1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
ধীরেন্দ্র কুমার সেন একজন সংগ্রামী, সফল ও ভাগ্যবান মানুষ - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০১:৫৭ অপরাহ্ন

ধীরেন্দ্র কুমার সেন একজন সংগ্রামী, সফল ও ভাগ্যবান মানুষ

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০২৪
  • ১৩৪ Time View
মৃত্যু জীবনের অনিবার্য পরিনতি ও চরমসত্য। মৃত্যু অভিমুখে ধাবমান এক যাত্রার নামই জীবন। এই যাত্রা পথের বাঁকে বাঁকে থাকে নানা চড়াই-উৎরাই। জীবন যাত্রার এই বন্ধুর পথ অতিক্রম করে শেষ পর্যন্ত যারা বিজয়ী হন, নিজেকে উদ্ভাসিত করেন জীবনের জয়গানে; মৃত্যু তাদের নশ্বর মানব জীবনের অনিবার্য পরিনতির মধ্য দিয়ে দৈহিক ভাবে অদৃশ্যমান করলেও পরাজিত করতে পারেনা। তাঁরা থেকে যান তাঁদের কর্মে, অসংখ্য গুণগ্রাহীর মনের মনিকোঠায় শ্রদ্ধা আর ভালবাসায়।

তেমন একজন মৃত্যুঞ্জয়ী মানুষ ধীরেন্দ্র কুমার সেন। দীর্ঘদিন দুরারোগ্য ক্যানসারের সাথে যুদ্ধ করে আজ তাঁর জীবনাবসান হয়েছে। তিনি একজন সংগ্রামী মানুষ, সফল মানুষ এবং ভাগ্যবান মানুষ।
জীবনে সাধারণ অবস্থা থেকে সংগ্রাম করে তিনি প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন, সন্তানদের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন, তাদের প্রতিষ্ঠিত করার ক্ষেত্রে স্বার্থক পিতার ভূমিকা পালন করেছেন। সমাজ সেবায় ভূমিকা রেখেছেন সাধ্যমত।
নানা ক্ষেত্রে নানা অবদান তাঁকে পরিয়েছে বিজয়ের বরমাল্য। তাঁর সেই অবিনাশী কীর্তিগাঁথা যেমন কাছ থেকে দেখেছি কিছুটা, শুনেছি অনেক বেশী। তাই আর এ লিখা গতানুগতিক আবেগতাড়িতভাবে কোন লিখা নয়। কিংবা কারো মৃত্যুর পর গতানুগতিক ভালো কথা লিখার  কোন প্রচেষ্টাও নয়।
আমি সচেতন ভাবে তাঁর নামের সাথে তিনটি বিশেষন যুক্ত করেছি। প্রথমেই বলেছি তিনি
একজন সংগ্রামী মানুষ। আমি যতদূর জানি তিনি সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্মগ্রহণ করেননি। অনেকে বলেন দরিদ্র হয়ে জন্ম নেয়া পাপ নয় কিন্তু দরিদ্র অবস্থায় মৃত্যুবরণ করা পাপ। তিনি সে পাপমুক্ত। জীবন সংগ্রামে পরিপূর্ণ ভাবে জয়ী একজন মানুষ। সবচে বড় কথা সমস্ত অর্জনই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে একান্ত তারই অর্জন। সবার পক্ষে সংগ্রামের এই বিজয়গাঁথা রচনা করা সম্ভব হয়না। তিনি সেই অসাধ্য সাধন করেছেন।
দ্বিতীয়ত তিনি একজন সফল মানুষ। তাঁর এই সফলতাকে নানা আঙ্গিকে ব্যাখ্যা করা যায়। পিতা হিসাবে তিনি তার সন্তানদের যথার্থ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। তাঁর তিন সন্তান আমার সরাসরি ছাত্র। একজন আমার সহকর্মী। তাদের সবাই সততা, মানবিকতা, বিনয় আর পরিপূর্ণ মানবিক মূল্যবোধে আলোকিত মানুষ। শিক্ষক হিসাবে যদি আমাকে আমার শ্রেষ্ট ছাত্র/ছাত্রীদের নির্বাচন করতে বলা হয় তবে তারমধ্যে তাঁর তিনসন্তান হবে অন্যতম।
তারা বিত্তের চেয়েও বৈভবে, অহংকারের চেয়ে অনুরাগে, স্পর্ধায় নয় শ্রদ্ধায় আলোকিত মানুষ।
সন্তানকে এমন গুনের ঔজ্জ্বল্যের বাতিঘরে পরিনত করতে আমরা কজন পারি? তিনি পেরেছেন।
 এখানেই তাঁর সাফল্য।
সবচে বড়কথা তিনি তাঁর অর্জিত আয়ের একটি অংশ সমাজ সেবায় এবং নানা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ব্যয় করেছেন। নানাজনের কাছ থেকে নানা ভাবে অর্থ সংগ্রহ করে নানাবিধ প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন চেষ্টা করেছেন। ব্যাষ্টিক চেতনার উর্ধ্বে উঠে সামষ্টিক উন্নয়নেও আত্মনিয়োগ করেছিলেন।
সবশেষ বলতেই হবে তিনি একজন অসম্ভব ভাগ্যবান মানুষ ছিলেন। সন্তানের এত ভালবাসা সব মানুষের কপালে জোটেনা। জীবনে অনেক দেখেছি কিন্ত এমনতর কমই দেখেছি। তার সন্তানেরা সেবায় ও সন্মানে, শ্রমে ও ঘামে, শ্রদ্ধায় ও ভালবাসায় সর্বোচ্চটা করেছেন তাঁরজন্য। এমন ভাগ্য নিয়ে সবাই মরতে পারেনা। এখানেই তিনি চরম ভাগ্যবান।
তাঁর এই মৃত্যুবেদনা সহ্য করার ক্ষমতা বিদাতা তাঁর পরিবার, সুহৃদ আর স্বজনদের দান করুন। আমি তাঁর বিদেহী আত্মার চিরশান্তি কামনা করছি। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।
লেখক -মনোরঞ্জন তালুকদার সহকারী অধ্যাপক
জগন্নাথপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজ।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com