সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৪:০৭ অপরাহ্ন

তাহিরপুরে ধানের কম দরে হতাশ কৃষক

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৬৩ Time View

আমিনুল ইসলাম, বিশেষ প্রতিনিধি (তাহিরপুর );
তাহিরপুরের হাওরগুলোতে ধানকাটা প্রায় শেষ পর্যায়ে হলেও ধানের ন্যায্যমুল্য না পাওয়াতে কৃষকদের মধ্যে হতাশ দেখা দিয়েছে। চলতি বছর উপজেলার শনি,মাটিয়ান,মহালিয়া,গুরমা বর্ধিতাংশ,মাটিয়ান বর্ধিতাংশসহ ছোট বড় ২৩টি হাওরে ইরি বোর চাষাবাদ হয়েছে। এবার ধানের থুরের মুখে কোল্ড ইনজুড়ি (ঠান্ডা হাওয়া) লাগার কারণে প্রতিটি হাওরেই ব্রি-ধান ২৮ প্রতি কেয়ারে (৩০শতকে এক কিয়ার)৪ থেকে ৫ মণ ধান হয়েছে। প্রতি বছর হাওরের ধান অকাল বন্যায় ডুবে যাওয়ার কারণে হাওরপাড়ের কৃষকরা ব্রি-ধান ২৮ রোপনে উৎসাহী হয়েছিল। এ থেকেই প্রান্তিক ও বর্গাচাষী কৃষকরা তাদের রোপিত অর্ধেক চাষাবাদের জমিতে ব্রি-ধান ২৮ রোপন করে। অন্য জমিগুলোতে ব্রি-ধান ২৯ ও স্থানীয় জাতের গচি অথবা লাখাই ধান রোপন করে।
এদিকে জমিতে ফসলের পরিমাণ চাদিদার তুলনায় অর্ধেকের চেয়েও কম হওয়ার কারণে শ্রমিকরা ধান কাটতে ইচ্ছুক না থাকায় কৃষকরা অনেকটা বাধ্য হয়েই শ্রমিকদের চাহিদা মোতাবেক মজুরি দিতে বাধ্য হচ্ছে।
স্থানীয় কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, বৈশাখ মাসের প্রথম থেকেই যদি উপজেলা খাদ্য গোদামে ধান দেয়া যেত তাহলে হাওরপাড়ের কৃষকরা মোটামোটিভাবে খরচ পুষিয়ে লাভবান হতো।
শনির হাওরপাড়ের কৃষক সাহেবনগর গ্রামের বিমল সরকার বলেন,তিনি শনির হাওরে ৫ কিয়ার জমিতে ব্রি-ধান ২৮ রোপন করেছিলেন। জমির কম ধান হওয়ার কারণে শ্রমিকরা ধান কাটতে রাজি না হওয়ায় তাদের চাহিদামত প্রতি কেয়ার জমি নগদ দু’হাজার টাকা করে কাটতে হয়েছে। এ দু’হাজার টাকা পরিশোধ করতে তিনি জমির ধান ব্যবসায়ীর নিকট প্রতি মণ ৫শ টাকা দরে বিক্রি করেছেন। তিনি আক্ষেপ করে আরো বলেন,এক কিয়ার জমি চারা রোপন থেকে শুরু করে ধান উঠানো পর্যন্ত খরচ হয় তিন হাজার টাকা। এবার ফসল খারাপ হওয়ার কারণে তিনি ধান চাষ করে লাভমান হবেন দূরের কথা প্রতি কেয়ারে আরো এক হাজার টাকা লোকসান গুনতে হয়েছে।
ভাটি তাহিরপুর গ্রামের কৃষক ইউনূছ আলী বলেন,‘আমরার এইখানে সরকার ধান কিনে জ্যৈষ্ঠ আষাঢ় মাসে। আর আমরা কৃষকরা ধান বেছি পইলা বৈশাখে। তখন আমরা বাধ্য হইয়্যা প্রতি মণ পাঁচ’শ টাকা দরে ধান বিক্রি করি। সরকার যে সময় ধান কিনে হেই সময় কৃষকের ঘরে আর ধান থাকে না। ধান চইলা যায় ফরিয়া ব্যবসায়ীদের কাছে।’
তাহিরপুর উপজেলা খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা শ্রী মনধন দাস বলেন,সরকার সারা দেশব্যপী ধান চাল সংগ্রহের ঘোষণা দিয়েছেন কিন্তু আমরা এখনো বরাদ্দের কোন আদেশ পত্র পাইনি। তবে শুনেছি সরকার প্রতি কেজি ধান ২৬ টাকা দরে কিনবে।
তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ আব্দুছ ছালাম বলেন,এবছর হাওরে দীর্ঘমেয়াদী খড়া ও ধানের থুরের মূখে ঠান্ডাজনিত আবহাওয়া লাগার কারণে ধানের ফলন কম হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24