বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা সৎ সাহস থাকলে প্রমাণ নিয়ে বসুন, প্রয়োজনে লাইভ হবে: ইলিয়াস কাঞ্চন

জগন্নাথপুরসহ জেলার কোন কোন হাওরে এখনও নতুন করে পিআইসি হচ্ছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ১২২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
হাওররক্ষা বাঁধের কাজের জটিলতা শেষ হচ্ছে না। প্রাক্কলন তৈরির আগে ২৫ লাখ টাকা করে পিআইসি করায় এখন প্রাক্কলন তৈরির পর কোন কোন স্থানে বাজেট বেড়ে গেছে। এই অবস্থায় নতুন প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠন করে কাজ করা ছাড়া উপায় থাকছে না। অন্যদিকে, এখনো হাওর থেকে পানি নিস্কাশন হওয়ায় কোথাও কোথাও ক্লোজারে কাজ ধরা যাচ্ছে না। এই অবস্থায় হতাশা কাটছে না হাওরবাসীর। শনিবার পর্যন্ত ৮১৪ টি বাঁধের মধ্যে ৩০২ টি’র কাজ শুরু হয়েছে। ৫১২ টিতে কাজ শুরু হয়নি।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ৪৯ টি বাঁধের মধ্যে ১১ টিতে, বিশ্বম্ভরপুরে ৩৭ টি’র মধ্যে ২৮ টিতে, জামালগঞ্জে ৭০ টি’র মধ্যে ২৬ টিতে, তাহিরপুরে ৬২ টি’র মধ্যে ৩২ টি’তে, ধর্মপাশায় ১৩৬ টি’র মধ্যে ৭৫ টিতে, শাল্লায় ১৩১ টির মধ্যে ৫৮ টিতে. দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৬০ টি’র মধ্যে ৪০ টিতে, দোয়ারাবাজারে ৩৯ টির মধ্যে ৩০ টিতে, জগন্নাথপুরে ১০৫ টির মধ্যে ১৩ টিতে, দিরাইয়ে ১১১ টির মধ্যে ৯১ টিতে কাজ শুরু হয়নি।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সমীর বিশ্বাস বললেন, ‘পানি কমার পর কাজের প্রাক্কলন তৈরি করার সময় দেখা গেছে, আগে নির্ধারণ করা কাজের চেয়ে আরো বেশি কাজ করতে হবে। এই অবস্থায় নতুন পিআইসি গঠন করা ছাড়া উপায় নেই। যেহেতু ২৫ লাখ টাকার বেশি এক পিআইসি দিয়ে কাজ করা যাবে না, সেহেতু নতুন পিআইস গঠন করে কাজ করাতে হবে।’ তিনি জানান, বিশ্বম্ভরপুরের করচার হাওরে নতুন পিআইসি করতে হবে ৫-৬ টি বাঁধের কাজের জন্য।’
দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মঈন উদ্দিন ইকবাল বললেন, ‘প্রাক্কলন তৈরিতে বিলম্ব হওয়ায় কাজ পিছিয়েছে। এখন আমরা চিন্তা করছি প্রাক্কলন ছাড়াই কাজ শুরু করতে হবে, না হয় কাজ ওঠানো যাবে না।’ তিনি জানান, উপজেলার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ তুফানখালি’র কাজ ৭০ ভাগ শেষ হয়ে গেছে।
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আল ইমরান বললেন, ‘অনেক ক্লোজার দিয়ে এখনো পানি নিস্কাশন হওয়ায় কোন কোন ক্লোজারে ইচ্ছে করলেই এখন মাটি দেওয়া যাবে না।’ ধর্মপাশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন খন্দকারও একই মন্তব্য করেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভুইয়া বলেন, ‘পিআইসি তৈরির সময় ২৫ লাখ টাকার না করে কম কম করে করলে এখন নতুন পিআইসি তৈরি করতে হতো না।’ প্রাক্কলন তৈরিতে বিলম্ব হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন,‘এখন দ্রুত প্রাক্কলন তৈরি’র কাজ শেষ করা হচ্ছে, উপজেলা কমিটি এবং পিআইসি দক্ষতার সঙ্গে কাজ করলে বাঁধের কাজে বিলম্ব হবার সুযোগ নেই।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24