শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড,নাড়িয়ে দিল জগন্নাথপুরবাসিকে, ক্রাইম সিন ইউনিটের ঘটনাস্থল পরিদর্শন অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে

সুনামগঞ্জ-২: এমপি রতনের সম্পদ বেড়েছোট বহুগুণ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ১০৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ- ধর্মপাশা- জামালগঞ্জ ও মধ্যনগর) আসনের সরকার দলীয় সাংসদ এবারের জাতীয় নির্বাচনে একই আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সম্পদ বেড়েছে বহুগুণ। ২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে তাঁর হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ ছিল ২২ লাখ ৬৬ হাজার ৪৩০ টাকা। এই বছর দাখিল করা হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ করা হয়েছে ৮০ লাখ ৯১ হাজার ৫৪৪ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় ব্যাংকে টাকা ছিল এক লাখ এক হাজার ৩০৩ টাকা, এবার হলফনামায় ব্যাংক জমা উল্লেখ করেছেন ৪ লাখ ৬১ হাজার ৮০৩ টাকা।
স্থাবর সম্পদ অনেক বেড়েছে তাঁর। ২০০৮’এর হলফনামায় কৃষিখাতে তিনি আয় উল্লেখ করেছিলেন মাত্র ৫০০০ টাকা। এবার কৃষিখাতে আয় দেখিয়েছেন ১২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় তিনি উল্লেখ করেছিলেন ৫ লাখ ৪২ হাজার ৫৪৬ টাকা। এবারের জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় তিনি ব্যবসায় নিজের কোন আয় উল্লেখ করেননি। তাঁর (মোয়াজ্জেম হোসেন রতন) উপর নির্ভরশীলদের আয় দেখিয়েছেন ১৭ লাখ টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে পেশা অর্থাৎ ব্যবসা থেকে আয় দেখিয়েছিলেন ২ কোটি ১০ লাখ ৮৮ হাজার ২৬০ টাকা। এবার হলফনামায়
নিজের ব্যবসা থেকে কোন আয় দেখাননি তিনি।
স্থাবর সম্পদের ক্ষেত্রে ২০০৮’এর হলফনামায় তিনি কৃষি জমি উল্লেখ করেছিলেন ৩.৯৩ একর, যার মূল্য লিখেছিলেন এক লাখ ১৭ হাজার ৫০ টাকা। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন কৃষি জমির পরিমাণ ৫২৩.২৭ একর, যার মূল্য উল্লেখ করেছেন ৯৩ লাখ তিন হাজার ৭৫৮ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ ছিল ১.১৫ একর, যার মূল্য ছিল ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৪৫৪ টাকা। এবারের হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ উল্লেখ করেছেন ৮.২৬৭৫ একর, যার মূল্য এক কোটি ৭৩ লাখ তিন হাজার ২৫০ টাকা।
২০০৮’এর হলফনামায় দালান কোঠা, আবাসিক বাণিজ্যিক ও বাড়ি উল্লেখ ছিল না। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন দুটি দালান, একটি টিনশেড ঘর ও একটি অ্যাপার্টমেন্টসহ মোট এক কোটি ৪৭ লাখ ৭৬ হাজার ২৯৪ টাকার স্থাবর সম্পদ রয়েছে তাঁর। এছাড়াও অনান্য সম্পদ হিসাবে তিনটি প্রতিষ্ঠানে শেয়ার রয়েছে ১৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার।
২০০৮’এ গাড়ীর ঋণ ছিল ৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এবার হলফনামায় গাড়ীর ঋণ উল্লেখ করেছেন ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৬ টাকা।
২০০৮’এর নির্বাচনের আগে হলফনামায় স্ত্রী’র নামে কোন নগদ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ছিল না এই সংসদ সদস্যের। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন স্ত্রী’র নামে ৫ লাখ ৪২ হাজার ৪৮০ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগের পরিমাণ ৪৫ লাখ টাকা।
সৌজন্যে:দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24