুক্তরাষ্ট্র ও ‘র’ এর প্রতিনিধিদল থাকত

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ মার্চ, ২০১৭
  • ৫১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের গ্যাস বিক্রির বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ একসঙ্গে কাজ করেছে এমন ইঙ্গিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে হারানো হয়েছিল বলেও ইঙ্গিত করেন তিনি। আজ শনিবার যুব মহিলা লীগের জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ ইঙ্গিত দেন। রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনিস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে যখন আমেরিকান কোম্পানি আমাদের গ্যাস বিক্রি করতে চাইলো ভারতের কাছে। ভারতের কাছে গ্যাস বিক্রির মুছলেকা দিয়েছিলো খালেদা জিয়া। দিয়েই তো ক্ষমতায় এসেছিলো। আমি তো দেইনি। আমি চেয়েছিলাম আমার দেশের আগে দেশের মানুষের কাজে লাগবে, ৫০ বছরের রিজার্ভ থাকবে। তারপরে আমরা ভেবে দেখবো বিক্রি করবো কি করবো না।
তিনি বলেন, যাদের বিরুদ্ধে এত কথা বলে, এখানে সেই ‘র’ (ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা) এর প্রতিনিধি সে তো হাওয়া ভবনে বসেই থাকতো। আমেরিকার অ্যাম্বাসির লোক হাওয়া ভবনে বসেই থাকতো। ২০০১ সালের নির্বাচন আওয়ামী লীগকে সম্পূর্ণভাবে হারাবে এবং এখান থেকে গ্যাস নিবে।
তিনি বলেন, আমি বলেছিলাম গ্যাস বিক্রি করবো না। কিন্তু মুছলেকা তো দিয়েছিলো (খালেদা জিয়া)। তাদের মুখে আবার এত ভারত বিরোধী কথা।
তিনি বলেন, ল্যান্ড বাউন্ডারি জাতির পিতা ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি করে রেখে যান। আইন পাশ করে রেখে যান। সংসদে সেই আইন পাশ হয়। কই বিএনপি, জিয়াউর রহমান, এরশাদ, খালেদা জিয়া যারাই ক্ষমতায় ছিলো কেউ তো কখনো একবারের জন্যও সীমানার দাবিও করেনি। সীমান নির্দিষ্ট করার পদক্ষেপও নেয়নি। করার সাহসও পায়নি আমি বলবো। দালালী এমন ভাবে ছিলো যে ওরা সে কথা উচ্চারণই করেনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সমুদ্র সীমা সেই আইনও জাতির পিতা করে রেখে যান। জিয়া, খালেদা, এরশাদ কোন সরকার ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের সমুদ্র সীমা কোন আলোচনা, কোন মামলা বা কোন পদক্ষেপ নিয়েছে? নেয়নি। কেন নেয়নি? যদি এতই দেশপ্রেমিক হবে দেশের এই সমস্যার কথা তোলেনি কেন?
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে শুনি খুব ভারত বিরোধী কথা। যারা ভারতের কাছে কিছুই আদায় করতে পারেনি এখন আবার খুব ভারতের বিরুদ্ধে কথা। এই সমস্ত খেলা বহু তারা খেলেছে। তাদের কোন দেশপ্রেম নাই। ক্ষমতাটা তাদের কাছে ভোগের বস্তু।
অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তেলন করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি শান্তির প্রতিক পায়রা অবমুক্ত করেন।
অনুষ্ঠানের অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা, যুব মহিলা লীগ সভাপতি নাজমা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল প্রমুখ। অন্যান্যের মধ্যে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে যুব মহিলা আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24