মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

একটি শিশুও বেঁচে নেই ১২ পরিবারে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০১৭
  • ৩৫ Time View

সাত বছর আগের কথা, চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার আবু তোরাব সড়কে ঘটে মর্মান্তিক এক ঘটনা। ট্রাক রাস্তার পাশের ডোবায় পড়ে ৪২ শিশু শিক্ষার্থীসহ ৪৪ জন নিহত হয়। একসঙ্গে এত শিশুর মৃত্যু সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে দেয়। গত ১৩ জুন সকালে সেই চট্টগ্রামসহ চার জেলায় নেমে আসে ভয়াবহ দুর্যোগ। টানা বর্ষণে ঘরের ওপর ধসে পড়ে পাহাড়ের মাটি। ঘুম থেকে ওঠার সুযোগও হয়নি অনেকের। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পাঁচ জেলা পরিণত হয় মৃত্যু উপত্যকায়।

প্রশাসনের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, মাটিচাপায় ১৬০ জন নিহত হয়েছেন। তবে নিহতের তালিকায় চোখ রেখে দেখা যায়- ছাড়িয়ে গেছে মিরসরাইয়ের ঘটনাও। পাহাড় কেড়ে নিয়েছে চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, বান্দরবান, খাগড়াছড়িসহ পাঁচ জেলার ৩০ পরিবারের ৫২ শিশুর প্রাণ। শুধু তাই নয়, ১২ পরিবারে বেঁচে নেই কোনো শিশু। এখনও থামেনি বাবা-মায়ের আর্তনাদ। অসময়ে চলে যাওয়া এসব শিশুর নানা স্মৃতি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে পরিবারের বেঁচে থাকা স্বজনদের।

পাহাড়ধসে রাঙামাটিতে নিহত হয়েছে ১১৮ জন। তার মধ্যে রাঙামাটি সদরে নিহত ৬৮ জনের ২৪ জনই শিশু। তারা ছিল ৯ পরিবারের সদস্য। রাঙামাটির নিজস্ব প্রতিবেদক সত্রং চাকমা জানান, রাঙামাটি সদর উপজেলায় একই পরিবারে যারা মারা গেছে তারা হলো- সোনালী চাকমার ছেলে অমিয় চাকমা (১০), ভেদভেদী সনাতনপাড়ার লিটন মলি্লক ও চুমকী মলি্লকের একমাত্র সন্তান আইয়ুশ মলি্লক (২), কাবুক্ক্যা বালুখালীর সীমা চাকমার দুই সন্তান সুজন চাকমা (৭) ও বন্যা চাকমা (৩), ভেদভেদী এলাকার মধুমিতা চাকমার মেয়ে জুরি চাকমা (১০), সুরভী বেগমের মেয়ে বৃষ্টি (১০), ভেদভেদী নতুনপাড়ার নবী হোসেনের মেয়ে রুনা আক্তার (১৫) ও সোহাগ (১৪), ভেদভেদী যুব উন্নয়ন বোর্ড এলাকার সুজিতা চাকমার ছেলে সৌম্য চাকমা (৫) এবং মনিপাড়ার কান্তি সোনা চাকমার মেয়ে শান্তনা চাকমা (৬)।

রাঙামাটিতে নিহত অন্য শিশুরা হলো- নাইমা আক্তার (৬), নুরী আক্তার (৩), ফেন্সী চাকমা (৪), প্রিয়তোষ চাকমা (১২), সুকেন চাকমা (১২), সূচনা চাকমা (১৪), তৃষা মণি চাকমা (১৬), জয়েস চাকমা (৯), সুস্মিতা চাকমা (৫), আজিজা আক্তার (৫), মো. মুজিবুর রহমান (১২) ও জিসান (২)। রাঙামাটির জুড়াছড়িতে নিহত ছয়জনের মধ্যে চারজন শিশু। তারা হলো- বিশ্বমণি চাকমা (১০), হ্যাপী তঞ্চঙ্গ্যা (৭), চিয়ং চাকমা (১৭) ও চিবে চোগা চাকমা (১৬)।

কাউখালী সংবাদদাতা জিয়াউর রহমান জুয়েল জানান, কাউখালীতে নিহত ২১ জনের মধ্যে ছয় পরিবারের পাঁচ শিশু রয়েছে। তারা হলো- উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের জুনুমাছড়া এলাকার অমর শান্তি চাকমার মেয়ে বৈশাখী চাকমা (৭), বাকছড়ি এলাকার ফুলমোহন চাকমা ও মণিমালা চাকমার মেয়ে বৃষ মণি চাকমা (১১), হাজাছড়ি গ্রামের কমলধন চাকমার ছেলে সোহেল চাকমা (৭), বেতবুনিয়া ইউনিয়নের রাউজান ঘোনা গ্রামের অংচিং মারমা ও আশেমা মারমা দম্পতির দুই সন্তান তেমা মারমা (১২) ও ছেলে ক্যাথোয়াইচিং মারমা (৭)। কাপ্তাইয়ে নিহত ১৮ জনের মধ্যে শিশু রয়েছে সাতজন। তারা হলো- নোমান (৫), রমজান আলী (৫), নিতুই মার্মা (৬), রোহান (৭), আই প্রু মারমা (১৫), চিংমিউ মারমা (১৫) ও প্রানু চিং মারমা (৬)।

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে নিহত চারজনের মধ্যে দু’জন শিশু। তারা হলো- তালাও ক্যায়াংয়ের শিশুপুত্র কেওছ্যা ক্যায়াং ও ক্যেলাও অং ক্যায়াংয়ের মেয়ে ম্যে ম্যাও ক্যায়াং (১২)। টেকনাফে ছলিমের সঙ্গে নিহত হয় তার মেয়ে তিসা মণি (১০)। বান্দরবানে পাহাড়চাপায় মারা গেছে আজিজুরের স্ত্রী ও সন্তান সুফিয়া (১০)। চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় দিনমজুর ইসমাইল ও মনিরা আক্তারের দুই সন্তান ইভা (৮) ও ইছা (৪) নিহত হয়েছে এক রাতেই। ইসলামপুরের মইন্যারটেক এলাকার বাসিন্দা মো. সেলিমের নাতনি জোসনা, শাহানু ও ফালুমাও নিহত হয়েছে।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মানজারুল মান্নান বলেন, প্রতিটি মৃত্যুই কষ্টের। তবে শিশুদের মৃত্যু কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তারা মা-বাবা ও ঘরকে সবচেয়ে আপন মনে করে। কিন্তু পাহাড়ের নির্মমতায় মা-বাবাও তাদের রক্ষা করতে পারেনি। কোনো কোনো পরিবারে শুধু বেঁচে আছেন মা কিংবা বাবা। শিশুদের কথা মনে করে আশ্রয়কেন্দ্রে তাদের অনেকেই মূর্ছা যাচ্ছেন। তাই আশ্রয়কেন্দ্রে সার্বক্ষণিক ডাক্তার রাখা হয়েছে। বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক বলেন, হারানো সন্তানের নানা স্মৃতি মনে করে বিলাপ করছেন তাদের বাবা-মা। আশ্রয়কেন্দ্রে এমন দৃশ্য দেখে আশপাশে থাকা অন্যরাও হয়ে পড়ছেন অশ্রুসিক্ত।
সুত্র-সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24